জেলা 

ময়নায় বিজেপি কর্মীর মৃত্যুকে কেন্দ্র করে বন্ধ পালিত হচ্ছে, জেলা জুড়ে বিজেপি কর্মী সমর্থকদের অবরোধ!

শেয়ার করুন

বাংলার জনরব ডেস্ক : পূর্ব মেদিনীপুরের ময়না থানার এক বিজেপির বুথ কর্মী বিজয়কৃষ্ণ ভূঁইয়ার খুনের ঘটনাকে কেন্দ্র করে আজ ওই এলাকায় ১২ ঘন্টার বন্ধ পালিত হচ্ছে। বুধবার সকাল থেকে এই বন্ধ চলছে। আর এই বন্ধ ঘিরে এলাকা উত্তাল হয়ে উঠেছে।

বন্‌ধ সফল করতে ময়না বিধানসভার বিভিন্ন জায়গায় পথ অবরোধে নেমেছেন বিজেপির নেতা-কর্মীরা। পুলিশের গাড়িকেও ঢুকতে বাধা দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে বিজেপির কর্মী-সমর্থকদের বিরুদ্ধে। বেলা বাড়তে শুরু হয়ে গিয়েছে পুলিশি তৎপরতাও। ময়না থানার পাশাপাশি, জেলা সদর থেকে আসা বিশাল পুলিশ বাহিনী পথে নেমে ব্যারিকেড হটিয়ে অনেকগুলি রাস্তা খুলে দেয়। এই নিয়ে অবরোধকারীদের সঙ্গে বচসা বাধে পুলিশের। পরিস্থিতি সামাল দিতে ঘটনাস্থলে উপস্থিত রয়েছে তমলুকের এসডিপিও-র নেতৃত্বে বিশাল পুলিশবাহিনী।

Advertisement

বিজেপি কর্মীদের দাবী, বুধবারের ডাকা বন্‌ধ স্বতঃস্ফূর্ত। সাধারণ মানুষ বন্‌ধের সমর্থনে রয়েছেন।  বিজেপি নেতা গৌতম ঘোড়াই বলেন, “বুধবার সকাল ৬টা থেকে আমরা বন্‌ধ পালন করছি। এখানে যে ভাবে এক জন বিজেপি নেতাকে প্রকাশ্যে পিটিয়ে খুন করে দেহ লোপাট করে দেওয়া হয়েছে, তা অত্যন্ত দুর্ভাগ্যজনক। এর বিরুদ্ধে সর্বস্তরে প্রতিবাদ শুরু হয়েছে।’’

অন্য দিকে ময়নার বিজেপি বিধায়ক অশোক দিন্দার দাবি, “আমরা গণতান্ত্রিক পথে আন্দোলন করছি। ময়না জুড়ে যেভাবে সন্ত্রাস কায়েম করার চেষ্টা চলছে এলাকার মানুষই তা রুখে দেবেন। পুলিশের সামনে লাগাতার বোমাবাজি চলছে। বিজেপি নেতাদের প্রকাশ্যে খুন করা হচ্ছে। এর বিরুদ্ধে আমরা আন্দোলন চালিয়ে যাব।’’

বিজেপির নেতাদের অভিযোগ, খুনের ঘটনার পর দু’দিন কেটে গেলেও এখনও অধরা অভিযুক্তেরা। কেন তাঁদের গ্রেফতার করা হচ্ছে না, প্রশ্ন তুলেছেন তাঁরা। পাশাপাশি হুঁশিয়ারি দিয়েছেন, অভিযুক্তদের অবিলম্বে গ্রেফতার না করা হলে তাঁরা বিক্ষোভ কর্মসূচি চালিয়ে যাবেন। ইতিমধ্যেই এক বিজেপি কর্মীকে আটক করেছে পুলিশ। বিজেপি কর্মীদের দাবি, তাঁরা শান্তিপূর্ণ ভাবে অবরোধ করছিলেন। কিন্তু পুলিশ এসে তুলে দেওয়ার চেষ্টা করে।

তবে তৃণমূলের তমলুক সাংগঠনিক জেলার সভাপতি সৌমেন মহাপাত্র সংবাদ মাধ্যমে বলেন, “তৃণমূল কখনও খুনোখুনির রাজনীতি করে না। ময়নায় যে ঘটনা ঘটেছে তার সঙ্গে তৃণমূলের কোনও যোগ নেই। শুধুমাত্র নিজেদের রাজনৈতিক স্বার্থ চরিতার্থ করতেই ঘটনাটি নিয়ে রাজনীতি শুরু করেছে বিজেপি।’’


শেয়ার করুন

সম্পর্কিত নিবন্ধ