জেলা 

‘‘গেরুয়া তাঁরাই হয়, যাঁদের মধ্যে পবিত্রতা থাকবে। এঁরা তো সব সৃষ্টিছাড়া বাঁধনহারা ধান্দাবাজ। ভিতরে কালো, আর সামনে গেরুয়া’’ : মমতা

শেয়ার করুন
  • 9
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলার জনরব ডেস্ক : লোকসভা ভোটকে সামনে রেখে ফের রামনবমীকে কেন্দ্র করে বিজেপি ও শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেস সম্মুখ সমরে । সেই সঙ্গে প্রতিযোগিতা চলছে দুই দলের মধ্যে দক্ষিণ কলকাতায় বিজেপি রামনবমীকে কেন্দ্র করে অস্ত্র মিছিলের ডাক দিয়েছে , অন্যদিকে উত্তর কলকাতায় বিধায়ক স্মিতা বকসীর নেতৃত্বে তৃণমূল কংগ্রেসও রাম নবমীর মিছিল করতে চলেছে । রামনবমীকে কেন্দ্র করে রাজ্য জুড়ে এখন তরজা অব্যাহত । এ নিয়ে শনিবার নাম না করে বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষকে তীব্র ভাষায় আক্রমণ করেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এদিন তৃণমূল সুপ্রিমো বলেন, ‘‘শুনলাম কেউ কেউ গদা হাতে রাস্তায় বেরিয়েছে ভোট চাইতে। গদা নিয়ে কার মাথা ফাটাবেন?’’ প্রসঙ্গত, শনিবার রামনবমী উপলক্ষে খড়গপুরে তরোয়াল ও গদা হাতে মিছিল করতে দেখা গিয়েছে বিজেপির রাজ্য সভাপতি তথা ওই কেন্দ্রে লোকসভার প্রার্থী দিলীপ ঘোষকে।

এদিন দিলীপের বিরুদ্ধে আক্রমণ শানিয়ে মমতা বলেন, ‘‘রাজনৈতিক ভাবে ভোট চান না, কে বারণ করেছে! ধর্মের পতাকা লাগলে হবে না, ধর্ম বেচে খাবেন না, ধর্মকে আমরা সম্মান করি। ধর্ম নিয়ে রাজনীতি করার প্রয়োজন পড়ে না আমাদের। নির্বাচনী বিধি লাগু রয়েছে, এর মধ্যে রামনবমীর মিছিল করছে। শুনলাম, তোমরা আজ কেউ গদা নিয়ে, কেউ তরোয়াল নিয়ে রাস্তায় বেরিয়ে পড়েছো ভোট চাইতে। রাজনীতির সঙ্গে কী সম্পর্ক! গদা নিয়ে কার মাথা ফাটাবেন? কার গলা কাটবেন, তরোয়াল দিয়ে? বাংলায় এসব করে ভোট হয় না’’।

রামনবমী উপলক্ষে এদিন অস্ত্রহাতে মিছিলের প্রয়োজনীয়তা সম্পর্কে বলতে গিয়ে দিলীপ ঘোষ বলেন, ‘‘দুষ্কৃতীদের হাত থেকে রক্ষার জন্য অস্ত্র তুলে নিয়েছি’’। শুধু খড়গপুরেই নয়, রাজ্যের অন্যান্য প্রান্তেও শনিবার রামনবমীর মিছিল করেছে বিজেপি।

অন্যদিকে, মোদীকে কটাক্ষ করে মমতা এদিন বলেন, ‘‘কে কী খাবেন, সেটা মোদী ঠিক করে দিচ্ছেন কেন? এয়ার ইন্ডিয়ার বিমানে যান, সব ননভেজ বন্ধ। বলছে দুর্গাপুজো না কি হয় না, বলছে লক্ষ্মী পুজো না কি হয় না। লক্ষ্মী পুজোর মন্ত্র জানেন? সরস্বতীর মন্ত্র বলতে পারবেন না, খ্রিস্টানদের মন্ত্র পারবেন না’’।

গেরুয়াবাহিনীকে কটাক্ষের সুরে মমতা বলেন, ‘‘গেরুয়া তাঁরাই হয়, যাঁদের মধ্যে পবিত্রতা থাকবে। এঁরা তো সব সৃষ্টিছাড়া বাঁধনহারা ধান্দাবাজ। ভিতরে কালো, আর সামনে গেরুয়া’’। একইসঙ্গে আরএসএসকে নিশানা করে মমতা বলেছেন, ‘‘কয়েকটা আরএসএসের পাণ্ডা, হাতে নিয়েছে বড় বড় ডান্ডা আর সঙ্গে জুটিয়েছে কয়েকটা গুন্ডা, আর সে নিয়ে দেশকে করছে ঠান্ডা। এরা কিন্তু বিপজ্জনক। এদের চোখে চোখে রাখবেন, রামকৃষ্ণ মিশনকেও সম্মান করেন না এঁরা।’’

শিলিগুড়ির  নির্বাচনী সভায়  বক্তব্য রাখতে গিয়ে মমতা বলেন, ‘‘ধর্ম মানে হিংসা নয়, যুদ্ধ নয়। ধর্ম মানে দানবিকতা নয়, ধর্ম মানে মানবিকতা। ইদানিং লক্ষ করিছি সৃষ্টিছাড়া বাঁধনহারারা অত্যাচারী সমাজকে কলঙ্কিত করার জন্য নতুন ধর্মের আমদানি করেছে। যে ধর্মের সঙ্গে হিন্দু, মুসলমান, খ্রিস্টান, শিখদের কোনও সম্পর্ক নেই। কিছু রাজনৈতিক দল মিথ্যে ধর্মের আমদানি করেছে। যার সঙ্গে বাংলার সংস্কৃতির মিল খায় না, ভারতের সংস্কৃতির মিল খায় না। একে অপরের বিরুদ্ধে হিংসা ছড়াচ্ছে, সন্ত্রাস করছে। এদের ফ্যাসিবাদী শক্তি বলি। রাষ্ট্রীয় শক্তি বলি না।’’


শেয়ার করুন
  • 9
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment