দেশ 

রাহুলের গরীবি হঠাও পরিকল্পনাকে ভাঁওতা বলে ব্যঙ্গ জেটলির

শেয়ার করুন
  • 1
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলার জনরব ডেস্ক : ইন্দিরা গান্ধীর গরীবি হঠাও শ্লোগানকে আবার নতুন করে বাস্তবায়নের লক্ষ্যে রাহুল গান্ধীর চমকপ্রদ ঘোষণার পরেই বেশ খানিকটা অস্বস্তিতে বিজেপি । রাহুল ঘোষণা করেছেন, ২০ শতাংশ গরিব মানুষের অ্যাকাউন্টে ৭২ হাজার টাকা করে প্রতি বছর দেওয়া হবে কংগ্রেস ক্ষমতায় এলে। রাহুলের এই প্রতিশ্রুতিতে বেশ বেকায়দায় পড়েছে বিজেপি । মোদীর আচ্ছে দিনের প্রতিশ্রুতি পরেই কংগ্রেসের এই বাস্তবমুখী প্রতিশ্রুতিকে কংগ্রেসের ছল-চাতুরির আশ্রয় বলে কটাক্ষ করল বিজেপি।

কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলি ও আইনমন্ত্রী রবিশঙ্কর প্রসাদ উভয়েই রাহুল গান্ধীর এই প্রতিশ্রুতিকে কটাক্ষ করেছেন। অরুণ জেটলি বলেন, মোদীর ভাবনাকে কাজে লাগিয়ে কংগ্রেস ছল-চাতুরির আশ্রয় নিয়েছে। রাহুল গান্ধী যে ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টের কথা ঘোষণা করেছেন, তা মোদী সরকারেরই তৈরি করা। অরুণ জেটলি এদিন বলেন, মোদী সরকারের আধার নিয়ে সংসদে বিরোধিতা করে এসেছে কংগ্রেস। সেই কংগ্রেসই এখন ডিবিটির মাধ্যমে টাকা দিতে চাইছে। দারিদ্র দূরীকরণের বার্তা দিয়ে রাহুল গান্ধী যে প্রকল্পের কথা শুনিয়েছেন, তার তীব্র সমালোচনা করেন অরুণ জেটলি।

তিনি বলেন, ইন্দিরা গান্ধী গরিবি হটাও স্লোগান দিয়েছিলেন। রাজীব গান্ধীও দেশবাসীর সঙ্গে প্রতারণা করেছেন। গত ১০ বছর যখন ইউপিএ সরকার ক্ষমতায় ধোকা ছাড়া কিছুই দেয়নি কংগ্রেস। তিনি বলেন, এককালীন ৭০ হাজার কোটি টাকার ঋণ মকুব করার কথা ঘোষণা করে কংগ্রেস। কিন্তু মাত্র ৫২ হাজার কোটি অ্যাকাউন্টে গিয়েছে। তাও বড় ব্যবসায়ীদের উদরপূর্তি হয়েছে।

জেটলি বলেন, বিগত ৫০ বছর ধরে নানা স্লোগানে গরিবকে তোল্লাই দিয়েছে কংগ্রেস। কিন্তু বাস্তবে কিছুই করেনি। আর মোদী সরকারের আমলে সরাসরি ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে টাকা পৌঁছে যাচ্ছে ৫৫টি প্রকল্পের। প্রায় ১.৮ লক্ষ কোটি টাকা গরিব পরিবারে দেওয়া হয়েছে বলে দাবি জেটলির।

রাহুল গান্ধীর ঘোষণা করা ন্যূনতম আয়ের ঘোষণা নিয়ে কটাক্ষ করেন জেটলি। তিনি বলেন, রাহুলের ঘোষিত অঙ্কের দেড় গুণ বেশি টাকা দেওয়া হয়েছে। রবিশঙ্কর প্রসাদও বলেন, ৫০ বছর আগের স্লোগান তুলে রাহুল গান্ধী এখন ভোট যুদ্ধে ফায়দা তুলতে চাইছে। অথচ নিজেদের সরকার থাকার সময় কিছুই করেনি কংগ্রেস।

 


শেয়ার করুন
  • 1
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment