কলকাতা 

মসজিদ নামাজের জন্য অপরিহার্য না হলে , মন্দির-গুরুদোয়ারা,গীর্জা কী করে অপরিহার্য হবে ? : সরদার আমজাদ আলী

শেয়ার করুন
  • 20
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বুলবুল চৌধুরি : ১৯৯৪ সালে সুপ্রিম কোর্টের এক রায়কে পুনরায় বিবেচনা করার জন্য দেশের শীর্ষ আদালতে যে আবেদন করেছিল মুসলিমরা, তার প্রেক্ষিতে সেই রায়কে বহাল রাখা হয়েছে । বৃহস্পতিবার সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতি দীপক মিশ্রের নেতৃত্বাধীন ডিভিসন বেঞ্চ মসজিদ নামাজের জন্য অপরিহার্য নয় , এই রায়কেই বহাল রেখেছেন ।
এর প্রতিক্রিয়া দিতে রাজ্যের বর্ষীয়ান আইনজীবী ও প্রাক্তন সাংসদ সরদার আমজাদ আলী বলেন , বিচারপতিদের নিজেদের মধ্যে মতের মিল নেই । এই বেঞ্চের অন্যতম সদস্য বিচারপতি আবদুল নাজির বলেছেন,”ধর্মীয় প্রথার মধ্যে কোনটা জরুরি বা জরুরি নয় তা বিচার করার জন্য বিষয়টি বৃহত্তর বেঞ্চের প্রয়োজন রয়েছে।” কিন্ত তাঁর বক্তব্যকে খারিজ করে দিয়ে ২-১ এ এই মামলার রায় দেওয়া হয়েছে ।

এই রায়ের ফলে বেশ কয়েকটি প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে বলে সরদার আমজাদ আলী মন্তব্য করেন। তিনি বলেন, ধর্মীয় উপাসনা তো আর প্রেক্ষাগৃহে হয় না । আদালত যেমন নির্দিষ্ট ঘরে বসে , ঠিক তেমনই নামাজ পড়ার জন্য কিংবা পুজো করার জন্য কিংবা প্রার্থনা করার জন্য কিংবা ভজন করার জন্য নির্দিষ্ট পবিত্র ঘরের প্রয়োজন হয় । তাই শীর্ষ আদালতের মতে নামাজ পড়ার জন্য যদি মসজিদ অপরিহার্য না হয় তাহলে মন্দির-গীর্জা-গুরদোয়ারা, চার্চ অপরিহার্য হবে না। আসলে আইনের বাইরেও সামাজিক একটা প্রথা থাকবে এটাকে মান্যতা দিয়েই দেশের সংবিধান ও আইন তৈরি হয় । আমার মনে হয় সুপ্রিম কোর্টের মসজিদ সংক্রান্ত রায় খুব সহজে দেশের মুসলিমরা মেনে নেবে না।

এক প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন , জমি অধিগ্রহণ করা যাবে বলে তো যা খুশি তাই করা যায় না । পরকীয়া সংক্রান্ত রায় নিয়ে প্রবীণ আইনজীবী সরদার আমজাদ আলীকে প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন , দেশে অনেক সমস্যা আছে সেদিকে না তাকিয়ে সুপ্রিম কোর্ট কেন এসব বিষয়ে মাথা দিতে শুরু করেছে সেটা ভেবে পাচ্ছি না।

 

 

 

 

 


শেয়ার করুন
  • 20
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment