কলকাতা 

চিটফান্ড কান্ডে প্রতারিতদের টাকা ফেরতের দাবি জানাল প্রদেশ কংগ্রেস

শেয়ার করুন
  • 1
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলার জনরব ডেস্ক :চিট ফান্ড কান্ডে দোষীদের শাস্তির দাবি এবং প্রতারিতদের টাকা ফেরানোর দাবিতে বুধবার রাজা সুবোধ মল্লিক স্কোয়ার থেকে ধর্মতলার ভিক্টোরিয়া হাউজ় পর্যন্ত মিছিল করে কংগ্রেস। এই মিছিলের নেতৃত্ব দেন প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি সোমেন মিত্র। এদিন নিন্দা  জানানো হয় পুলিশ কমিশনার রাজীব কুমারের বাসভবনে সিবিআই-এর তদন্তে জন্য  যাওয়ার সময় হেনস্থার ইস্যূতে মুখ্যমন্ত্রীর ভূমিকার। মিছিল থেকে চিটফান্ডকাণ্ডে প্রতারিতদের অবিলম্বে টাকা ফেরত দেওয়ার দাবি তোলা হয়। পাশাপাশি সারদা, নারদা সহ চিটফাণ্ড অনিয়মে জড়িতদের শাস্তির দাবি তোলে কংগ্রেস।

প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি সোমেন মিত্র এ বিষয়ে  বলেন, “অবিলম্বে প্রতারিতদের টাকা ফেরত দিতে হবে। চিটফান্ডে দুনীর্তির ফলে গ্রামীণ অর্থনীতি নষ্ট হয়েছে। চিটফান্ডকাণ্ডে প্রতারকরা অধিকাংশই পশ্চিমবঙ্গের। আমি তৃণমূল সাংসদ থাকাকালীন প্রথম চিঠি দিয়েছিলাম প্রধানমন্ত্রীকে। আবদুল মান্নানের করা মামলার ভিত্তিতেই সুপ্রিমকোর্ট সিবিআই তদন্তের নির্দেশ দেয়। কিন্তু তা সত্ত্বেও সিপি-র বাসভবনে ঢুকতে পারল না সিবিআই।”

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ধর্মতলায় ধর্নায় বসাকে কটাক্ষ করে  তিনি প্রশ্ন তোলেন । প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতির  অভিযোগ, শুধুমাত্র রাজীব কুমারকে বাঁচাতে এই ধরনায় বসেছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি বলেন”মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় একটা সময় সবকিছুতে সিবি্আই তদন্ত দাবি করতেন। বাংলার মুখ্যমন্ত্রী প্রতারিতদের পাশে থাকেননি। একজন মানুষের বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছে, সে সিবিআই-এর থেকে পালাচ্ছে কেন? সিবিআই আমায় ডেকেছিল, যতবার ডাকবে যাব। প্রোটোকলকে তোয়াক্কা না করে সিপি-র বাসভবনে গেলেন। তারপর সত্যাগ্রহে বসলেন। কেন?”

সোমেন মিত্র আরও বলেন “এর আগে সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায় ও তাপস পালকে আটক করেছিল সিবিআই। তখন তো তিনি ধরনায় বসেননি। তাহলে তারা কি চোর ছিল?”


শেয়ার করুন
  • 1
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment