কলকাতা 

জোরে সাউন্ড বক্স বাজানোর প্রতিবাদ করে খুন চিংড়িঘাটার বাসিন্দা , অভিযুক্তকে গণপিটুনি, জনরোষে উত্তাল এলাকা, দায় কার ?

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলার জনরব ডেস্ক : খোদ কলকাতা শহরে ফের খুন, এক প্রকার প্রকাশ্যেই । বলা যেতে পারে, পুলিশের অক্ষমতা -অযোগ্যতার কারণে খুন হতে হল প্রতিবাদী যুবককে । ঘটনাটি ঘটেছে, চিংড়িঘাটার বাসন্তি কলোনি এলাকায়। এর প্রতিবাদে আজ রবিবার সকালে বিক্ষোভে ফেটে পড়ে এলাকার জনতা । তাদের আক্রোশের শিকার হন অভিযুক্ত এক যুবক । এই যুবককে গণপিটুনি দেওয়া হয় ,মূল অভিযুক্ত সন্দেহে । যদিও তিনিই মূল অভিযুক্ত কিনা তা এখনো স্পষ্ট নয় ।

ঘটনার বিবরণে জানা গেছে,শনিবার রাতে চিংড়িঘাটার বাসন্তী দেবী কলোনি এলাকায় জগদ্ধাত্রী পুজোর ভাসানে সাউন্ড বক্স বাজানোকে কেন্দ্র করে বচসার সূত্রপাত। অভিযোগ, স্থানীয় যুবক সাহেব আলির সঙ্গে বিট্টু ঝামেলায় জড়িয়ে পড়েন। স্থানীয়দের অভিযোগ, জোরে গান চালানোর প্রতিবাদ করেছিলেন সাহেব। তার জেরেই প্রকাশ্য রাস্তায় সাহেবকে কাঁচি দিয়ে কোপান বিট্টু। তাঁর গলায়, ঘাড়ে, পেটে কাঁচি ঢুকিয়ে দেওয়া হয় বলে অভিযোগ। পরে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে তাঁকে মৃত বলে ঘোষণা করেন চিকিৎসকেরা।

অভিযুক্ত বিট্টুকে নিয়ে আগে থেকেই এলাকায় ক্ষোভ ছিল। শনিবারের ঘটনা তাতে ঘৃতাহুতি দিয়েছে। রাতেই গা ঢাকা দিয়েছিলেন বিট্টু। রবিবার সকাল থেকে তাঁকে গ্রেফতার করার দাবিতে পুলিশকে ঘিরে বিক্ষোভ দেখান এলাকার মানুষ। অভিযোগ, এর আগে একাধিক অপরাধমূলক ঘটনার সঙ্গে জড়িয়ে ছিলেন বিট্টু। তাঁকে আগে গ্রেফতারও করা হয়েছিল। পুলিশের হাত থেকে ছাড়া পেয়ে আবার এলাকায় ঢোকেন তিনি।

Advertisement

শনিবারের ঘটনার পর পুলিশ বিট্টুর খোঁজ করছিল। তখনই আচমকা এলাকায় একটি ট্যাক্সির ভিতরে বিট্টুকে দেখতে পান স্থানীয়েরা। সঙ্গে সঙ্গে তাঁর উপর ঝাঁপিয়ে পড়েন উন্মত্ত জনতা। যে যা সামনে পেয়েছেন, তা দিয়েই মারধর করেছেন অভিযুক্তকে। পরে পুলিশ তাঁকে উদ্ধার করে।

বিধাননগরের পুলিশ কমিশনার গৌরব শর্মা বলেন, ‘‘দ্রুত অভিযুক্তকে গ্রেফতার করা হবে। এর আগেও বিট্টুর বিরুদ্ধে পদক্ষেপ করা হয়েছিল। তিনি জেল খেটেছেন। সম্প্রতি জামিনে মুক্তি পেয়েছিলেন। শনিবার রাতের ঘটনা স্বতন্ত্র। উপযুক্ত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।’’


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ