দেশ 

”মোদি বানিও না “এই শ্লোগানে মাতোয়ারা দেশ; কেন জানেন ?

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলার জনরব ডেস্ক : এপ্রিল ফুলকে কাজে লাগিয়ে গতকাল দেশজুড়ে রাজনৈতিক তরজা শুরু হল সোস্যাল মিডিয়ায় । প্রথমেই সোস্যাল মিডিয়ায় ব্রেকিং নিউজের মত জানানো হল । নরেন্দ্র মোদী আর রাহুল গাঁধী রাজি হয়েছেন মুখোমুখি বিতর্কে বসতে। কখন? কোথায়? কবে? সেই কতদিন ধরে রাহুল গাঁধী চ্যালেঞ্জ করছেন নরেন্দ্র মোদীকে! প্রথমে বলেছিলেন, আধ ঘণ্টা মুখোমুখি হয়ে দেখান প্রধানমন্ত্রী। কয়েক মাস পরে ধৈর্য হারিয়ে রাহুল নিজেই সময়ের অঙ্কটি কমিয়ে কুড়ি মিনিটে আনলেন। পরে হতাশ হয়ে ১৫ মিনিট।

যে কাজ এতদিন হল না, সেটি আজ হল কী করে? তোলপাড় সোশ্যাল দুনিয়ায়। এরইমধ্যে কংগ্রেস নিয়ে এল ভোটের ইস্তাহার। সে কী কাণ্ড? ইস্তাহার তো আগামিকাল ঘোষণা করবেন রাহুল। গতকাল রাত পর্যন্তও কংগ্রেস দফতরের শামিয়ানার কাজ শেষ হয়নি। এরমধ্যেই ইস্তাহার প্রকাশ? ক্লিক করে দেখা গেল, কংগ্রেস নয়, বিজেপির ইস্তাহার প্রকাশ হয়েছে। আর সেটি করেছে কংগ্রেসই। বিজেপি নেতারা আগেই জানিয়েছিলেন, চলতি সপ্তাহে তাঁদের ইস্তাহার প্রকাশের সম্ভাবনা কম। বিজেপি যে কাজে দেরি করছে, কংগ্রেস তাদের হয়ে সেরে ফেলল!

আর সেটি দেখেই বোঝা গেল, আজ সকাল থেকে হচ্ছেটা কী? আজ এপ্রিল-ফুল।

এমন দিনে সাধারণত লোকেরা বলেন, ‘‘বোকা বানিও না।’’ কংগ্রেস স্লোগান তুলল, ‘‘মোদী বানিও না।’’ ছত্তীসগঢ়ের মুখ্যমন্ত্রী ভূপেশ বাঘেল মজা করে টুইট করলেন, তিনি নাকি একটি আয়না অর্ডার করে পাঠিয়েছেন সাত নম্বর লোক কল্যাণ মার্গের ঠিকানায়। যেখানে থাকেন দেশের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। টুইটে প্রধানমন্ত্রীকে লক্ষ্য করে ভূপেশ এ-ও লিখে দিলেন, ‘‘আপনার জন্য একটি আয়না পাঠালাম। লোক কল্যাণ মার্গের  যে জায়গায় সবথেকে বেশি আপনার যাতায়াত, সেখানে আয়নাটি রাখুন। যাতে বেশিবার নিজের মুখ দেখতে পারেন আর নিজের আসল রূপ চিনতে পারেন।’’

 

 

 

 


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment