দেশ 

জনতার রায়ে নয়, দলীয় নির্দেশে মধ্যপ্রদেশের কুরসি হারালেন শিবরাজ ! নতুন মুখ্যমন্ত্রীর নাম ঘোষণা বিজেপির

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলার জনরব ডেস্ক : লোকসভা ভোটের মুখে নরেন্দ্র মোদির মাস্টার স্ট্রোক মধ্যপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রীর পদ থেকে সরিয়ে দেয়া হলো শিবরাজ সিং চৌহানকে। তিনি প্রায় ১৮ বছর এই রাজ্যের বিজেপির মুখ্যমন্ত্রী ছিলেন। আরএসএস ঘনিষ্ঠ শিবরাজ সিং চৌহানের জামানা এবছর শেষ হয়ে যাবে এটা কেউ কল্পনাও করেননি কিন্তু মোদীজি কল্পনা করেছিলেন। একই সঙ্গে বাস্তবায়নও করলেন।

প্রসঙ্গত বলা প্রয়োজন এবারের মধ্যপ্রদেশ বিধানসভার নির্বাচন ছিল বিজেপির কাছে কঠিন লড়াই। একদিকে ক্ষমতায় থাকার জন্য প্রতিষ্ঠান বিরোধী হওয়া যেমন ছিল। তবে মামাজির অক্লান্ত পরিশ্রম শেষ পর্যন্ত বিজেপির জয় এনে দিতে সক্ষম হয়েছিল মধ্যপ্রদেশে। কিন্তু সেই মামাজি অর্থাৎ শিবরাজ সিং চৌহানকে ছেঁটে ফেলল বিজেপি, যে এক কথায় মোদির মাস্টার স্ট্রোক বললে অতুক্তি হবে না।

Advertisement

সোমবার রাজধানী ভোপালে রাজ্য বিজেপির দফতরে দলের বিধায়কদের নিয়ে বৈঠকে তিন কেন্দ্রীয় পর্যবেক্ষক— হরিয়ানার মুখ্যমন্ত্রী মনোহরলাল খট্টর, রাজ্যসভা সাংসদ কে লক্ষ্মণ এবং ঝাড়খণ্ডের রাঁচীর মেয়র তথা দলের জাতীয় কর্মসমিতির সদস্য আশা লারকা নতুন মুখ্যমন্ত্রী হিসাবে মোহন যাদবের নাম ঘোষণা করলেন।

মোহনের মন্ত্রিসভায় দু’জন উপমুখ্যমন্ত্রী থাকবেন বলেও বিজেপির কেন্দ্রীয় পর্যবেক্ষকেরা জানিয়েছেন। তাঁদের মধ্যে এক জন বিদায়ী অর্থমন্ত্রী জগদীশ দেবড়া। দ্বিতীয় জন দলেন ব্রাহ্মণ নেতা তথা বিদায়ী শিবরাজ মন্ত্রিসভার জনসংযোগ মন্ত্রী রাজেন্দ্র শুক্ল।

রবিবার ছত্তীসগঢ়ের মুখ্যমন্ত্রী পদে আদিবাসী নেতা বিষ্ণুদেও সাইকে বেছেছিল বিজেপি। এ বার জাতপাতের সমীকরণ মাথায় রেখেই অনগ্রসর (ওবিসি) নেতা মোহনকে বেছে নেওয়া হল বলে রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের একাংশের ধারণা। উজ্বয়িনী-দক্ষিণ কেন্দ্রের তিন বারের বিধায়ক মোহন বিদায়ী মন্ত্রিসভার শিক্ষমন্ত্রী ছিলেন।

শিবরাজ সিং চৌহান এর জামানা শেষ হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে এটা প্রমাণিত হলো আরএসএসের কাছে এখন মোদির প্রাধান্য সবচেয়ে বেশি। কারণ শিবরাজ সিং চৌহান আরএসএস ঘনিষ্ঠ এবং মধ্যপ্রদেশে আরএসএস-এর প্রভাবকে তৃণমূল স্তর পর্যন্ত পৌঁছে দেওয়ার ক্ষেত্রে শিবরাজ চৌহানের অবদানকে অস্বীকার করা যাবে না। সেই শিবরাজকে কার্যত রাজনীতির ময়দান থেকে বিদায় করে দিয়ে নরেন্দ্র মোদী যে বার্তা দিলেন তা হল বিজেপি ও আর এস এসে তিনিই শেষ কথা বলবেন।

তবে মনে রাখা উচিত মধ্যপ্রদেশে বিজেপির জয়ের অন্যতম কান্ডারী ছিলেন এই শিবরাজ সিং চৌহান। তার প্রকল্প লাডলা বেহেন যথেষ্ট জনপ্রিয়তা পেয়েছিল একইসঙ্গে তাঁর প্রতি আস্থা রেখেই মধ্যপ্রদেশের মানুষ দুহাত ভরে বিজেপিকে ভোট দিয়েছিল। যাইহোক নরেন্দ্র মোদির এই মাস্টার স্টোক যদি আগামী দিনে অর্থাৎ লোকসভা নির্বাচনে কাজে লাগে তাহলে তিনি সফল বলে প্রমাণিত হবে। আর যদি কোন কারনে এই পরীক্ষা ব্যর্থ হয় তাহলে কিন্তু নরেন্দ্র মোদির নেতৃত্ব চ্যালেঞ্জের মুখে দাঁড়িয়ে যাবে।

 

 


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ