কলকাতা 

রাজ্য সরকারের ছুটির তালিকায় আরেকটি সংযোজন রাম নবমীতে ছুটি ঘোষণা মমতা সরকারের

শেয়ার করুন

বাংলার জনরব ডেস্ক : রামনবমীতে ছুটি ঘোষণা করল রাজ্য সরকার অর্থাৎ রাজ্য সরকারের ছুটির তালিকায় আরেকটা দিন বাড়লো। যদিও বাংলা সংস্কৃতির সঙ্গে রাম নবমীর সম্পর্ক এর আগে পর্যন্ত ছিল না। দেশ স্বাধীন হওয়ার পর থেকে বাংলাতে অন্তত রাম নবমীকে কেন্দ্র করে বড় উৎসব দেখা যায়নি, সেই কারণেই ছুটি ঘোষণা করার দায় এবং দায়িত্ব কোনটাই সরকারের ছিল না।

কিন্তু লোকসভা নির্বাচনের সামনে আগামী ১৭ ই এপ্রিল যে রামনবমী অনুষ্ঠিত হবে তাতে সমগ্র রাজ্যের সমস্ত সরকারি প্রতিষ্ঠান ও পোষিত প্রতিষ্ঠানগুলি বন্ধ থাকার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। শনিবার ব্যতিক্রমী ভাবে ছুটির দিনে এই নির্দেশিকা জারি করেছে রাজ্যের মমতা সরকার। এরাজ্যের সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের বিশেষ করে মুসলমান সম্প্রদায়ের দীর্ঘদিনের দাবি ছিল ঈদুল ফিতরে তিন দিন ছুটি দেওয়ার জন্য। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের অত্যন্ত কাছের মানুষ বলে পরিচিত পীরজাদা তোহা সিদ্দিকী দীর্ঘদিন ধরে এই দাবি জানিয়ে আসছিলেন সেই দাবির এখনো পূরণ না হলেও রামনবমীতে  ছুটি দিয়ে রাজ্য সরকার দৃষ্টান্ত স্থাপন করল।

Advertisement

বস্তুত, গত কয়েক বছর ধরেই রামনবমীকে কেন্দ্রে করে রাজ্যের বিভিন্ন এলাকায় উত্তজনাকর পরিস্থিতি তৈরি হচ্ছে। গত বছরও রিষড়া এবং হাওড়ায় হিংসার ঘটনা ঘটেছিল। তার জেরে আদালতের নির্দেশে হনুমান জয়ন্তীতে বেশ কিছু স্পর্শকাতর এলাকায় কেন্দ্রীয় বাহিনী মোতায়েন করা হয়েছিল।

লোকসভা ভোটের আগে রাজ্য সরকারের এই ঘোষণা ‘তাৎপর্যপূর্ণ’ বলেই মনে করছেন অনেকে। এই ঘোষণাকে কটাক্ষ করে বিজেপির রাজ্যসভার সাংসদ শমীক ভট্টাচার্য বলেন, ‘‘ভোটের আগে কেন এই ঘোষণা নবান্ন করল, তা সবাই বুঝতে পারছে। মানুষ অত বোকা নয়।’’ যদিও তৃণমূলের বক্তব্য, বিজেপি বিভেদকামী বলেই এ সব মন্তব্য করছে। বাংলায় মতুয়া মহাসঙ্ঘের হরিচাঁদ-গুরুচাঁদ ঠাকুরের জন্মদিন-সহ বিভিন্ন অনুষ্ঠানে রাজ্য সরকার ছুটি দেয়। আদিবাসীদের করাম পুজোতেও এখন ছুটি থাকে। এ বার তাতে যোগ হল রামনবমী। এর সঙ্গে ভোটের কোনও সম্পর্ক নেই।


শেয়ার করুন

সম্পর্কিত নিবন্ধ