দেশ 

‘‘বায়ুসেনার ৩০ হাজার কোটি টাকা লুট করেছেন প্রধানমন্ত্রী” চাঞ্চল্যকর দাবি রাহুলের

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলার জনরব ডেস্ক : বৃহস্পতিবার সংসদে দাঁড়িয়ে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী বিরোধী দল এবং কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধীকে আক্রমণ করতে গিয়ে বলেছিলেন,“চোর উলটে চৌকিদারকে বকে।” প্রধানমন্ত্রীর এই ভাষণের ২৪ ঘন্টা কাটার আগেই কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধী আবারও বললেন , চৌকিদার চোর হ্যায় । এবার তিনি ভারতের বৃহত্তম এক সংবাদপত্রের খবরকে সামনে এনে আরও জোরে প্রধানমন্ত্রীকে আক্রমণ শানালেন । এবার তিনি বললেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীই ৩০ হাজার কোটি টাকার দূনীর্তি সঙ্গে যুক্ত ।

উল্লেখ্য, ইংরেজি সংবাদপত্র ‘দ্য হিন্দু’তে রাফাল সংক্রান্ত একটি অনুসন্ধানী রিপোর্ট প্রকাশিত হয়েছে। ওই প্রতিবেদনে প্রকাশিত হয় প্রধানমন্ত্রীর দফতরকে দেওয়া প্রতিরক্ষা মন্ত্রকের একটি গোপন চিঠি।

এই চিঠিতে বলা হয়েছে, প্রতিরক্ষা মন্ত্রক এবং মধ্যস্থতাকারী দলকে অন্ধকারে রেখে রাফাল যুদ্ধবিমানের দামের বিষয়ে ফ্রান্সের সঙ্গে সমান্তরাল দরাদরি চালিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী৷

শুধু তা-ই নয়, ওই চিঠিতে প্রতিরক্ষা সচিব জি মোহন কুমার জানিয়েছিলেন, এই ধরনের পদক্ষেপ প্রধানমন্ত্রীর দফতরের করা উচিত নয়। কারণ, এতে সংশ্লিষ্ট দফতরকে অগ্রাহ্য করা হয়৷

রাহুলের দাবি, এই নথি থেকেই প্রমাণিত হয়, সবাইকে অন্ধকারে রেখে এই চুক্তি সই করেছেন মোদী।

সংবাদপত্রে প্রকাশিত এই প্রতিবেদনকে হাতিয়ার করেই এ বার মোদীর বিরুদ্ধে যুদ্ধে অবতীর্ণ হয়েছেন রাহুল গান্ধী৷ তাঁর প্রশ্ন, “কেন প্রতিরক্ষা মন্ত্রককে অন্ধকারে রেখে ফ্রান্সের সঙ্গে সরাসরি দর কষাকষি করেছেন প্রধানমন্ত্রী?”

রাফাল চুক্তিতে মোদির হস্তক্ষেপের অভিযোগ তুলে তিনি বলেন, “মোদি কি একইসঙ্গে চোর এবং চৌকিদার? চুক্তিতে মোদি আলাদাভাবে দরাদরি চালান। আলাদাভাবে দরাদরিতে আপত্তি ছিল প্রতিরক্ষামন্ত্রকের। মোদি সমান্তরাল দরাদরি চালাচ্ছিলেন।” এরপর তিনি বলেন, “সুপ্রিম কোর্টকে সরকার মিথ্যা বলেছে। পুরো বিচারটা এখন প্রশ্নের মুখে। মিথ্যা বলেছেন প্রতিরক্ষা মন্ত্রী নির্মলা সীতারমনও।”

তিনি আরও বলেন, “পিএমও এমন করবে এটা কাম্য নয়, জানিয়েছিল প্রতিমন্ত্রক। প্রধানমন্ত্রীকে গিয়ে জিজ্ঞাসা করুন ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট তাঁকে কেন চোর বলছেন। কেন প্রতিরক্ষামন্ত্রক চোর বলছে। রাফাল দুর্নীতিতে এখন দিনের আলোর মতোই স্পষ্ট যে মোদি প্রতিরক্ষামন্ত্রকের থেকেও টাকা নিয়েছিলেন। প্রধানমন্ত্রী আলাদা তদন্ত চালিয়েছিলেন অনিল আম্বানির কথা ভেবে। মোদির দরাদরিতে দেশের ভাবমূর্তি নষ্ট হয়েছে।”

কিন্তু শুক্রবারই রাহুলের পালটা আক্রমণে স্পষ্ট আগামী লোকসভা নির্বাচনে রাফাল দূনীর্তিকে  বিরোধীরা হাতিয়ার করতে চলেছে ।


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment