জেলা 

বিজেপি-র আগ্রাসন ঠেকাতে মমতার নির্দেশে ঝাড়গ্রামের বিশেষ দায়িত্বে মানস-সৌমেন

শেয়ার করুন
  • 36
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বিশেষ প্রতিবেদক : পাখির চোখ ২০১৯-র লোকসভা নির্বাচন । গত পঞ্চায়েত নির্বাচনে ঝাড়গ্রাম জেলায় অভাবনীয় ফল করে বিজেপি । আর বিজেপির এই ফলে খানিকটা অস্বস্তিতে শাসক তৃণমূল । সেই অস্বস্তি কাটাতে প্রথমে রাজ্য প্রশাসন স্তর থেকে ওই জেলার বিডিওদের বদলী করা হয় । এর পর সাংগঠনিক স্তরে বিস্তর পরিবর্তন ঘটালেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় । ঝাড়গ্রাম জেলার আটটি ব্লকের মধ্যে ছটি ব্লকের সভাপতি পরিবর্তন করা হয়েছে । একই সঙ্গে কংগ্রেস থেকে আসা মানস ভুইঁয়া ও মন্ত্রী সৌমেন মহাপাত্রকে ওই জেলার সাংগঠনিক দিক দেখার দায়িত্ব দিয়েছেন। এরা বর্তমান ঝাড়গ্রাম জেলার সভাপতি অজিত মাইতিকে সাংগঠনিক বিষয়ে সাহায্য করবেন। আজ সোমবার তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বাড়িতে এক বৈঠকে এই সিদ্ধান্ত  হয় । এই বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়, সাংসদ সুব্রত বক্সী,সাংসদ মানস ভুইঁয়া,মন্ত্রী সৌমেন মহামাত্র ও জেলা সভাপতি অজিত মাইতি । এদিনের বৈঠকে ঝাড়গ্রাম জেলার ছটি ব্লকের নতুন সভাপতির নাম ঘোষণা করা হয় ।  এরা হলেন মুলুকচাঁদ হেমব্রম, শ্যামল মাহাতো,বুবাই মাহাতো, নিশীথে মাহাতো, সোমনাথ মহাপাত্র ও রবীন্দ্রনাথ মাহাতো । যে ছটি ব্লকের সভাপতি বদল করা হয়েছে সেগুলি হল নয়াগ্রাম, বিনপুর-১,বিনপুর-২, জামবনী সাকঁরাইল ও ঝাড়গ্রাম ।

এদিন দলনেত্রী নির্দেশ দেন ঝাড়গ্রাম জেলার সাংগঠনিক কাজকর্ম সভাপতি অজিত মাইতির সঙ্গে সাংসদ মানস ভুইয়াঁ ও মন্ত্রী সৌমেন মহাপাত্র দেখভাল করবেন। একই সঙ্গে এই দুই নেতা পশ্চিম মেদিনীপুরের সংগঠনও দেখভাল করবেন বলে দলনেত্রী আজকের বৈঠকে জানিয়ে দেন। উল্লেখ্য পঞ্চায়েত ভোটের ফল যাতে আগামী লোকসভা নির্বাচনে ঝাড়গ্রাম জেলায় কোন প্রভাব না ফেলে তার জন্যই সাংগঠনিক স্তরে এই রদবদল বলে ওয়াকিবহাল মহল মনে করছেন।


শেয়ার করুন
  • 36
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment