দেশ 

রাহুলের মন রাখতে পদত্যাগ দলের নবীন নেতাদের ; তিন দিনের মধ্যে প্রবীণ নেতারা পদত্যাগ না করলে বাড়ি গিয়ে পদত্যাগ করাবেন হুঁশিয়ারি নবীন নেতাদের

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলার জনরব ডেস্ক : কংগ্রেসে ফিরে এসেছে কামরাজ প্লান । রাহুল গান্ধীকে কংগ্রেস সভাপতি পদে থাকতে হবে এই দাবি নিয়ে এবার আসরে কংগ্রেসের নবীন নেতারা । তবে এবার আনুরোধ নয় , পদত্যাগের পাল্টা পদত্যাগ । শুক্রবার এআইসিসি অফিসে চলে গণ পদত্যাগ । আসলে রাহুল গান্ধী এটাই চাইছেন । তিনি চাইছেন সব পদাধিকারীরা পদত্যাগ করুক । তারপর সভাপতি পদ নিয়ে আলোচনা হবে । আর রাহুলের মন বুঝেই নবীন নেতারা পদত্যাগ করেছেন । এখনও পর্যন্ত ১৫০ জন পদত্যাগ করেছেন বলে জানা গেছে ।

১৯৬৩ সালে কুমারস্বামী কামরাজ তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী জওহরলাল নেহরুকে প্রস্তাব দেন, মন্ত্রিত্ব ছেড়ে কংগ্রেসের সব প্রবীণ নেতার দলের কাজ করা উচিত। কারণ কংগ্রেস জিতলেও মানুষের সঙ্গে যোগ হারিয়ে ফেলছেন নেতারা। নেহরু নিজেই সরে যেতে চেয়েছিলেন। কামরাজ রাজি হননি। তবে লালবাহাদুর শাস্ত্রী, মোরারজি দেশাই, জগজীবন রামের মতো কেন্দ্রীয় মন্ত্রী-সহ কামরাজ, বিজু পট্টনায়েকের মতো ৬ জন মুখ্যমন্ত্রীও পদত্যাগ করেন। সেই কামরাজ প্লানই এবার রাহুলের হাত ধেরে কংগ্রেসে এল ।

লোকসভা ভোটে ভরাডুবির পর সভাপতি পদে আর থাকবেন না বলে নিজেই জানিয়েছেন রাহুল। কিন্ত কোনো প্রবীণ নেতা এখনও পদত্যাগ করেননি । এক মাসেও হারের দায় নিয়ে কেউ পদ না-ছাড়ায়, দু’দিন আগে দলের কিছু যুব নেতার কাছে ‘মনের কথা’ জানান রাহুল। আক্ষেপ করেন, তাঁর ইস্তফার পরেও দলের কোনও রাজ্য সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক, মুখ্যমন্ত্রী তো  পদত্যাগ করলেন না! রাহুলের ‘মনের কথা’ বুঝে কাল রাতেই প্রথম ইস্তফাটি আসে দলের আইন বিভাগের প্রধান বিবেক তনখার থেকে। রাত গড়াতে শুরু হয় ইস্তফার হিড়িক।

দিল্লির কার্যকরী সভাপতি রাজেশ লিলোথিয়া, হরিয়ানা মহিলা কংগ্রেস প্রধান সুমিত্রা চৌহান, এআইসিসি সচিব অনিল চৌধুরী, বীরেন্দ্র রাঠৌর, বিদেশ বিভাগের সচিব বীরেন্দ্র বশিষ্ঠের মতো প্রায় দেড়শো জন পদত্যাগ করেন। তাঁদের বক্তব্য, রাহুল গাঁধীর সম্মানেই ইস্তফা দিচ্ছেন। নিষ্ঠা ও সততার সঙ্গে দেশ ও দলের নেতৃত্ব দিয়েছেন রাহুল। তিনি হারের দায়িত্ব নিয়ে ইস্তফা দিতে পারলে বাকিরা নন কেন? যুব কংগ্রেসের নেতা-কর্মীরা আজ এআইসিসি দফতরে ফের জড়ো হয়ে গণ-ইস্তফার সিদ্ধান্ত নেন। বিকেল গড়াতে মধ্যপ্রদেশের দায়িত্বে থাকা সাধারণ সম্পাদক দীপক বাবারিয়া, গোয়ার সভাপতিও ইস্তফা দেন। দিল্লিতে শীলা দীক্ষিতও ভেঙে দিয়েছেন ২৮০ ব্লক সমিতি।

নবীন নেতারা বলছেন, ‘‘এত দিন পর্দার আড়ালে থেকে যাঁরা সিদ্ধান্ত নিচ্ছিলেন, সেই প্রবীণ নেতারা কেন ইস্তফা দিচ্ছেন না? তিন দিনের মধ্যে তাঁরাও পদত্যাগ না-করলে, বাড়ি গিয়ে পদত্যাগ আদায় করা হবে।’’

প্রবীণরা এ বার কী করেন সেটা দেখার। কিন্তু রাহুল কি ইস্তফার সিদ্ধান্ত থেকে সরবেন? এমন আশা দেখছেন না প্রবীণ নেতা বীরাপ্পা মইলি। তাঁর কথায়, ‘‘কর্ম সমিতিতেই পরবর্তী পদক্ষেপের সিদ্ধান্ত নিতে হবে।’’

নবীনদের যদিও ধারণা, দলের খোলনলচে বদলানোর খোলা হাত পেলে রাহুল ফের নেতৃত্ব দেবেন। আজ তিনি দিল্লির নেতাদের সঙ্গে নিজের বাড়িতে বৈঠক করেছেন। আর এ দিনই ছত্তীসগঢ়ে মোহন মারকামকে রাজ্য সভাপতি নিয়োগ করেছেন। তাঁর ইস্তফা ঘোষণার পর আজই প্রথম দলের কোনও নির্দেশ রাহুলের নামে জারি হল। গত ক’দিন যা হচ্ছিল এআইসিসির নামে। ( তথ্য সূত্র : ডিজিটাল আনন্দবাজার)

 


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment