জেলা 

সংবাদ মাধ্যমের বুম কেড়ে নিলেন আরাবুল, কেন ?

শেয়ার করুন

বিশেষ প্রতিনিধি: বিরোধীদলের প্রার্থীদের নিরাপত্তা দিতে সম্পূর্ণ রূপে ব্যর্থ রাজ্য নির্বাচন কমিশন। তারপরে শাসকদলের নেতা আরাবুল ইসলাম যেভাবে এবিপি আনন্দের সাংবাদিকের কাছ থেকে বুম কেড়ে নিলেন তা এক কথায় অপরাধ বলা যেতে পারে। এই অপরাধে কেন আরাবুল ইসলামকে গ্রেফতার করা হবে না প্রশ্ন তুলছে সাধারন মানুষ।

আজ মঙ্গলবার ভাঙ্গরে ইন্ডিয়ান সেকুলার ফ্রন্টের পক্ষ থেকে মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার কথা আগেই ঘোষণা করা হয়েছিল। সেই অনুযায়ী নির্বাচন কমিশনার রাজীব সিনহার উচিত ছিল পুরো এলাকার নিরাপত্তা ব্যবস্থা কঠোর করার। তিনি তা করতে পারেন নি শুধুমাত্র এই কারণেই রাজীব সিনহার উচিত নির্বাচন কমিশনের পদ থেকে সরে যাওয়া। গণতান্ত্রিক ব্যবস্থাকে সুনিশ্চিত ভাবে সাধারণ মানুষের কাছে পৌঁছে দেওয়ার দায়িত্ব যার তিনি যদি সেই দায়িত্ব পালন করতে না পারেন অবশ্যই তার দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি নিয়ে নেওয়া উচিত।

Advertisement

তারপরে সকাল থেকে যেভাবে বিধায়ক সওকাত মোল্লা বলে আসছিলেন যে ভাঙ্গরে অশান্তির নেপথ্যে ইন্ডিয়ান সেকুলার ফ্রন্টের বিধায়ক নওশাদ সিদ্দিকী সহ তাদের কর্মী সমর্থকরা দায়ী। কিন্তু বেলা হতেই দেখা গেল আরাবুল ইসলামের ছেলের গাড়ি থেকে উদ্ধার হল তাজা বোমা। শুধুমাত্র এই বোমা উদ্ধারের দৃষ্টিভঙ্গি থেকেই রাজীব সিনহা যদি নিরপেক্ষ দৃষ্টিভঙ্গি থেকে নির্বাচন কমিশনারের পদ চালাতে চান তাহলে অবশ্যই এক্ষুনি আরাবুল ইসলামসহ তার ছেলে হাকিকুল ইসলামকে গ্রেফতার করা উচিত। নির্বাচনকে সামনে রেখে দাদাগিরি চলবে না এটা গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র এখানে কোনভাবেই সংবিধান বিরোধী কোনো কাজ করলে কাউকে রেহাই দেয়া হবে না এই বার্তাটা রাজীব সিনহার পৌঁছে দেওয়াটা নৈতিক দায়িত্বের মধ্যে পড়ে।


শেয়ার করুন

সম্পর্কিত নিবন্ধ