কলকাতা 

বিজেপিকে আটকাতে তৃণমূলের সঙ্গে জোটের প্রস্তাব রাজ্যের মিম নেতার

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলার জনরব ডেস্ক : বিহার বিধানসভায় ৫ টি আসন জেতার পর এবার বাংলায় প্রার্থী দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে মিম । এনিয়ে হায়দ্রবাদে এক প্রস্থ বৈঠকও হতে চলেছে বলে খবর পাওয়া গেছে ।  আসাদউদ্দিন ওয়াইসির সবুজ সংকেত পাওয়ার পরেই দল কাজ শুরু করে দেবে বলে রাজ্যস্তরের নেতা তাঁদের বক্তব্য, “২০২১ বিধানসভা নির্বাচনে তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাছে একসঙ্গে লড়াইয়ের আবেদন জানাতে চাই। পৃথক ভাবে ভোটে লড়াই করলে ক্ষতি হবে তৃণমূল কংগ্রেসের।”

বাংলার এআইএমআইএম নেতা সৈয়দ জামিরুল হাসান সংবাদ মাধ্যমকে বলেছেন, “বিহারে আমাদের সঙ্গে জোট করলে আরজেডি সরকার গড়ত। আমরা এখন ছোট দল নই, সর্বভারতীয় দল। বিহারে আমাদের জন্য ১৯টা সিট হেরেছে আরজেডি। ওই আসনে জয় পেলে আমরা তেজস্বী সরকারকে সমর্থন করতাম। বাংলায় দিদি সম্মানজনক জোট করতে চাইলে করব। তৃণমূল আমাদের হাত না ধরলে বিরোধী হয়েই লড়ব। রাজ্যে যতগুলি আসনে পারব আমরা প্রার্থী দেব। যেখানে প্রার্থী দেব সেখানেই তৃণমূলের ক্ষতি হবে। আমরা একটা আসনে যদি ২০ হাজার ভোট পাই। তাহলেই ওদের মুশকিল হবে।”

তবে কী শুধু ভোট কাটার জন্য প্রার্থী দিচ্ছেন, যেমন কংগ্রেস অভিযোগ করছে? জামিরুল বলেন, “আমাদের অযথা ভোট কাটার দল বলে কটাক্ষ করা হচ্ছে। আমরা বিহারে যে আসনে হেরেছি সেখানেও ৩০-৪০হাজার ভোট পেয়েছি। বিহারে কয়েকটা আসনে বিপুল ভোটে জয় পেয়েছি। আমরা বিহারে বিজেপিকে ফাইট দিয়েছি। এ রাজ্যে ৪০ শতাংশ মুসলিম ভোট রয়েছে। তাছাড়া ১৫৫ আসনে ৩০-৭০ শতাংশ মুসলিম ভোটার রয়েছে। দিদি(মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়) আমাদের সঙ্গে বন্ধুত্ব না করলে কেউ মানবে না।” তিনি বলেন, “জোটের জন্য তৃণমূলকে বার্তা দিয়েছি। এরপর আমাদের বলবে বিজেপির বি টিম।”

জামিরুল হাসান বলেন, “আমরা প্রস্তুত। আমরা বসে নেই। নীরবে আমাদের কাজ চলছে। কোনও দিন কাজ বন্ধ হয়নি। প্রকাশ্যে সভা করিনি ঠিকই, আমরা তো যাত্রা পার্টি নই। মহামারীর সময় বাইরের রাজ্যে থাকা বংলার মানুষকে সাহায্য করেছি। আমরা প্রায় সাড়ে তিন লক্ষ মানুষকে ত্রাণ পাঠিয়েছি।”


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment