পঞ্চায়েত সংবাদ 

একদফাতেই রাজ্যে পঞ্চায়েত নির্বাচন, কমিশন কি পারবে বিরোধী প্রার্থী ও ভোটারদের নিরাপত্তা দিতে?

শেয়ার করুন
  • 6
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ দীর্ঘ টালবাহানার পর রাজ্যের প্রস্তাব মেনেই অবশেষে বৃহস্পতিবার পঞ্চায়েত নির্বাচনের দিনক্ষণ ঘোষণা করল কমিশন। কমিশনের ঘোষিত সূচি অনুযায়ী ১৪ মে একদফাতেই সারা রাজ্যে পঞ্চায়েত নির্বাচন হবে। যদি কোথাও পুনর্নিবাচনের প্রয়োজন হয়, তবে তা নেওয়া হবে ১৬ তারিখে। অন্যদিকে নির্বাচনের ফল ঘোষণা করা হবে ১৭ মে।

আইনি জটিলতা কেটে গেলেও রাজ্য ও নির্বাচন কমিশনের মতানৈক্যের জেরে ভোটের দিন ঘোষণা নিয়ে বেশ কিছু সমস্যা চলছিল। রাজ্য চেয়েছিল রমযান মাস শুরুর আগেই নির্বাচন প্রক্রিয়া শেষ করতে। প্রয়োজনে একদফাতেই নির্বাচন করানোর প্রস্তাব দেওয়া হয়েছিল কমিশনকে। কিন্তু কমিশন চেয়েছিল দুই অথবা তিন দফায় নির্বাচন করাতে। এদিন রাজ্য ১৪ মে একদফাতেই নির্বাচন চেয়ে চিঠি পাঠায় কমিশনার একে সিংয়ের কাছে। বলা হয় নিরাপত্তার পুরো দায়িত্ব রাজ্যের। স্পর্শকাতর সব বুথগুলোতেই থাকবে সশস্ত্র পুলিশবাহিনী। কেন্দ্রীয়বাহিনী না নিয়েও নিরাপত্তা নিশ্চিত করা যাবে বলা হয়। প্রয়োজনে কলকাতা পুলিশ কিংব। ভিন রাজ্য থেকে বাহিনী নিয়ে নির্বাচন করানো হবে। রাজ্যের কাছে নিরাপত্তার বিষয়ে আশ্বাস পাওয়ার পর নবান্নের পাঠানো সূচিতেই শিলমোহর দেয় নির্বাচন কমিশন।

কিন্তু রাজ্যে সবমিলিয়ে মোট পুলিশের সংখ্যা আট চল্লিশ হাজারের মতো। অন্যদিকে বুথের সংখ্যা প্রায় সাড়ে আটান্ন হাজার। এখানেই বিরোধী প্রার্থী কিংবা ভোটারদের নিরাপত্তা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে বিরোধীরা। বিধানসভায় বিরোধী দলনেতা আবদুল মান্নানের বক্তব্য, ভোটের নামে প্রহসন চলছে। কমিশন আগে তিন দফায় নির্বাচনের দিন ঘোষণা করেছিল। এখন আবার এক দফায় রাজ্যে ভোট নেওয়া হবে বলে সিদ্ধান্ত হয়েছে। তাহলে রাজ্য কীভাবে নিরাপত্তা দেবে। বিজেপি নেতা প্রতাপ বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, রাজ্যে যে জঙ্গলরাজ চলছে এরপর তা আর বলার অপেক্ষা রাখেনা। অন্যদিকে সিপিএম নেতা তথা আইনজীবী বিকাশ রঞ্জন ভট্টাচার্য বলেন, আর আদালতে গিয়ে লাভ নেই। গণগন্ত্র রক্ষায় এবার সাধারণ মানুষকেই পথে নামতে হবে।


শেয়ার করুন
  • 6
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment