দেশ 

Bjp : উত্তরাখণ্ড, কর্ণাটক, গুজরাটের পর এবার কি নিজেদের ব্যর্থতা ঢাকতে হিমাচল প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রীকে বদল করতে চলেছে বিজেপি ?

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলার জনরব ডেস্ক: নিজেদের ব্যর্থতা ঢাকতে একের পর এক রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী বদল করে চলেছে বিজেপি। উত্তরাখণ্ড, কর্ণাটক, গুজরাটের পর এবার হিমাচল প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী বদল হতে চলেছে? এই প্রশ্ন দিল্লি রাজনৈতিক মহলে ঘোরাফেরা করছে। এর আগে অবশ্য উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথকে সরানোর প্রচেষ্টা করা হয়েছিল কিন্তু আরএসএস তা অনুমোদন না দেওয়ায় যোগী আদিত্যনাথকে সরানো যায় নি। হিমাচল প্রদেশের বর্তমান মুখ্যমন্ত্রীর জয়রাম ঠাকুরও আর এস এস ঘনিষ্ঠ। সুতরাং নরেন্দ্র মোদী অমিত শাহ চাইলেই জয় রাম ঠাকুরকে সরাতে পারবেন না।

তবে জল্পনা সৃষ্টি হয়েছে জয় রাম ঠাকুরের পর পর দিল্লির সফরকে ঘিরে। এমনিতেই কোভিড পরিস্থিতি সামলাতে হিমাচল প্রদেশ সরকার অনেকটাই ব্যর্থ হয়েছে। তার উপর রয়েছে বিজেপি সরকারের আমলে পেট্রোল ডিজেল ও রান্নার গ্যাসের অস্বাভাবিক মূল্যবৃদ্ধি এর চাপে জনগণের নাভিশ্বাস উঠেছে। এই অবস্থায় মুখ্যমন্ত্রী বদল করে বিজেপির আগামী বিধানসভা নির্বাচনের আগে হিমাচল প্রদেশে ভোটে যেতে চাইছে বলে খবর পাওয়া যাচ্ছে।

এখন প্রশ্ন উঠেছে জয় রাম ঠাকুর এর বদলে কে হিমাচলের মুখ্যমন্ত্রী পদে বসবেন? এই প্রশ্নের উত্তর খুঁজতে গিয়ে জানা যাচ্ছে ,ওই রাজ্যের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী প্রেমকুমার ধুবলের পুত্র অনুরাগ ঠাকুরকে মুখ্যমন্ত্রী পদে বসাতে চাইছেন বিজেপি নেতৃত্বের একটা অংশ! যদিও এখন সবটাই রয়েছে আলোচনার স্তরে তাই এক্ষুনি মুখ্যমন্ত্রী বদল হয়তো হবেনা। কিন্তু নির্বাচন যতই এগিয়ে আসবে ততই মুখ্যমন্ত্রী বদলের পক্ষে সওয়াল উঠবে বলে রাজনৈতিক মহলের আশঙ্কা।

যদিও হিমাচল প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী জয় রাম ঠাকুর বলেছেন, তিনি মূলত দলীয় কাজের জন্যই দিল্লি আসছেন। হিমাচল প্রদেশ রাজ্যের প্রতিষ্ঠা দিবস উপলক্ষে দেশের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ও রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দকে আমন্ত্রণ জানাতে তিনি দিল্লি এসেছেন। তবে জল্পনা সৃষ্টি হয়েছে বিজেপি সভাপতি জেপি নাড্ডার সঙ্গে তার বৈঠক ঘিরে।

আসলে, গত ছ’মাসের মধ্যেই তিন রাজ্যের চারজন নির্বাচিত মুখ্যমন্ত্রীকে স্রেফ চোখের ইশারায় বদলে দিয়েছে বিজেপির (BJP) কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব। এর মধ্যে উত্তরাখণ্ডেই মুখ্যমন্ত্রী বদলেছে দু’বার। কর্ণাটকে একসময়ের অবিসংবাদী নেতা ইয়েদুরাপ্পাকেও মসনদ থেকে সরিয়েছে বিজেপি। সবশেষে প্রধানমন্ত্রীর নিজের রাজ্য গুজরাটেও গদিচ্যুত হয়েছেন বিজয় রূপানি (Vijay Rupani)। শোনা যাচ্ছে, আরও দু-তিন রাজ্যে মুখ্যমন্ত্রী বদলের সম্ভাবনা আছে। জয়রাম ঠাকুরের ঘনঘন দিল্লি যাত্রা হিমাচলপ্রদেশ নিয়েও জল্পনা বাড়িয়ে দিয়েছে।

হিমাচল প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী জয় রাম ঠাকুর যাই বলুক না কেন, একটা বিষয় স্পষ্ট হয়েছে যে হিমাচল প্রদেশের জনতা যেভাবে বিজেপির কাছ থেকে সরে গেছে সেটা ফিরিয়ে আনার লক্ষ্যে মুখ্যমন্ত্রীর বদল করতেই পারে বিজেপি। তবে এই বদল কবে হবে তা এখনই বলা যাবে না ।


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ