অন্যান্য 

আমাদের ভোটার কার্ড যদি নাগরিকত্ব প্রমাণে বৈধ না হয় তাহলে নির্বাচিত সরকারও তো অবৈধ ?

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সেখ ইবাদুল ইসলাম :  মাননীয় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী কয়েক দিন আগে বলেছেন , নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন নিয়ে যে সব অশান্তি দেশজুড়ে হচ্ছে তা নেপথ্যে রয়েছে কংগ্রেস ও বিরোধী দলগুলি । তারা মুসলিমদেরকে ক্ষেপাচ্ছে । কাপড় দেখেই চেনা যায় কারা অশান্তি করছে । ঠিক তার পরের দিন দেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এক টিভি চ্যানেলকে সাক্ষাৎকার দিতে গিয়ে বলেছেন , আধার কার্ড , ভোটার কার্ড নাগরিকত্বের বৈধ প্রমাণ নয় । নাগরিকত্ব প্রমাণ করতে গেলে অন্য কিছু দেখাতে হবে । স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এই ধরনের মন্তব্যের পরেই প্রশ্ন ওঠে ভোটার কার্ড যদি নাগরিকত্বের প্রমাণ না হয় তাহলে সেই কার্ড দেখিয়ে যারা ভোট দিল । এবং বিজেপিকে দিল্লিতে ক্ষমতায় নিয়ে এল তাদের নাগরিকত্ব বৈধ কিনা পরীক্ষা না করেই তাদের ভোটে জিতে আসা সরকার কী বৈধ ?

জনগণের ভোটে নির্বাচিত সরকারের এই ধরনের ঔদ্ধত্যপূর্ণ মন্তব্য করার অধিকার কোথা থেকে পায় ? একজন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী দেশের সংবিধানকে অগ্রাহ্য করে বলতে পারেন কি ভোটার কার্ড থাকলেই তাকে ভারতীয় নাগরিক বলা যাবে না ?  তাছাড়া জনগণ দ্বারা নির্বাচিত  সরকরেরর তার ভোটারের নাগরিকত্বের প্রমাণ চাওয়ার নৈতিক অধিকার কতটুকু আছে ।

স্বাধীনতার ৭২ বছর পর জাতীয় নাগরিক পঞ্জী করতে হবে বলে যে জেদ ধরে বসেছেন অমিত শাহ এটা দেশের মধ্যে অহেতুক অশান্তি তৈরি করা ছাড়া আর কিছুই নয় । আসলে আমাদের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী দেশের রাজনীতির প্রাথমিক পাঠ টুকু ভালো করে পড়েন নি। পড়লে তিনি এটা বলতে পারতেন না সংসদে দাঁড়িয়ে যে কেন মুসলিমদের নাগরিকত্ব দেব ? রাজনীতি করতে পারেন এটা দেশের সংবিধান অধিকার দিয়েছে । কিন্ত সংবিধান অধিকার দিয়েছে বলে দেশের স্বার্থকে জলাজ্ঞলি দিয়ে রাজনীতি করতে হবে এটা আসলে প্রকৃত দেশভক্তির নমুনা নয় ।

দেশজুড়ে প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে , ভোটার কার্ড বৈধ নাগরিকের স্বীকৃতি না দিলে তাহলে এই সব ভোটারদের ভোটে নির্বাচিত সরকারের বৈধতা নিয়ে প্রশ্ন উঠবে । প্রশ্ন উঠবে তাহলে কী মোদী সরকার একটি সমাজকে টার্গেট করতে চাইছে । তারা মনে করছে এই সমাজের মানুষ তাদের দলকে ভোট দেয়নি সুতরাং ভোটার কার্ড নাগরিকত্বের প্রমাণ নয় বলে দিলে আগামী দিনে অনেক ক্ষেত্রে সুবিধা পাওয়া যাবে । সুতরাং দেশের মানুষকে ভুল বোঝাচ্ছে কে ? কংগ্রেস সহ বিরোধীরা , নাকি মোদী-শাহরা । মোদী সরকারের এক মন্ত্রী সংবাদ-মাধ্যমকে বলছেন , এদেশে হিন্দুর যতটা অধিকার আছে , মুসলমানেরও ততটা অধিকার আছে । আবার মোদী বলছেন পোশাক দেখেই চেনা যায় কারা অশান্তি করছে । আসলে সরকার বা দলের নিয়ত ঠিক নেই । কোন কথাটা বলতে হবে , আর কোন কথাটা বলতে হবে না তা বুঝে উঠতেই পারছেন  না মোদী-শাহ । ফলে দেশজুড়ে অশান্তি বেড়ে চলেছেই ।


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment