দেশ 

শিশুর যৌন নির্যাতনের শাস্তি মৃত্যুদন্ড ; পকসো আইনের সংশোধনী পাশ লোকসভায়

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলার জনরব ডেস্ক : পকসো আইনের সংশোধনী লোকসভায় বৃহস্পতিবার পাশ হয়ে গেল । ২০১৯-এর এই সংশোধনীতে শিশুদের গুরুতব যৌন নির্যাতনের ক্ষেত্রে মৃত্যুদণ্ডের সংস্থান রাখা হয়েছে। এদিন বিল পাশের আগে নারী ও শিশু কল্যাণমন্ত্রী স্মৃতি ইরানি বলেন, তাদের লক্ষ্য শিশুদের বিরুদ্ধে অপরাধকে শূন্যে নামিয়ে আনা। বিলটি ইতিমধ্যে রাজ্যসভায় পাশ হয়ে গিয়েছে। যেখানে শিশু পর্ণগ্রাফি তৈরিকে শাস্তিযোগ্য অপরাধ বলে গণ্য করা হয়েছে।

দলমত নির্বিশেষে সাংসদরা পকসো আইনের সংশোধনীতে মত দেন। তবে আইনে মৃত্যুদণ্ডের সংস্থান থাকায় কোনও কোনও সাংসদ বিলটিকে স্ট্যান্ডিং কমিটি কিংবা সিলেক্ট কমিটিতে পাঠানোর দাবি তোলেন।

কেন্দ্রীয় মন্ত্রীর দাবি, এই বিল পাশ হওয়ায় সমাজের ৩৯ শতাংশ জনসংখ্যা অর্থাৎ ৪৩ কোটি শিশু সে বালক হোক কিংবা বালিকা, তারা সুরক্ষা পাবে।

এব্যাপারে একটি পরিসংখ্যানের কথা উল্লেখ করেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী। তিনি বলেন, এক ব্যক্তির নিয়ন্ত্রিত শিশু পর্নোগ্রাফি সাইট দেখেন প্রায় ৫ হাজার মানুষ। যা সমাজের পক্ষে গুরুতর উদ্বেগের বলেও বর্ণনা করেন। ড্রাগ কিংবা হেরোইন দিয়ে শিশুদের কীভাবে যৌনক্ষম করে তোলা হয়, সেই কথাও উল্লেখ করেন মন্ত্রী। বিলে এইসব অভিযুক্তদের প্রতি কড়া শাস্তির সংস্থান রাখা হয়েছে।

আলোচনায় অংশ নিয়ে কংগ্রেস সাংসদ থিরুনাবুক্করাসর বলেন, যেহেতু এই বিলে মৃত্যুদণ্ডের সংস্থান রাখা হয়েছে, তাই তা সংসদীয় কমিটিতে পাঠানো হোক। ডিএমকের কানিমোঝি বিলটিকে সিলেক্ট কমিটি কিংবা স্ট্যান্ডিং কমিটিতে পাঠানোর দাবি তোলেন।

বিলে ট্রায়ালের জন্য স্বল্প সময় থাকায় প্রত্যক্ষদর্শীদের প্রভাবিত করা সুযোগ কমবে বলেই মনে করছে সরকার। এদিনের আলোচনায় অংশ নেন তৃণমূলের শতাব্দী রায় শিবসেনার বিনয়ক রাউতও।

 

 


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment