কলকাতা 

রাজ্যজুড়ে ভয়ের বাতাবরণ, অবরোধ আগুনে জ্বলছে বাংলা

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

স্মৃতি সামন্ত : নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল পাস হওয়ার পর দেশের বিভিন্ন প্রান্তে আগুন জ্বলতে শুরু করেছে। অসম থেকে ত্রিপুরা, ত্রিপুরা থেকে পশ্চিমবঙ্গ, উত্তর-পূর্বাঞ্চলের রাজ্যগুলিতে শুরু হয়ে গিয়েছে চরম অশান্তি। ইতিমধ্যে বেশ কয়েক জনের মৃত্যুর ঘটনাও ঘটেছে। অনেক জায়গায় জাতিতে জাতিতে দাঙ্গার ঘটনা ও সৃষ্টি হয়েছে। একদিকে নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল অন্যদিকে এনআরসি – এই দুই এর বিরোধিতায় দেশের বিভিন্ন প্রান্তের মানুষের মধ্যে চরম অসন্তোষ জন্ম নিয়েছে।
পশ্চিমবঙ্গের মুর্শিদাবাদ জেলা থেকে শুরু করে মালদা, হাওড়া, হুগলি, বর্ধমান কিংবা নদীয়া- অবিশ্বাসের বাতাবরণ তৈরি হয়েছে মানুষের মধ্যে। হিন্দু এবং মুসলমান সম্প্রদায়ের একাংশের মানুষের মধ্যে সেই অবিশ্বাসের বাতাবরণে থেকে জন্ম নিচ্ছে হিংসার আগুন।

ইতিমধ্যেই মুর্শিদাবাদ জেলা থেকে শুরু করে হাওড়া মালদা সহ বেশ কয়েকটি জেলায় নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল এবং এনআরসির প্রতিবাদে রাস্তায় নেমে পড়েছেন হাজার হাজার মানুষ। ট্রেন অবরোধ, রাস্তা অবরোধ, টায়ার জ্বালিয়ে আগুন লাগিয়ে দেওয়ার মতো ঘটনা ঘটে চলেছে। বিভিন্ন এলাকায় রাস্তায় গাছের গুঁড়ি ফেলে অবরোধে সামিল হয়েছেন হাজার হাজার মানুষ। মুর্শিদাবাদে রেল স্টেশনে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। সরকারি সম্পত্তি ভাঙচুরের ঘটনাও ঘটে চলেছে। পরিস্থিতি সামাল দিতে যথেষ্ট বেগ পেতে হচ্ছে রাজ্যের পুলিশ প্রশাসনকে। এক এলাকা শান্ত হচ্ছে তো, নতুন করে অন্য এলাকায় আগুন জ্বলে উঠছে। এইরকম এক উদ্ভুত পরিস্থিতির মধ্যে পড়ে সাধারণ মানুষ চরম আতঙ্কিত হয়ে উঠেছেন।

বিভিন্ন দূরপাল্লার ট্রেন বাতিল করতে হয়েছে রেল প্রশাসনকে। রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় হিংসা ছেড়ে গণতান্ত্রিক পথে আন্দোলনে শামিল হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন বাংলার মানুষের প্রতি। তৃণমূল কংগ্রেসের তরফ থেকে একগুচ্ছ কর্মসূচির কথা ঘোষণা করা হয়েছে। কলকাতার বিভিন্ন প্রান্ত থেকে একাধিক মিছিলের আয়োজন করা হয়েছে। যে মিছিলে হাজির থাকবেন খোদ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।
শনিবার রাজ্যের বর্তমান উদ্ভূত পরিস্থিতি নিয়ে কলকাতার মেয়র ফিরহাদ হাকিম বলেন, যারা এধরনের অশান্তিতে অংশ নিচ্ছেন তারা বিজেপির হাত শক্ত করছেন। বিজেপির মধুতে বিভিন্ন জায়গায় এক ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটছে বলে অভিযোগ করেন তিনি।


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment