কলকাতা 

মঙ্গলবার সাতসকাল রাজ্যের তিন জায়গায় ইডি হানা

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলার জনরব ডেস্ক : মঙ্গলবার সাত সকালে তিন জায়গায় হানা দিল ইডি। জুটমিলে ভুয়ো ডিরেক্টর নিয়োগ মামলায় এদিন সকাল থেকে একাধিক জায়গায় পৌঁছে গিয়েছে এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট। কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়ের নির্দেশ মাফিক তদন্তের সূত্রেই চলছে তল্লাশি অভিযান।

এদিন সকাল ৭ টা থেকে হাওড়ার সাঁকরাইলের ডেল্টা জুটমিল এবং বালিগঞ্জে জুটমিলের মালিকের বাড়িতে তল্লাশি শুরু করেছে ইডি। কলকাতার কাউন্সিল হাউস স্ট্রিটে জুটমিলের অফিসেও তল্লাশি করছেন ইডি আধিকারিকরা। পিএফের টাকা না পাওয়ার অভিযোগ করেছিলেন জুটমিলের অবসরপ্রাপ্ত শ্রমিকরা। ২১ কোটি টাকা বকেয়া থাকার অভিযোগের ভিত্তিতেই তদন্তে নেমেছে ইডি।

Advertisement

প্রভিডেন্ট ফান্ডের টাকা কাটা হলেও সেই টাকা পিএফ তহবিলে জমা পড়েনি। জুটমিলের ডিরেক্টরও ভুয়ো বলে অভিযোগ উঠেছে। জানা গিয়েছে, শ্রমিকরা যাকে ডিরেক্টর বলে চিহ্নিত করছেন, সেই মিলন দুয়ারী নিজেকে ডিরেক্টর বলে স্বীকার করতে চাইছেন না। গোটা ঘটনাটির তদন্তে নেমেছে ইডি। এই মিলের মালিক সুনীল ঝুনঝুনওয়ালার বালিগঞ্জের বাড়ি এবং অফিসেও একযোগে চলছে তল্লাশি।

এর আগে সিরিয়াস ফ্রড ইনভেস্টিগেশন অফিস (এসএফআইও) প্রাথমিক তদন্ত করেছিল। এই সংক্রান্ত মামলা দায়ের হয় কলকাতা হাইকোর্ট। বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়ের এজলাসে রাত ১০ টা পর্যন্ত চলে শুনানি। ‘ডেল্টা লিমিটেড’ এবং ‘ওলিসা রিয়্যালিটি প্রাইভেট লিমিটেড’ নামক দুই সংস্থার পাঁচ জন ডিরেক্টরকে তলব করেছিলেন বিচারপতি গঙ্গোপাধ্যায়। এসএফআইও-কে অভিযুক্ত পাঁচজনকে জিজ্ঞাসাবাদ করার নির্দেশ দিয়েছিলেন।

 


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ