কলকাতা 

যে কৃষকের জমি নেই তার কী হবে ? ৩২ বছর টাকা জমা রাখার পর তিন হাজার টাকার পেনশনের মূল্য কি ? কেন্দ্র বাজেট নিয়ে প্রশ্ন তুললেন সিপিএম নেতা সূর্যকান্ত মিশ্র

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলার জনরব ডেস্ক : পীযুষ গোয়েলের বাজেট বক্তব্যকে বিশ্লেষণ করেছেন সিপিএমের রাজ্য সম্পাদক সূর্যকান্ত মিশ্র৷ সূর্যকান্তের বক্তব্য :- সারা দেশের কৃষকরা মাথা পিছু ১ টাকা প্রতিদিন পাবে৷ কৃষকদের সঙ্গে প্রতারণা৷ মূল অর্থনৈতিক সমস্য এড়িয়ে যাওয়া হয়েছে৷ মোদী সরকার জাতীয় নমুনা সমীক্ষার রিপোর্ট চেপে যেতে চেয়েছিল৷ পারেনি৷ প্রকাশিত হয়ে গিয়েছে৷ সেখানে দেখা গিয়েছে ৪০ শতাংশ কৃষক জমী চাষ করতে চায়না৷ চাষি চাষ করা ছেড়ে দিনে কী হবে? বামপন্থীরা এমএসপি বা নুন্যতম সহায়ক মূল্য ৫০ শতাংশ করার দাবি জানিয়েছিল৷

স্বামীনাথন কমিটির সুপারিশ লাগু করতে বলেছিল৷ তা করেনি সরকার৷ তবে হ্যা, এতটুকু করেছে – দেশে কৃষক আন্দোলন, কৃষক মিছিলের জন্যই৷ যে কৃষকের জমি নেই তাঁরা কী করবেন৷ জমির মালিক টাকা পাবে, লিজ নিয়ে চাষ করে যে চাষিরা তাঁদের কী হবে? তাঁরা কিছুই পাবে না৷ সরকার ২০ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ ঘোষণা করেছেন৷ কিন্তু ওই টাকা কোথা থেকে আসবে কিছু দিশা দেখায় নি৷ তবে আগামী বার সরকারকে এই খাতে ৭৫ হাজার কোটি টাকা ঘোষণা করতে হবে৷

শ্রমিকদের পেনশন দেওয়ার ঘোষণার নেপথ্যে কী আছে তার বিশ্লেষণ করলেন সিপিএমের রাজ্য সম্পাদক

সূর্যকান্তের বক্তব্য:- প্রতি মাসে শ্রমিকদের ১০০ টাকা দিতে হবে৷ অর্থাৎ বছরে ১২০০ টাকা৷ ৩২ বছর পর পেনশন পাওয়া যাবে৷ ওই সময় মাসে ৩০০০ টাকার কী দাম থাকবে? মোদী সরকার ৫০০ কোটি টাকা বরাদ্দ করেছে৷ ওই টাকা কোথা থেকে আসবে৷ এছাড়া ওই টাকা তো বিমা কোম্পানীতে বা পেনশন ফান্ডেই রাখবে সরকার৷

মোদী সরকার গ্র্যাচুইটির সর্বোচ্চ সীমা বাড়িয়ে ৩০ লক্ষ টাকা করার প্রস্তাব দিয়েছে বাজেটে৷ মধ্যবিত্তদের দিকে তাকিয়ে স্বাভাবিকভাবেই মোদী সরকারের এই পদক্ষেপ আর পাঁচটি জনমোহিনী বাজেট ঘোষণার মধ্যে গুরুত্বপূর্ণ হয়ে গিয়েছে৷ ঘোষণার মধ্যে গুরুত্বপূর্ণ হয়ে গিয়েছে৷

 

 


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment