জেলা 

Rain: প্রবল বর্ষণে ডুবল ৩১ নম্বর জাতীয় সড়ক, উত্তরবঙ্গে বন্যা পরিস্থিতি !

শেয়ার করুন

বাংলার জনরব ডেস্ক : উত্তরবঙ্গে প্রবল বর্ষণের জেরে বন্যা পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে । জলমগ্ন হয়েছে ৩১ নং জাতীয় সড়ক । এর ফলে  ধূপগুড়ি এবং ফালাকাটার মধ্যে সড়ক যোগাযোগ ব্যাহত হয়েছে। যাত্রীদের ঘুরপথে যেতে হচ্ছে। সেই সঙ্গে বর্ষণের জেরে উত্তরবঙ্গের একাধিক নদীর জলস্তর বেড়েছে।

জয়গাঁর আগে কালচিনি ব্লকের বিবাড়ি এলাকায় গোবরজদি নদীর উপর অবস্থিত সেতুর একটি অংশ ধসে গিয়েছে। তার জেরে ওই সেতুর উপর দিয়ে বড় গাড়ি চলাচল বন্ধ করে দিয়েছে প্রশাসন। এর ফলে এই প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত ভুটানগামী সমস্ত মালবাহী ট্রাক দাঁড়িয়ে রয়েছে। এমনকি বিভিন্ন রুটের বাসও জয়ঁগা বাসস্ট‍্যান্ডে ঢুকতে পারছে না। সব বাস জিএসটি মোড় দিয়ে ঘুরিয়ে নেওয়া হচ্ছে। এর ফলে সমস্যায় পড়েছেন সাধারণ মানুষ।রাতভর টানা বৃষ্টিতে জলমগ্ন ধূপগুড়ি পুরসভার একাধিক ওয়ার্ড এবং গ্রামীণ এলাকা।
আলিপুরদুয়ার শহরেরও পাঁচটি ওয়ার্ড এখন প্লাবিত। নিচু এলাকার মানষজনকে সরানো হচ্ছে। জলস্তর বেড়েছে তিস্তা, জলঢাকা, ডায়না, ডুডুয়া, কুমলাই নদীতে। উত্তরবঙ্গের একাধিক নদীতে লাল সতর্কতা জারি করা হয়েছে। আলিপুরদুয়ারে কালজানি নদীতে সংরক্ষিত এবং অসংরক্ষিত এলাকায় লাল সতর্কতা জারি করা হয়েছে। তোর্সা নদীতে হলুদ সতর্কতা জারি হয়েছে। ভুটানেও চলছে বৃষ্টি। তার জেরে ভুটান পাহাড় থেকে কালজানি এবং তোর্সা নদী দিয়ে প্রবল বেগে নেমে আসছে জলস্রোত। তার জেরেই এই সতর্কতা জারি করা হয়েছে।
আগামী ২৪ ঘণ্টার জন্য আলিপুরদুয়ার এবং কোচবিহারেও লাল সতর্কতা জারি করা হয়েছে। সেখানে অতিভারী বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে বলে জানাচ্ছে আবহাওয়া দফতর। এই পরিস্থিতিতে তিস্তা, জলঢাকার জলস্তর আরও বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। পাশাপাশি, এই সময়ে বাংলাদেশ সীমান্ত লাগোয়া তিস্তার অসংরক্ষিত এলাকার বাসিন্দাদের সরানোর পরিকল্পনা চলছে।

শেয়ার করুন

সম্পর্কিত নিবন্ধ