কলকাতা 

গ্রামীণ ব্যাঙ্কে কয়েক হাজার অফিসার, অ্যাসিস্ট্যান্ট নিয়োগ, আবেদন করা যাবে ২ জুলাই পর্যন্ত

শেয়ার করুন
  • 25
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

নিজস্ব প্রতিনিধি : পশ্চিমবঙ্গ সহ দেশের ৫৬টি রিজিওনাল রুরাল ব্যাঙ্কে (আঞ্চলিক গ্রামীণ ব্যাঙ্ক) গ্রূপ-এ অফিসার (স্কেল ওয়ান, টু ও থ্রি) এবং গ্রূপ ‘বি’ অফিস অ্যাসিস্ট্যান্ট (মাল্টিপারপাস) পদে ৯,৪৪৯জন কর্মী নিয়োগ করা হবে। একজন দুটি পদের জন্যও আবেদন করতে পারেন (অফিস অ্যাসিস্ট্যান্ট ছাড়াও যে-কোনো একটি অফিসার পদের জন্য)। প্রার্থী বাছাইয়ের জন্য আইবিপিএসের লিখিত পরীক্ষা কমন রিক্রূটমেন্ট প্রসেস ফর আরআরবিএস (CRP RRBs VII) হবে ২০১৮ সালের আগস্ট এবং অক্টোবর মাসে। নিচের যোগ্যতার যে-কোনো ভারতীয়রা যে-কোনো ব্যাঙ্কের শূন্যপদের জন্য আবেদন করতে পারবেন। তবে অফিস অ্যাসিস্ট্যান্ট ও অফিসার স্কেল-ওয়ানের পদগুলির ক্ষেত্রে যে অঞ্চলের গ্রামীণ ব্যাঙ্কের শূন্যপদের জন্য আবেদন করবেন সেখানকার স্থানীয় ভাষা জানতে হবে (অর্থাৎ স্কুলে অন্তত অষ্টম মান পযর্ন্ত পড়ে থাকতে হবে), জানা না থাকলেও যদি নির্বাচিত হন, নিয়োগের ছমাসের মধ্যে সেই ভাষার কোর্স করে নেওয়া যাবে। অফিস অ্যাসিস্ট্যান্ট ও অফিসার স্কেল ওয়ানের জন্য বাংলা ভাষা জানা থাকলে এরাজ্যের ৩টি ব্যাঙ্ক ছাড়াও ত্রিপুরা গ্রামীণ ব্যাঙ্ক ও অসমের দুটি ব্যাঙ্কের জন্যও আবেদন করা যাবে। তেমনই হিন্দি ভাষা জানা থাকলে আবেদন করা যাবে ২২টি ব্যাঙ্কের শূন্যপদের জন্য। আঞ্চলিক ব্যাঙ্কগুলির নাম ও সেখানকার স্থানীয় ভাষা সম্পর্কে বিস্তারিত জানা যাবে নিচের ওয়েবসাইটে।

বয়সসীমা: অফিসার স্কেল থ্রি (সিনিয়র ম্যানেজার) পদের জন্য বয়স হতে হবে ২১ বছরের বেশি এবং ৪০ বছরের কম (জন্মতারিখ ৩ জুন ১৯৭৮ থেকে ৩১ মে ১৯৯৭)। অফিসার স্কেল টু (ম্যানজোর) পদের জন্য বয়স হতে হবে ২১ বছরের বেশি এবং ৩২ বছরের কম (জন্মতারিখ ৩ জুন ১৯৮৬ থেকে ৩১ মে ১৯৯৭)। অফিসার স্কেল ওয়ান (অ্যাসিস্ট্যান্ট ম্যানেজার) পদে বয়স হতে হবে ১৮ বছরের বেশি এবং ৩০ বছরের কম (জন্মতারিখ ৩ জুন ১৯৮৮ থেকে ৩১ মে ২০০০)। অফিস অ্যাসিস্ট্যান্ট (মাল্টিপারপাস) পদে বয়স হতে হবে ১৮ বছরের বেশি এবং ২৮ বছরের কম (জন্মতারিখ ২ জুন ১৯৯০ থেকে ১ জুন ২০০০)। সবক্ষেত্রেই ১ জুন ২০১৮ তারিখের হিসেবে বয়স ধরা হবে এবং সংরক্ষিত শ্রেণির প্রার্থীরা নিয়ম অনুযায়ী বয়সের ঊর্ধ্বসীমায় ছাড় পাবেন। বিধবা/বিবাহবিচ্ছিন্না/আইনত পতিসঙ্গ বিচ্ছিন্নারাও আবার বিয়ে করে না থাকলে ৯ বছর পর্যন্ত বয়সের ছাড় পাবেন, কেবল অফিস অ্যাসিস্ট্যান্টের পদের জন্য।

শিক্ষাগত যোগ্যতা: অফিস অ্যাসিস্ট্যান্ট (মাল্টিপারপাস): কোনো স্বীকৃত বিশ্ববিদ্যালয় থেকে যে-কোনো শাখায় ব্যাচেলর ডিগ্রি বা সমতুল। যে আঞ্চলিক গ্রামীণ ব্যাঙ্কের জন্য আবেদন করবেন সেখানকার স্থানীয় ভাষায় দক্ষতা থাকতে হবে। কাজ চালানোর মতো কম্পিউটারের জ্ঞান বাঞ্ছনীয়।

অফিসার স্কেল ওয়ান (অ্যাসিস্ট্যান্ট ম্যানেজার): কোনো স্বীকৃত বিশ্ববিদ্যালয় থেকে যে-কোনো শাখায় ব্যাচেলর ডিগ্রি বা সমতুল। এগ্রিকালচার/ হর্টিকালচার/ ফরেস্ট্রি/ অ্যানিমাল হাজব্যান্ড্রি/ ভেটেরিনারি সায়েন্স/ এগ্রিকালচারাল ইঞ্জিনিয়ারিং/ পিসিকালচার/ এগ্রিকালচারাল মার্কেটিং অ্যান্ড কোঅপারেশন/ ইনফরমেশন টেকনোলজি/ ম্যানেজমেন্ট/ ল / ইকোনমিক্স বা অ্যাকাউন্ট্যান্সিতে ডিগ্রি থাকলে অগ্রাধিকার। যে আঞ্চলিক গ্রামীণ ব্যাঙ্কের জন্য আবেদন করবেন সেখানকার স্থানীয় ভাষায় দক্ষতা থাকতে হবে। কম্পিউটারে কাজ চালানোর মতো জ্ঞান থাকা বাঞ্ছনীয়।

অফিসার স্কেল টু- জেনারেল ব্যাঙ্কিং অফিসার (ম্যানেজার): কোনা স্বীকৃত বিশ্ববিদ্যালয় থেকে যে-কোনো শাখায় ন্যূনতম ৫০ শতাংশ নম্বর সহ ব্যাচেলর ডিগ্রি বা সমতুল। ব্যাঙ্কিং/ ফিনান্স/ মার্কেটিং/ এগ্রিকালচার/ হর্টিকালচার/ ফরেস্ট্রি/ অ্যানিমাল হাজব্যান্ড্রি/ ভেটেরিনারি সায়েন্স/ এগ্রিকালচারাল ইঞ্জিনিয়ারিং/ পিসিকালচার/ এগ্রিকাচারাল মার্কেটিং অ্যান্ড কোঅপারেশন/ ইনফরমেশন টেকনোলজি/ ম্যানেজমেন্ট/ ল/ ইকোনমিক্স অ্যান্ড অ্যাকাউন্ট্যান্সিতে ডিগ্রি থাকলে অগ্রাধিকার। কোনো ব্যাঙ্ক বা ফিনান্সিয়াল ইনস্টিটিউটে অফিসার হিসেবে দু বছরের অভিজ্ঞতা থাকা দরকার।

অফিসার স্কেল টু- স্পেশ্যালিস্ট অফিসার (ম্যানেজার): (ক) ইনফরমেশন টেকনোলজি অফিসার: কোনো স্বীকৃত বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ন্যূনতম ৫০ শতাংশ নম্বর নিয়ে ইলেক্ট্রনিক্স/ কমিউনিকেশন/ কম্পিউটার সায়েন্স/ ইনফরমেশন টেকনোলজিতে ব্যাচেলর ডিগ্রি বা সমতুল। এএসপি, পিএইচপি, সিপ্লাসপ্লাস, জাভা, ভিবি, ভিসি, ওসিপি ইত্যাদির সার্টিফিকেট বাঞ্ছনীয়। সংশ্লিষ্ট ফিল্ডে এক বছরের অভিজ্ঞতা থাকতে হবে।

(খ) চার্টার্ড অ্যাকাউন্টান্ট: ইনস্টিটিউট অব চার্টার্ড অ্যাকাউন্ট্যান্টস অব ইন্ডিয়া থেকে সিএ। চার্টার্ড অ্যাকাউন্ট্যান্ট হিসেবে এক বছরের অভিজ্ঞতা থাকতে হবে।

(গ) ল অফিসার: কোনো স্বীকৃত বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ন্যূনতম ৫০ শতাংশ নম্বর সহ ল ডিগ্রি বা সমতুল। অ্যাডভোকেট হিসেবে দু বছরের অভিজ্ঞতা বা কোনো ব্যাঙ্ক বা ফিনান্সিয়াল ইনস্টিটিউটে অন্তত দু বছর ল অফিসার হিসেবে কাজ করে থাকতে হবে।

(ঘ) ট্রেজারি ম্যানেজার: কোনো স্বীকৃত বিশ্ববিদ্যালয় বা ইনস্টিটিউট থেকে চার্টার্ড অ্যাকাউন্ট্যান্ট বা ফিনান্সে এমবিএ। সংশ্লিষ্ট ফিল্ডে এক বছরের অভিজ্ঞতা।

(ঙ) মার্কেটিং অফিসার: কোনো স্বীকৃত বিশ্ববিদ্যালয় থেকে মার্কেটিংয়ে এমবিএ। সংশ্লিষ্ট ফিল্ডে এক বছরের অভিজ্ঞতা। (চ) এগ্রিকালচারাল অফিসার: কোনো স্বীকৃত বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ন্যূনতম ৫০ শতাংশ নম্বর সহ এগ্রিকালচার/ হর্টিকালচার/ ডেয়ারি/ অ্যানিমাল হাজব্যান্ড্রি/ ফরেস্ট্রি/ ভেটেরিনারি সায়েন্স/ এগ্রিকালচারাল ইঞ্জিনিয়ারিং/ পিসিকালচারে ব্যাচেলরে ডিগ্রি বা সমতুল। সংশ্লিষ্ট ফিল্ডে দু বছরের অভিজ্ঞতা থাকা দরকার।

অফিসার স্কেল থ্রি (ম্যানেজার) কোনো স্বীকৃত বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ন্যূনতম ৫০ শতাংশ নম্বর সহ যে-কোনো শাখায় ব্যাচেলর ডিগ্রি। ব্যাঙ্কিং/ ফিনান্স/ মার্কেটিং/ এগ্রিকালচার/ হর্টিকালচার/ ফরেস্ট্রি/ অ্যানিমাল হাজব্যান্ড্রি/ ভেটেরিনারি সায়েন্স/ এগ্রিকালচারাল ইঞ্জিনিয়ারিং/ পিসিকালচার/ এগ্রিকালচারাল মার্কেটিং অ্যান্ড কোঅপারেশন/ ইনফরমেশন টেকনোলজি/ ম্যানেজমেন্ট/ ল/ ইকোনমিক্স অ্যান্ড অ্যাকাউন্ট্যান্সিতে ডিগ্রি বা ডিপ্লোমা থাকলে অগ্রাধিকার। কোনো ব্যাঙ্ক বা ফিনান্সিয়াল ইনস্টিটিউটে অফিসার হিসেবে অন্তত ৫ বছরের অভিজ্ঞতা থাকা দরকার।

সবক্ষেত্রেই শিক্ষাগত যোগ্যতা সম্পূর্ণ হতে হবে  ২ জুলাই ২০১৮ তারিখের মধ্যে।

অফিসার স্কেল ওয়ান ও অফিস অ্যাসিস্ট্যান্ট (মাল্টিপারপাস) পদের ক্ষেত্রে অষ্টম শ্রেণি পর্যন্ত স্থানীয় ভাষা পড়ে থাকতে হবে। এক্ষেত্রে কোনো প্রার্থী যদি প্রার্থী বাছাইয়ের সময় স্থানীয় ভাষা না জেনে থাকে সেক্ষেত্রে কাজে যোগ দেওয়ার ৬ মাসের মধ্যে সেই ভাষা শিখে নিতে হবে।

প্রার্থী বাছাই পদ্ধতি: অফিসার (স্কেল ওয়ান, টু ও থ্রি) পদের ক্ষেত্রে অনলাইন পরীক্ষা ও ইন্টারভিউয়ের মাধ্যমে প্রার্থী বাছাই করা হবে। অফিস অ্যাসিস্ট্যান্ট (মাল্টিপারপাস)  পদের ক্ষেত্রে শুধুমাত্র অনলাইন পরীক্ষার মাধ্যমে প্রার্থী বাছাই করা হবে। অফিসার স্কেল ওয়ান ও অফিস অ্যাসিস্ট্যান্ট (মাল্টিপারপাস) পদের ক্ষেত্রে অনলাইন পরীক্ষা হবে দুটি ধাপে, প্রিলিমিনারি ও মেইন পরীক্ষা। অফিসার স্কেল টু ও থ্রি পদের ক্ষেত্রে সিঙ্গল লেভেল এগজামিনেশন হবে।

অফিস অ্যাসিস্ট্যান্ট (মাল্টিপারপাস) পদের ক্ষেত্রে অবজেক্টিভ টাইপের প্রিলিমিনারি পরীক্ষায় থাকবে রিজনিং (৪০টি প্রশ্ন, ৪০ নম্বর), নিউমেরিক্যাল এবিলিটি (৪০টি প্রশ্ন, ৪০ নম্বর)। মোট ৮০ নম্বরের পরীক্ষা, সময় ৪৫ মিনিট। মেইন পরীক্ষায় (অবজেক্টিভ) থাকবে রিজনিং (৪০টি প্রশ্ন, ৫০ নম্বর), নিউমেরিক্যাল এবিলিটি (৪০টি প্রশ্ন, ৫০ নম্বর), জেনারেল অ্যাওয়্যারনেস (৪০টি প্রশ্ন, ৪০ নম্বর), ইংলিশ ল্যাঙ্গুয়েজ (৪০টি প্রশ্ন ৪০ নম্বর) অথবা হিন্দি ল্যাঙ্গুয়েজ (৪০টি প্রশ্ন, ৪০ নম্বর), কম্পিউটার নলেজ (৪০টি প্রশ্ন, ২০ নম্বর)। মোট ২০০ নম্বরের পরীক্ষা, সময় ২ ঘণ্টা।

অফিসার স্কেল ওয়ান পদের প্রিলিমিনারি পরীক্ষায় থাকবে রিজনিং (৪০টি প্রশ্ন, ৪০ নম্বর), কোয়ান্টিটেটিভ অ্যাপ্টিটিউড (৪০টি প্রশ্ন, ৪০ নম্বর)। মোট ৮০ নম্বরের পরীক্ষা, সময় ৪৫ মিনিট। মেইন পরীক্ষায় (অবজেক্টিভ) থাকবে রিজনিং (৪০টি প্রশ্ন, ৫০ নম্বর), কোয়ান্টিটেটিভ অ্যাপ্টিটিউড (৪০টি প্রশ্ন, ৫০ নম্বর), জেনারেল অ্যাওয়্যারনেস (৪০টি প্রশ্ন, ৪০ নম্বর), ইংলিশ ল্যাঙ্গুয়েজ (৪০টি প্রশ্ন, ৪০ নম্বর) অথবা হিন্দি ল্যাঙ্গুয়েজ (৪০টি প্রশ্ন, ৪০ নম্বর), কম্পিউটার নলেজ (৪০টি প্রশ্ন, ২০ নম্বর)। মোট ২০০ নম্বরের পরীক্ষা, সময় ২ ঘণ্টা।

অফিসার স্কেল টু ও থ্রি-র ক্ষেত্রে সিঙ্গল লেভেল পরীক্ষা হবে (অবজেক্টিভ)। অফিসার স্কেল টু (জেনারেল ব্যাঙ্কিং অফিসার) পদের পরীক্ষায় থাকবে রিজনিং (৪০টি প্রশ্ন, ৫০ নম্বর), কোয়ান্টিটেভি অ্যাপ্টিটিউড অ্যান্ড ডেটা ইন্টারপ্রিটেশন (৪০টি প্রশ্ন, ৫০ নম্বর), ফিনান্সিয়াল অ্যাওয়্যারনেস (৪০টি প্রশ্ন, ৪০ নম্বর), ইংলিশ ল্যাঙ্গুয়েজ (৪০টি প্রশ্ন, ৪০ নম্বর) অথবা হিন্দি ল্যাঙ্গুয়েজ (৪০টি প্রশ্ন, ৪০ নম্বর), কম্পিউটার নলেজ (৪০টি প্রশ্ন, ২০ নম্বর)। মোট ২০০ নম্বরের পরীক্ষা, সময় ২ ঘণ্টা।

অফিসার স্কেল টু (স্পেশ্যালিস্ট ক্যাডার) পদের পরীক্ষায় থাকবে রিজনিং (৪০টি প্রশ্ন, ৪০ নম্বর), কোয়ান্টিটেভি অ্যাপ্টিটিউড অ্যান্ড ডেটা ইন্টারপ্রিটেশন (৪০টি প্রশ্ন, ৪০ নম্বর), ফিনান্সিয়াল অ্যাওয়্যারনেস (৪০টি প্রশ্ন, ৪০ নম্বর), ইংলিশ ল্যাঙ্গুয়েজ (৪০টি প্রশ্ন, ৪০ নম্বর) অথবা হিন্দি ল্যাঙ্গুয়েজ (৪০টি প্রশ্ন, ৪০ নম্বর), কম্পিউটার নলেজ (৪০টি প্রশ্ন, ২০ নম্বর), প্রফেশনাল নলেজ (৪০টি প্রশ্ন, ৪০ নম্বর)। মোট ২০০ নম্বরের পরীক্ষা, সময় ২ ঘণ্টা ৩০

অফিসার স্কেল থ্রি পদের ক্ষেত্রে পরীক্ষায় থাকবে রিজনিং (৪০টি প্রশ্ন, ৫০ নম্বর), কোয়ান্টিটেভি অ্যাপ্টিটিউড অ্যান্ড ডেটা ইন্টারপ্রিটেশন (৪০টি প্রশ্ন, ৫০ নম্বর), ফিনান্সিয়াল অ্যাওয়্যারনেস (৪০টি প্রশ্ন, ৪০ নম্বর), ইংলিশ ল্যাঙ্গুয়েজ (৪০টি প্রশ্ন, ৪০ নম্বর) অথবা হিন্দি ল্যাঙ্গুয়েজ (৪০টি প্রশ্ন, ৪০ নম্বর), কম্পিউটার নলেজ (৪০টি প্রশ্ন, ২০ নম্বর)। মোট ২০০ নম্বরের পরীক্ষা, সময় ২ ঘণ্টা।

সবক্ষেত্রেই হিন্দি ল্যাঙ্গুয়েজ ও ইংরেজি ল্যাঙ্গুয়েজ বাদে অন্যান্য বিষয়ের পরীক্ষা হিন্দি/ ইংরেজি মাধ্যমে দেওয়া যাবে। নেগেটিভ মার্কিং থাকবে। প্রতি ভুল উত্তরের জন্য ০.২৫ করে কাটা হবে। অফিসার (স্কেল ওয়ান, টু ও থ্রি) পদের ক্ষেত্রে মেইন পরীক্ষা থেকে নির্বাচিত প্রার্থীদের ইন্টারভিউয়ের জন্য ডাকা হবে। ইন্টারভিউয়ের সময় যাবতীয় প্রমাণপত্রাদির মূল ও স্ব-প্রত্যয়িত জেরক্স দেখাতে হবে।

পরীক্ষাকেন্দ্র: পশ্চিমবঙ্গ: প্রিলিমিনারি পরীক্ষার কেন্দ্রগুলি হল আসানসোল, বর্ধমান, বহরমপুর, দুর্গাপুর, হুগলি, হাওড়া, কল্যাণী, বৃহত্তর কলকাতা, শিলিগুড়ি। মেইন পরীক্ষার কেন্দ্রগুলি হল বৃহত্তর কলকাতা, শিলিগুড়ি। অসম: প্রিলিমিনারি পরীক্ষার কেন্দ্রগুলি হল ডিব্রুগড়, গুয়াহাটি, জোরহাট, কোকরাঝার, শিলচর, তেজপুর। মেইন পরীক্ষা কেন্দ্র- গুয়াহাটি, শিলচর। বিহার: প্রিলিমিনারি পরীক্ষার কেন্দ্র- আরা, ঔরঙ্গাবাদ, ভাগলপুর, বিহার শরিফ, দ্বারভাঙ্গা, গয়া, মজফফরপুর, পাটনা, পূর্ণিয়া, সমস্তিপুর, শিয়ান। মেইন পরীক্ষার কেন্দ্র ঔরঙ্গাবাদ, ভাগলপুর, গয়া, মজফফরপুর, পাটনা, পুর্ণিয়া, সমস্তিপুর। অন্ধ্রপ্রদেশ, অরুণাচল প্রদেশ, ছত্তিশগড়, গুজরাট, হরিয়ানা, হিমাচল প্রদেশ, জম্মু ও কাশ্মীর, ঝাড়খণ্ড, কর্নাটক, কেরালা, মধ্যপ্রদেশ, মহারাষ্ট্র, মণিপুর, মেঘালয়, মিজোরাম, নাগাল্যান্ড, ওড়িশা, পুডুচেরি, পাঞ্জাব, রাজস্থান, তামিলনাড়ু, তেলেঙ্গানা, ত্রিপুরা, উত্তরপ্রদেশ ও উত্তরাখণ্ডের প্রিলিমিনারি ও মেইন পরীক্ষার কেন্দ্রগুলি সম্পর্কে বিস্তারিত ওয়েবসাইটে জানা যাবে।

আবেদনের ফি/ ইন্টিমেশন চার্জ: অফিসার (স্কেল ওয়ান, টু, থ্রি) এবং অফিস অ্যাসিস্ট্যান্ট (মাল্টিপারপাস) পদের ক্ষেত্রে আবেদনের ফি/ ইন্টিমেশন চার্জ ৬০০ টাকা। অফিসার (স্কেল ওয়ান, টু, থ্রি) পদের ক্ষেত্রে তপশিলি জাতি/ উপজাতি ও শারীরিক প্রতিবন্ধী ক্ষেত্রে ১০০ টাকা। অফিস অ্যাসিস্ট্যান্ট (মাল্টিপারপাস) পদের ক্ষেত্রে তপশিলি জাতি/ উপজাতি, শারীরিক প্রতিবন্ধী ও প্রাক্তন সমরকর্মী প্রার্থীদের ক্ষেত্রে ১০০ টাকা। ডেবিট কার্ড (ভিসা/ মাস্টার কার্ড/ ম্যাস্ট্রো) ক্রেডিট কার্ড, ইন্টারনেট ব্যাঙ্কিং, আইএমপিএস, ক্যাশ কার্ড/ মোবাইল ওয়ালটের মাধ্যমে ফি দেওয়া যাবে। ট্র্যানজ্যাকশন সম্পূর্ণ হলে একটি ই-রিসিট পাওয়া যাবে। ই-রিসিটের প্রিন্ট-আউট নিয়ে রাখতে হবে।

আবেদনের পদ্ধতি: www.ibps.in ওয়েবসাইটে ক্লিক করে অনলাইন আবেদন করতে হবে। বৈধ ইমেল আইডি ও মোবাইল নম্বর থাকতে হবে। অনলাইন আবেদন করা যাবে ৮ জুন থেকে ২ জুলাই ২০১৮ তারিখ পর্যন্ত। অন্যান্য প্রাসঙ্গিক তথ্য জানা যাবে উপরোক্ত ওয়েবসাইটে। কোনো জিজ্ঞাসা থাকলে লগ ইন করতে পারেন http://cgrs.ibps.in-এ


শেয়ার করুন
  • 25
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment