দেশ প্রচ্ছদ 

মোদী সরকারের চার বছরঃজনগনের সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতা করেছে অভিযোগ কংগ্রেসের,উন্নয়নের জোয়ার এসেছে দাবি অমিতের

শেয়ার করুন
  • 2
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ আজ ২৬মে । চার বছর আগে ভারতের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্বভার নিয়েছিলেন নরেন্দ্র দামোদর মোদী। সময়ের বিচারের চার বছরের মেয়াদ শেষ করল বিজেপি সরকার। স্বাধীনতার পর নরেন্দ্র মোদীর নেতৃত্বেই বিজেপি একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে ক্ষমতাসীন হয়েছিল। তাই তিনি যা প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন তা বাস্তবায়ন করা তাঁর কাছে কঠিন কিছু ছিল না। কিন্ত চার বছর পর সাধারণ মানুষ হিসাব মেলাতে পারছে না। বেকারত্ব থেকে শুরু করে দেশের  আর্থিক উন্নয়ন প্রতিটি ক্ষেত্রে পিছিয়ে রয়েছে। জিনিসপত্রের দাম অস্বাভাবিকহারে বৃদ্ধি পাচ্ছে। জ্বালানী তেল থেকে শুরু করে রান্নার গ্যাস প্রতিটি জিনিসের আকাশ ছোঁয়া মূল্যবৃদ্ধি হয়েছে। দিন দিন ব্যাঙ্ক ও পিএফে সুদের  হার সরকার কমাচ্ছে। টাকার দাম ডলারের তুলানায় ১০ টাকা কমেছে। তাই এই সরকারের আমলে কৃষিজীবী,শ্রমিক,মজদুর,কৃষক,নিম্নবিত্ত,মধ্যবিত্ত সমাজের মানুষ সুখে নেই। ব্যাঙ্ক দেউলিয়া হয়ে যাবার পথে। অনাদায়ী ঋণের পরিমান সব রের্কডকে ছাপিয়ে গেছে।

আজ মোদী সরকারের চার বছর উপলক্ষে বিরোধী দল কংগ্রেস সরাসরি মোদীকে বিশ্বাসঘাতক বলে অভিযোগ করেছেন। কংগ্রেসের অভিযোগ মোদী চার বছর আগে যে স্বপ্ন দেশবাসীকে দেখিয়েছিল তা পূরণ করতে পারেননি। বরং তিনি দেশবাসীর ওপর নানা বোঝা চাপিয়ে দিয়ে বিশেষ করে বেকারীও নোটবন্দী করে মানষের ওপর আরও আর্থিক সংকট চাপিয়ে দেওয়া হয়েছে। আজ কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী ট্যুইট করে মোদী সরকারের রির্পোট কার্ড প্রকাশ করেছে। এই রির্পোটে দেশ চালানোর ক্ষেত্রে মোদী ডাহা ফেল করেছে বলে রাহুলের অভিযোগ। তবে নতুন শ্লোগান ও নিজের প্রচারে মোদীকে সবচেয়ে বেশি নম্বর দিয়েছেন রাহুল। অন্যদিকে উত্তরপ্রদেশের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী দলিত নেত্রী মায়াবতী বলেছেন,মোদীজি একটা প্রতিশ্রুতিও বাস্তবায়ন করতে পারেননি।

অবশ্য বিরোধীদের অভিযোগের সরাসরি উত্তর দিয়েছেন বিজেপি সভাপতি অমিত শাহ। তিনি বলেছেন,চার বছরে দেশ অনেক উন্নতি করেছে। আমরা উন্নয়নের রাজনীতি করি। কোন তুষ্টি বা পরিবারকে গুরুত্ব দিই না। বিজেপি চার বছরে  পরিবারতন্ত্রের শাসন মুক্ত ভারত দেশবাসীকে উপহার দিতে পেরেছে। তিনি পেট্রোপণ্যের মূল্যবৃদ্ধি নিয়ে বলেন,তিনদিন মাত্র দাম বেড়েছে। এতে হইহই করার কিছু নেই। কংগ্রেসের আমলে মাসের পর মাস এরকম দাম থাকত। কয়েকদিন যেতে দিন দেখুন কী হয়। সরকার বিষয়টি নিয়ে গভীরভাবে চিন্তা করছে বলে অমিত শাহ সাংবাদিকদের বলেন।


শেয়ার করুন
  • 2
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment