কলকাতা 

ফিরহাদ কন্যার পর এবার তৃণমূল সাংসদের স্ত্রী জুনিয়র চিকিৎসকদের আন্দোলন সমর্থন করে বললেন ,‘‘ যদি এখনও আপনারা ঐক্যবদ্ধ না হন তা হলে একে একে আপনারা সকলে গণপ্রহারের শিকার হবেন।’’

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলার জনরব ডেস্ক : ফিরহাদ হাকিমের কন্যা এবং কেপিএস মেডিকেল কলেজের প্রাক্তনী পেশায় চিকিৎসক শাবা হাকিমের  সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্টকে ঘিরে তৃণমূলের অস্বস্তির রেশ কাটতে নো কাটতেই  আবার এক চিকিৎসক সাংসদের স্ত্রীর পোষ্ট ঘিরে তৃণমূলের অস্বস্তি চরমে পৌছেছে ।

তৃণমূল সাংসদ তথা চিকিৎসক শান্তনু সেনের স্ত্রী কাকলি সেনও ফেসবুকে বিস্ফোরক মতামত দিয়েছেন। সোস্যাল মিডিয়ায় তিনি সরাসরি জুনিয়র ডাক্তারদের এই আন্দোলনকে সমর্থন জানিয়ে লিখেছেন, ‘‘আমরা অভিযুক্তদের অবিলম্বে গ্রেফতার ও কঠিন শাস্তি দাবি করছি। চিকিৎসা পরিষেবার সঙ্গে যুক্তদের আমরা অনুরোধ করছি এই নৃশংসতার বিরুদ্ধে এক হতে। কোনও সংবাদ মাধ্যম, সরকার অথবা সেলিব্রিটি ডাক্তারদের গণপ্রহারের বিরুদ্ধে দাঁড়ান না। ডাক্তাররা সংখ্যায় কম, কেউ আপনাদের প্রতি সহানুভূতিশীল হবেন না। যদি এখনও আপনারা ঐক্যবদ্ধ না হন তা হলে একে একে আপনারা সকলে গণপ্রহারের শিকার হবেন।’’ প্রয়োজন হলে সব হাসপাতাল এবং স্বাস্থ্যকেন্দ্র বন্ধ করে দেওয়া হবে— এমন হুঁশিয়ারিও নিজের ফেসবুক পোস্টে দিয়েছেন তৃণমূলের রাজ্যসভার সাংসদের স্ত্রী। কাকলী সেনের এই পোষ্ট ঘিরে দানা বেধেছে তাহলে কী জুনিয়র ডাক্তারদের আন্দোলন নিয়ে তৃণমূল কংগ্রেসের মধ্যে বিরোধ রয়েছে । কারণ শান্তনু সেন শুধুমাত্র একজন রাজ্যসভার সাংসদই নন , তিনি একইসঙ্গে ডাক্তারদের সংগঠন ইন্ডিয়ান মেডিকেল অ্যাসেসিয়েশনের কর্মকর্তা বটে ।

অন্যদিকে বুধবার রাতে ফিরহাদ কন্যা ডা. শাবাহ-র ফেসবুক পোষ্টকে ঘিরে তৃণমূল চরম অস্বস্তি পড়ে যায় । কারণ ফিরহাদ হাকিম মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সবচেয়ে গুড বুকে আছেন । তাঁর কন্যা ফেসবুকে লিখেছেন , ‘‘একজন তৃণমূল সমর্থক হিসেবে আমাদের নেতার নিষ্ক্রিয়তা এবং নীরবতায় আমি গভীর ভাবে লজ্জিত।’’

শাবাহ লিখেছেন, ‘‘অন্যান্য পেশার মতো আমরা কাজ না করার সিদ্ধান্ত নিয়েই খালাস হতে পারি না কারণ দিনের শেষে আমাদের মানবিকতা রয়েছে। যদি একটা বাস বা ট্যাক্সি ধর্মঘট হত, তা পরিস্থিতি যত খারাপই হোক, এক জন ট্যাক্সিচালক বা বাসচালকও আপনাকে পরিষেবা দিতেন না।’’

তিনি লিখেছেন, ‘‘যাঁরা প্রশ্ন তুলছেন, অন্য রোগীদের কী দোষ, তাঁরা দয়া করে সরকারকে প্রশ্ন করুন, সরকারি হাসপাতালে মোয়াতেন থাকা পুলিশ অফিসাররা ডাক্তারদের রক্ষা করার জন্য কিছুই করেন না কেন? দয়া করে তাঁদের প্রশ্ন করুন যে, যখন দুটো ট্রাকে বোঝাই হয়ে গুন্ডারা এল, তখন অবিলম্বে আরও বাহিনী পাঠানো হল না কে

তবে সবচেয়ে তাৎপর্যপূর্ণ ফিরহাদ-কন্যার ফেসবুক পোস্টের শেষ লাইনটা। ‘বিশেষ দ্রষ্টব্য’ হিসেবে ওই লাইনটিকে উল্লেখ করেছেন শাবা। তার পর লিখেছেন, ‘‘আমাদের নেতার নিষ্ক্রিয়তা এবং নীরবতায় একজন তৃণমূল সমর্থক হিসেবে আমি গভীর ভাবে লজ্জিত।’’

ফিরহাদ কন্যার িএই মন্তব্যের পর সাংসদ শান্তনু সেনের স্ত্রী কাকলী সেনের ‘‘ ডাক্তাররা সংখ্যায় কম, কেউ আপনাদের প্রতি সহানুভূতিশীল হবেন না। যদি এখনও আপনারা ঐক্যবদ্ধ না হন তা হলে একে একে আপনারা সকলে গণপ্রহারের শিকার হবেন।’’ এই মন্তব্য গভীর তাৎপর্য বহন করছে ।


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment