জেলা 

রামকে নিয়ে রাজনীতি করার জন্যই বিজেপির ভরাডুবি হয়েছে পুরীর শংকরাচার্য

শেয়ার করুন

বাংলার জনরব ডেস্ক : রামকে নিয়ে রাজনীতি করার জন্যই আজ নরেন্দ্র মোদির ভরাডুবি হয়েছে বলে অভিমত ব্যক্ত করলেন পুরীর শংকরাচার্য। তিনি তিন দিনের কর্মসূচিতে পশ্চিমবাংলার বোলপুরে এসেছেন সেখানে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলতে গিয়ে পুরীর ১৪৫ তম শঙ্করাচার্য নিশ্চলানন্দ সরস্বতী বলেন, “প্রধানমন্ত্রীর রামমন্দির উদ্বোধন করা উচিত হয়নি, অয্যোধ্যাবাসী বিজেপিকে সঠিক জবাব দিয়েছেন। বিজেপির ভরাডুবি রামকে নিয়ে রাজনীতির পরিনাম।”

বুধবার থেকে ৭ জুন পর্যন্ত গীতাঞ্জলি প্রেক্ষাগৃহে তাঁর নানান কর্মসূচি ছাড়াও রাষ্ট্রোৎকর্ষ সম্মেলন, শীর্ষক প্রবচন, পূজা অর্চনা,দীক্ষা দেওয়ার অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে। এদিন শ্রোতা, ভক্ত, শিষ্যদের উদ্দেশ্যে প্রবচনের মাঝে তিনি বলেন,”প্রধানমন্ত্রীর রামমন্দির উদ্বোধন করা উচিত হয়নি। অয্যোধ্যাবাসী-সহ দেশের মানুষ বিজেপিকে সঠিক জবাব দিয়েছেন।” তাঁর সংযোজন, “আমার সঙ্গে যারা টক্কর নেওয়ার চেষ্টা করেছে শেষ হয়ে গিয়েছে। মোদিজর উচিত আমার সঙ্গে টক্কর না নেওয়া।” প্রসঙ্গত, উত্তরপ্রদেশের অযোধ্যায় রাম মন্দির উদ্বোধনে যোগ দেননি পুরীর এই শঙ্করাচার্য। বিরোধিতা করে তিনি জানিয়েছিলেন, সঠিক বিধি মেনে রাম মন্দিরের উদ্বোধন হয়নি।

Advertisement

সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে নিশ্চলানন্দ সরস্বতী বলেন, “অযোধ্যায় মানুষ বিজেপির প্রার্থীকে হারিয়ে জবাব দিয়ে দিয়েছেন। রামমন্দির উদ্বোধনে যদি ভালো প্রভাব পড়ত তাহলে বিজেপির অযোধ্যায় জিত নিশ্চিত ছিল। অযোধ্যাবাসী যে সহমত নয়, তা বুঝিয়ে দিল এই ভোটের রায়৷” তাঁর কথায়, “অলৌকিক আচার না মানলে গণতন্ত্র থাকে না। প্রধানমন্ত্রীর রাজনেতা হওয়ার কারণে তাঁর রামমন্দির উদ্বোধন করা ঠিক হয়নি।” পুরীর শঙ্করাচার্যের মতে, প্রধানমন্ত্রী ভেবেছিলেন, যদি দেশে কংগ্রেসের শাসন হয়। রামমন্দির সরিয়ে দেওয়া হতে পারে। এই ভাবনা থেকেই তড়িঘড়ি রামমন্দির উদ্বোধন করে দিয়েছেন। মোদিজি কংগ্রেসকে দুর্বল মনে করতেন বলেই মত তাঁর। কিন্তু নির্বাচনের পরে আর তা মনে করবে না।

এ প্রসঙ্গে বলতে গিয়ে বাংলার প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী জ্যোতি বসুর কথাও উল্লেখ করেন তিনি। নিশ্চলানন্দ সরস্বতীর কথা, “এই পশ্চিমবঙ্গে জ্যোতি বসু আমার সঙ্গে টক্কর নিয়েছিল শেষ হয়ে গিয়েছে। লালুপ্রসাদ যাদব টক্কর নিয়েছিল। মুলায়ম সিং যাদব টক্কর নিয়েছিল শেষ হয়ে গিয়েছে। মোদিজির উচিত আমার সঙ্গে টক্কর না নেওয়া। আকাশকে কি ঘুষি মারা যায়! আমরা সেই জায়গায় বিচরণ করি। যোগী আদিত্যনাথ আমাকে ছোট করার জন্য একটা আতঙ্কবাদীকে শঙ্করাচার্য বানিয়ে ঘোরাচ্ছিল। তবে ‘মুঝ সে জো টকরায়েঙ্গে চুর চুর হো জায়েগেঙ্গে এইরকম কথা আছে এটা মান্যতা দেওয়া উচিত।” তবে এমন প্রবচনের পর গুঞ্জন ছড়িয়েছে রাজনৈতিক অন্দরে।


শেয়ার করুন

সম্পর্কিত নিবন্ধ