প্রচ্ছদ 

ভাঙড়ের দায়িত্বে শওকত মোল্লা ! খবর শুনে মমতা-অভিষেককে কঠিন চ্যালেঞ্জ জানালেন নওশাদ, কী সেই চ্যালেঞ্জ? জানতে হলে ক্লিক করুন

শেয়ার করুন

বুলবুল চৌধুরি : দক্ষিণ ২৪ পরগণার ভাঙড় এখন তৃণমূলের কাছে মাথা ব্যাথার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে । আইএসএফের একমাত্র বিধায়ক নওশাদ সিদ্দিকীর জনপ্রিয়তার কাছে হার মেনেছে তৃণমূল কংগ্রেস । একজন বিধায়ক কেমন হতে পারেন ? কেমন হলে সাধারণ মানুষের মধ্যে জনপ্রিয়তা অর্জন করা যায়, মানুষে হৃদয়ে ঠাঁই নেওয়া যায় তা প্রমাণ করেছেন বিধায়ক নওশাদ সিদ্দিকী । বিরোধী দলের একজন সাধারণ বিধায়ক কীভাবে জননেতা হয়ে উঠলেন তা নওশাদকে দেখে তৃণমূল নেতাদের শিক্ষা নেওয়া উচিত । নওশাদের জনপ্রিয়তার কাছে হার মেনে এবার ভাঙড়ের দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি দেওয়া হলো আরাবুল ইসলামকে । ভাঙড়ের দায়িত্ব পেয়েছেন ক্যানিং পূর্বের বিধায়ক শওকত মোল্লা । এর ফলে ভাঙড়ে যে আর বেশি করে জনবিচ্ছিন্ন হয়ে পড়বে তৃণমূল তা নিয়ে কোনো সন্দেহ নেই ।

এদিকে, ভাঙড়ের দায়িত্ব শওকত মোল্লা দেওয়া নিয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে নওশাদ বলেন, ‘‘ভাঙড়ে কে দায়িত্ব পাচ্ছেন, কে অব্যাহতি নিচ্ছেন না, তা নিয়ে ভাবিত নই। আমরা মানুষের কাছে পৌঁছে গিয়েছি। ভাঙড়ের মানুষকে পরাধীনতার শৃঙ্খলে আবদ্ধ করে রেখেছিল দীর্ঘ দিন। সেই শৃঙ্খল মুক্ত করেছি। মানুষ তাঁর গন্তব্য খুঁজে নেবে।’’ আসন্ন পঞ্চায়েত নির্বাচনে উন্নয়নের লক্ষ্যেই ভাঙড়ের দায়িত্ব অভিষেক নিন। সঙ্গে মমতাও থাকুন বলে মন্তব্য নওশাদের। তাঁর কথায়, ‘‘ভবিষ্যতে দুর্নীতিমুক্ত স্বচ্ছ পঞ্চায়েত চায় ভাঙড়। যাতে পঞ্চায়েতের টাকা উন্নয়নের কাজে ব্যবহার করা যায়। যদিও দায়িত্ব নেওয়ার হয়, তবে মমতা ব্যানার্জি রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী, দলের সুপ্রিমো, তিনি দায়িত্ব নিন। না হলে দলের সেকেন্ড-ইন-কম্যান্ড অভিষেক ব্যানার্জি ভাঙড়ের দায়িত্ব নিন।’’

Advertisement

তিনি আরও বলেন, ‘‘আমি সৌজন্যের রাজনীতি পছন্দ করি। যদি কেউ ভাঙড়ের নাম খারাপ করতে চান, তবে ভাঙড়বাসীকে নিয়ে গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় প্রতিরোধ করব।’’ নওশাদ সিদ্দিকীকে ৪২ দিন ধরে অকারণে জেলে পুরে রাখার ফলে শুধু ভাঙড় নয়, সমগ্র দক্ষিণবঙ্গ জুড়ে তৃণমূলের কমিটেড ভোটে ভাঙন ধরেছে এ নিয়ে কোনো সন্দেহ নেই । আর শওকত মোল্লাকে ভাঙড়ের দায়িত্ব দেওয়ার ফলে এই এলাকায় তৃণমূল কংগ্রেস আর বেশি করে মানুষের আস্থা হারাবে বলে রাজনৈতিক মহল মনে করছে । এই অবস্থায় নওশাদ সিদ্দিকী একজন পাকা রাজনীতিবিদের মতো মমতা কিংবা অভিষেককে ভাঙড়ের দায়িত্ব নিতে বলে কার্যত চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দিলেন । চ্যালেঞ্জ গ্রহণ করতে পারবেন কী মমতা ? সেটাই এখন লাখ টাকার প্রশ্ন ।


শেয়ার করুন

সম্পর্কিত নিবন্ধ