কলকাতা 

অর্থের অভাবে কোন মেধাবী সন্তানের পড়াশোনা বন্ধ হবে না বার্তা মুখ্যমন্ত্রীর, অভিনব পন্থা অবলম্বনের নির্দেশ মমতার? কি সেই পন্থা? জানতে হলে ক্লিক করুন

শেয়ার করুন

বাংলার জনরব ডেস্ক : টাকার অভাবে কোন মেধাবীর পড়াশোনা যাতে বন্ধ না হয় তার জন্য শিক্ষা দফতরে একটি চিঠির বাক্স রাখার জন্য শিক্ষামন্ত্রী ব্রাত্য বসুকে নির্দেশ দিলেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ওই বাক্সে রাজ্যের ছাত্র-ছাত্রীরা তাদের পড়াশুনা সংক্রান্ত বিভিন্ন সমস্যা এবং আর্থিক সংক্রান্ত সমস্যার কথাও সরকারকে জানাতে পারবেন বলে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী আজ বৃহস্পতিবার এ কথা জানিয়েছেন।শিক্ষামন্ত্রী ব্রাত্য বসুকে মুখ্যমন্ত্রীর বার্তা, ‘‘পয়সার অভাবে কারও পড়াশোনা যেন না আটকায়। যে সমস্ত চিঠি এখানে জমা পড়বে, তার প্রত্যেকটি দেখে সিদ্ধান্ত নিতে হবে। দেরি যেন না হয়।’’

এদিন কলকাতার বিশ্ব বাংলা মেলাপ্রাঙ্গণে আয়োজন করা হয়েছিল রাজ্যের ২০২৩ সালের বড় পরীক্ষায় কৃতী ছাত্রছাত্রীদের সংবর্ধনা জানানোর অনুষ্ঠান। মাধ্যমিক, উচ্চ মাধ্যমিক ছাড়াও আইএসই, আইসিএসইর মতো পরীক্ষার কৃতী পড়ুয়া এবং তাঁদের অভিভাবকেরা এসেছিলেন সেখানে। সরকারের তরফে কৃতীদের একটি করে ব্যাগ উপহার দেওয়া হয়। সেই ব্যাগে ছিল বই, ল্যাপটপ, হাতঘড়ি, শংসাপত্র, পদক, আরও নানা রকম উপহার। ওই অনুষ্ঠানে স্টুডেন্টস ক্রেডিট কার্ড মোবাইল অ্যাপেরও উদ্বোধন করেন মমতা। যে অ্যাপের মাধ্যমে ছাত্রছাত্রীরা সরকারি শিক্ষাঋণ নিয়ে উচ্চশিক্ষার সুযোগ-সুবিধা নিতে পারবেন। তবে এর পরেই মমতা জানান, তাঁর কাছে এখনও অর্থাভাবে পড়াশোনা করতে না পারার কথা জানিয়ে চিঠি আসছে। মঞ্চে মমতা বলেন, ‘‘অনেক চিঠি পেয়েছি। সব পড়েওছি। আমি কাজ ফেলে রাখি না। ‘অর্থের অভাবে পড়াশোনা করতে পারছি না’ বলে চিঠি এসেছিল। সেই চিঠি মুখ্যসচিবের কাছে পৌঁছে দিয়েছি। টাকাপয়সার অভাবে এখানে কারও পড়াশোনার অসুবিধা হবে না।’’

Advertisement

এর পরেই মঞ্চে পাশে বসা শিক্ষামন্ত্রী ব্রাত্যকে শিক্ষা দফতরে চিঠির বাক্স লাগানোর নির্দেশ দেন মুখ্যমন্ত্রী। মমতা বলেন, ‘‘৫০ হাজার ছাত্রছাত্রীকে ১০ লক্ষ টাকা পর্যন্ত কার্ড করে দেওয়া হয়েছে। এ ছাড়াও ‘কন্যাশ্রী’, ‘ঐক্যশ্রী’, ‘শিক্ষাশ্রী’, ‘মেধাশ্রী’, ‘স্বামী বিবেকানন্দ স্কলারশিপ’-এর মতো বৃত্তির ব্যবস্থা করে মেধাবী ছাত্রছাত্রীদের অর্থিক সুবিধা করে দিয়েছি। তার পরও যদি কারও সমস্যা হয়, তাঁদের জন্য শিক্ষা দফতর লেটার বক্স হোক। যাঁদের পড়াশোনায় টাকার অসুবিধা হচ্ছে, তাঁরা ওই বক্সে আবেদনপত্র পৌঁছে দেবেন।’’ এর পরেই শিক্ষামন্ত্রী ব্রাত্যকে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বলেন, ‘‘প্রত্যেকটা চিঠি দেখে দেখে ব্যবস্থা নেবে। কার কী ব্যবস্থা নিলে যথাসময়ে আমাকে জানাবে। দেরি করবে না।’’


শেয়ার করুন

সম্পর্কিত নিবন্ধ