কলকাতা 

সোশ্যাল মিডিয়ায় ভিডিও দেখে ভিন রাজ্যে আটকে পড়া বাঙালি শ্রমিকদের থাকা ও খাওয়ার ব্যবস্থা করার জন্য ১৮ রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীকে চিঠি দিয়ে মানবিকতার নজীর গড়লেন মমতা

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলার জনরব ডেস্ক : মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের আরও একটি মানবিক পদক্ষেপে আপ্লুত বাঙালি । পশ্চিমবাংলার যেসব বাঙালি শ্রমিক দেশের বিভিন্ন রাজ্যে কাজ করতে গিয়ে আটকে পড়েছে তাদের প্রতি নজর দেওয়ার জন্য দেশের ১৮টি রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীকে চিঠি দিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় । মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী উদ্ধব ঠাকরের সঙ্গে যোগাযোগ করে সে রাজ্যে আটকে পড়া ৮৭ জন বাঙালি শ্রমিকের থাকা-খাওয়ার বন্দোবস্তও করলেন অত্যন্ত দ্রুত।

আসলে হঠাৎ করে দেশের পরিস্থিতি বদলে গেছে । তা বুঝে ওঠার আগেই বিভিন্ন রাজ্যে কাজ করতে যাওয়া বাঙালিরা লকডাউনে পড়ে যায় । কেউ কেউ শেষ মূহুর্তে আসার চেষ্টা করেও ব্যর্থ হয় । কারণ ট্রেনের টিকিট পাওয়া যায়নি কিংবা ট্রেনে অসম্ভব ভিড় থাকার ফলে তারা আসতে পারেনি । কিন্ত লকডাউনের সব কিছু বন্ধ হয়ে গেছে । রাস্তাতেও আশ্রয় পাচ্ছে না । ঘরের মালিক ঘর ছাড়তে বলে দিয়েছে । এই অবস্থায় তারা করবে কী ? মুম্বইয়ের বান্দা শহর থেকে একটি ভিডিও ভাইরাল সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়ে যায় । আর সেই ভিডিও দেখেন স্বয়ং মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় । এরপর তিনি নির্দেশ পাঠান ডেরেক ও’ব্রায়েনের কাছে । তিনি মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী উদ্ধব ঠাকরে দফতরের সঙ্গে কথা বলেন । এরপরেই আটকে পড়া ৮৭ শ্রমিকের থাকা খাওয়ার ব্যবস্থা করে মহারাষ্ট্র সরকার ।

এরকম দেশের ১৮টি রাজ্যে বাঙালি শ্রমিকরা আটকে পড়েছেন কিংবা কেউ বেড়াতে গিয়ে আটকে পড়েছে । তাদেরকে যেহেতু এই মুহুর্তে রাজ্যে আনা সম্ভব নয় । তাই তাদের প্রতি বিশেষ নজর দেওয়ার জন্য ১৮ টি রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীকে অনুরোধ চিঠি লিখেছেন মমতা  ১৮ জন মুখ্যমন্ত্রীকে মমতা যে চিঠি পাঠিয়েছেন, তাতে তিনি লিখেছেন— ‘‘আমি আপনাকে অনুরোধ করছি, আপনার প্রশাসনকে বলুন, এই সঙ্কটের সময়ে সেখানে আটকে পড়া (পশ্চিমবঙ্গের) শ্রমিকদের আশ্রয়, খাবার এবং চিকিৎসা সংক্রান্ত সহায়তা দিতে। একই ভাবে বাংলায় যাঁরা আটকে পড়েছেন, আমরা তাঁদের যত্ন নিচ্ছি।’’

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের এই উদ্যোগ এবং মহারাষ্ট্রে ইতিমধ্যেই ৮৭ জন বাঙালি শ্রমিকের থাকা-খাওয়ার বন্দোবস্ত দ্রুত হওয়ার কথা তুলে ধরে রাজ্য সরকারের প্রশংসা করেছেন সাংসদ ডেরেক ও’ব্রায়েন। রাজ্যসভার তৃণমূল দলনেতার কথায়, ‘‘করোনার বিরুদ্ধে লড়াইয়ে মানুষের পাশে দাঁড়ানোর চেষ্টা অনেকেই করছেন। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সে প্রচেষ্টায় অন্য সবার চেয়ে এগিয়ে রয়েছেন। তাঁর ভূমিকা নির্ণায়ক এবং সহানুভূতিশীল।’’

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের এই উদ্যোগ রাজ্যের মানুষ দুহাত ভরে সমর্থন করছে । তারা বলছে মমতার মত মানবিক মুখ্যমন্ত্রীর জন্যই এসব সম্ভব হচ্ছে ।


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment