কলকাতা 

নিয়োগ দুর্নীতি মামলায় এবার তৃণমূল বিধায়ক তাপস সাহার বিরুদ্ধে কী সিবিআই?

শেয়ার করুন

বাংলার জনরব ডেস্ক : নিয়োগ দুর্নীতি মামলায় এবার কী তৃণমূল বিধায়ক তাপস সাহার বিরুদ্ধে সিবিআই তদন্তের নির্দেশ দিতে পারে কলকাতা হাইকোর্ট? হাই কোর্টের বিচারপতি রাজাশেখর মান্থার এজলাসে তাপস মামলার শুনানিতে তেমনই ইঙ্গিত মিলল। বিধায়কের বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রসঙ্গে বিচারপতি বললেন, ‘‘আদালত সত্য জানতে চায়।’’

নদিয়ার তেহট্টের বিধায়ক তাপসের বিরুদ্ধে দমকল-সহ বিভিন্ন সরকারি দফতরের চাকরির প্রতিশ্রুতি দিয়ে কোটি কোটি টাকা নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। মঙ্গলবার এই মামলা শুনানির জন্য বিচারপতি মান্থার এজলাসে উঠলে, হাই কোর্টকে সিবিআই জানিয়ে দেয়, তারা তাপসের বিরুদ্ধে তদন্ত করতে প্রস্তুত। যা শোনার পর বিচারপতি মান্থা বলেন, ‘‘নিয়োগ দুর্নীতির অনেক মামলায় সিবিআই তদন্ত করছে। ফলে এই একই ধরনের অভিযোগের ক্ষেত্রে ওই সংস্থা তদন্ত করবে কি না, তা খতিয়ে দেখবে আদালত।” তবে একই সঙ্গে এই মামলায় রাজ্যের বক্তব্যও জানতে চেয়েছেন বিচারপতি মান্থা।বিভিন্ন সরকারি দফতর, এমনকি দমকলেও চাকরির প্রতিশ্রুতি দিয়ে প্রায় ১৬ কোটি টাকা নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে তৃণমূল বিধায়ক তাপসের বিরুদ্ধে।

Advertisement

এ ব্যাপারে হাই কোর্টে মামলা করেন ইউসুফ আলি শেখ। তাঁর আইনজীবী এবং বিজেপি নেতা তরুণজ্যোতি তিওয়ারি আদালতকে জানিয়েছিলেন, এই অভিযোগের প্রেক্ষিতে প্রাথমিক ভাবে দুর্নীতি দমন শাখা তদন্ত শুরু করলেও সময় মতো চার্জশিট না দেওয়ায় ধৃতেরা জামিন পেয়ে যান। মঙ্গলবার এই মামলার শুনানিতে দু’পক্ষের বক্তব্য শুনে বিচারপতি মান্থা বলেন, ‘‘তদন্তের অগ্রগতি নিয়ে আদালত ভাবিত নয়। তবে আদালত সত্য জানতে চাইছে।’’

চাকরির প্রতিশ্রুতি দিয়ে টাকা নেওয়ার অভিযোগে তাপসের বিরুদ্ধে সিবিআই এবং ইডির তদন্ত দাবি করেছিলেন মামলাকারী। মঙ্গলবার সেই আবেদনের প্রেক্ষিতেই সিবিআইয়ের পক্ষে কথা বলেন কেন্দ্রের অতিরিক্ত সলিসিটর জেনারেল অশোক চক্রবর্তী। অশোক জানান, এই ধরনের চাকরি বিক্রির মামলার তদন্ত সিবিআই, ইডি করছে। আদালত নির্দেশ দিলে এই মামলারও তদন্ত করতে কোনও অসুবিধা নেই সিবিআইয়ের।

সিবিআইয়ের এই বক্তব্য শোনার পরই বিচারপতি মান্থা রাজ্যের বক্তব্য শুনতে চান। বিচারপতি মান্থার পর্যবেক্ষণ, এই মামলা রাজ্যের হাতে থাকবে, না কি কেন্দ্রীয় কোনও সংস্থার হাতে যাবে সে দিকে নজর দেবে আদালত। নিয়োগ দুর্নীতির অনেক মামলায় সিবিআই তদন্ত করছে। ফলে এই একই ধরনের অভিযোগের ক্ষেত্রে ওই সংস্থা তদন্ত করবে কি না, তা খতিয়ে দেখবে আদালত। আগামী বৃহস্পতিবার এই মামলার পরবর্তী শুনানি।

 


শেয়ার করুন

সম্পর্কিত নিবন্ধ