জেলা 

মুর্শিদাবাদে জীবন দক্ষতা ও কুশলতা নিয়ে দু’দিনব্যাপী কর্মশালা

শেয়ার করুন

মতিয়ার রহমান : পশ্চিমবঙ্গ মাদ্রাসা শিক্ষা পর্ষদ ,ইউনিসেফ এবং বিক্রমশিলা এডুকেশন রিসোর্স সোসাইটির উদ্যোগে ১৮ই মার্চ সোমবার মুর্শিদাবাদ গভ: ইংলিশ মিডিয়াম মডেল মাদ্রাসার মুর্শিদাবাদ জেলার ১০৬ টি মাদ্রাসার শিক্ষক-শিক্ষিকাদের নিয়ে জীবন দক্ষতা ও জীবন কুশলতার সমন্বয়ে গঠিত জীবনশৈলী শিক্ষা বিষয়ে দুইদিনব্যাপী একটি কর্মশালা আয়োজিত হয়। কর্মশালায় উপস্থিত ছিলেন ইউনিসেফের প্রতিনিধি ভ্রাতিকা চৌধুরী, মাদ্রাসা শিক্ষা পর্ষদের সদস্য মোঃ আনসার আলী এবং পর্ষদ কর্মী রাকিব মন্ডল। পশ্চিমবঙ্গ মাদ্রাসা শিক্ষা পর্ষদের সভাপতি ড. আবু তাহের কামরুদ্দীন সভায় সশরীরে উপস্থিত না থেকেও তিনি ডিজিটাললি উপস্থিত হয়ে স্বাগত ভাষণ প্রদান করেন।

তিনি বলেন বয়সন্ধিকালে ছাত্র-ছাত্রীদের মধ্যে যদি জীবন কুশলতা বা জীবন দক্ষতা যথাযথভাবে গড়ে তুলতে না পারা যায় তাহলে তারা কেবল জীবনের সমস্যা মোকাবিলা করতে পারবে না এমন নয় বরং বৃহত্তর জীবন ক্ষেত্রে নিজেকে সঠিক জায়গায় স্থাপন করাও তাদের জন্য একটি বড় চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়াবে ।জীবনশৈলী প্রকৃত অর্থে মূল্যবোধ সম্পৃক্ত মানুষ হয়ে ওঠার পথের সন্ধান দেয়। তিনি আরো বলেন বয়সন্ধির গুরুত্বপূর্ণ বছরগুলিতে ছাত্র-ছাত্রীদের শরীর যেমন বেড়ে ওঠে তেমনি তাদের মনন, চিন্তন, আবেগ ও মূল্যবোধ গড়ে ওঠার এটাই প্রকৃষ্ট সময়।দক্ষতা বিকাশ একটি জীবনব্যাপী প্রক্রিয়া যা একজন শিক্ষার্থীকে বিকশিত ও পরিণত হতে এবং নিজের সিদ্ধান্তে বিশ্বস্ত থাকতে সহায়তা করে। কিছু দক্ষতা স্বাভাবিক ও স্বতঃস্ফূর্তভাবে বিকশিত হয়, কিছু পরিবেশের মাধ্যমে এবং কিছু দক্ষতা শিক্ষণ, অনুশীলন ও অভ্যাস এর মাধ্যমে বিকশিত হয়। ছাত্র-ছাত্রীদের মধ্যে এই দক্ষতা বিকাশের ক্ষেত্রে মাদ্রাসা শিক্ষার একটি বিশেষ ভূমিকা আছে ।জীবনশৈলী শিক্ষার অন্যতম প্রধান লক্ষ্য হচ্ছে সংশ্লিষ্ট বয়সের ছাত্র-ছাত্রীদের চরিত্রে কয়েকটি বিশেষ আচরণগত গুণ সঞ্চারিত করা যার সমন্বয় তাদের পারিবারিক ও সামাজিক জীবনযাপনের জন্য সুস্থ ও পূর্ণ সৃজনশীল ব্যক্তিত্ব বিকশিত হতে পারে ।

Advertisement

এই গুণগুলোকে জীবন দক্ষতা আর জীবন কুশলতা বলা হয়। ছাত্র-ছাত্রীদের মধ্যে আত্ম উপলব্ধি, আত্মমর্যাদাবোধ, আত্মপ্রকাশ, বিশ্লেষণ ধর্মী চিন্তন ,পারস্পরিক সম্পর্ক জনিত দক্ষতা, সিদ্ধান্ত গ্রহণ ও সমস্যার সমাধান, সমস্যার পূর্ণাঙ্গ বিশ্লেষণ, বিকল্প সমাধান সমূহের অনুসন্ধান, সহমর্মিতা ,সহিষ্ণুতা ,সমানুভূতি ইত্যাদি দক্ষতা বা যোগ্যতা বিকাশ ঘটাতে হবে।এই বৃহৎ কর্মকাণ্ডটি ফলপ্রসূ করতে প্রথমে দায়িত্বপ্রাপ্ত শিক্ষক শিক্ষিকাকে জীবনশৈলী শিক্ষা বিষয়ে প্রশিক্ষণ দেয়া হচ্ছে। প্রশিক্ষণ প্রাপ্ত হওয়ার পর ওই শিক্ষক শিক্ষিকা ছাত্র-ছাত্রীদের কাছে গোটা বিষয়টা পৌঁছাবে ।

এর ফলে মুর্শিদাবাদ জেলার প্রায় দেড় লক্ষ ছাত্রছাত্রী উপকৃত হবে বলে তিনি আশা রাখেন। তিনি সকল শিক্ষক-শিক্ষিকাদের এই কর্মশালায় অংশগ্রহণ করার জন্য পশ্চিমবঙ্গ মাদ্রাসা শিক্ষা পর্ষদের পক্ষ থেকে ধন্যবাদ জানান এবং সকলকে শুভেচ্ছা জানিয়ে কর্মশালার সাফল্য কামনা করেন।


শেয়ার করুন

সম্পর্কিত নিবন্ধ