জেলা 

অধীর ম্যাজিকে মুর্শিদাবাদে প্রতিদিনই ভাঙছে শাসক দল ; রানিনগরে সক্রিয় ৩৫০ জন তৃণমূল কর্মী যোগ দিল কংগ্রেসে ; তৃণমূল এখন ডিম-ভাতের দল বলে কটাক্ষ অধীরের

শেয়ার করুন
  • 1.2K
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলার জনরব ডেস্ক : প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতির দায়িত্ব থেকে এআইসিসি সরিয়ে দিয়ে অধীর চৌধুরির রাজনৈতিক কেরিয়ারে শাপে বর করেছে । যে মুর্শিদাবাদে কয়েক মাস আগেও কংগ্রেস দলের অস্তিত্ব হারিয়ে যেতে বসেছিল । পঞ্চায়েতে প্রার্থী দিতে পারেনি । সেই মুর্শিদাবাদে অধীর চৌধুরি সময় দেওয়ার পর থেকে আবার স্বমহিমায় কংগ্রেস ফিরে আসছে ।  সবচেয়ে অবাক করেছে শাসক দলের ভাঙন । প্রায় প্রতিদিনই নিয়ম করে পঞ্চায়েতস্তরে তৃণমূল কর্মীরা অধীর চৌধুরির হাত ধরে কংগ্রেসে যোগ দিচ্ছেন । গতকাল শনিবার ব্রিগেডে বিশাল সমাবেশ করেছে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নেতৃত্বাধীন তৃণমূল কংগ্রেস । ঠিক তার পরের দিনই মুর্শিদাবাদের রানিনগর ব্লকের ৩৫০ জন সক্রিয় তৃণমূল কর্মী কংগ্রেসে যোগ দিলেন। তাঁদের মধ্যে বেশ কয়েকজন প্রাক্তন পঞ্চায়েত প্রধান, একজন পঞ্চায়েত সমিতির সদস্য ও বেশ কয়েকজন গ্রাম পঞ্চায়েত সদস্য রয়েছেন। আজ তাঁদের হাতে দলীয় পতাকা তুলে দেন অধীরবাবু।

আজ বহরমপুর জেলা কংগ্রেস কার্যালয়ে এই সব তৃণমূল কর্মীদের দলে যোগদান উপলক্ষে এক সভায় বক্তব্য রাখতে গিয়ে বহরমপুরের সাংসদ  অধীর চৌধুরি বলেন, “গতকাল ব্রিগেডে প্রধানমন্ত্রী হয়ে গেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এবার উনি যাবেন দেশ চালাতে। আর বাবুয়া (অভিষেক ব্যানার্জি) প্রদেশ চালাবেন। কিন্তু, আমারা বুয়া ও বাবুয়ার এই দুঃস্বপ্নকে সত্যি হতে দেব না। ব্রিগেডের বদলে কলকাতায় চারদিন ধরে পিকনিক হয়েছে। যে সব বাড়ি থেকে ব্রিগেডে লোক গেছে সেইসব বাড়িতে তৃণমূলের তরফ থেকে ৫০০ টাকা করে দেওয়া হয়েছে। গাড়ি ভাড়া ফ্রি। মদের বোতল ফ্রি। খাওয়া দাওয়া ফ্রি। দিদি বলেছে আমার দল করলে ডিম-ভাতের অভাব হবে না। চলো ব্রিগেড। দিদির দল হল এখন ডিম-ভাতের দল। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় আগেও ব্রিগেড ডেকেছিল। সেখানে সাধারণ মানুষের ভিড় উপচে পড়েছিল। তাদের পয়সা দিয়ে নিয়ে যেতে হয়নি। সেদিন সত্যিই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় মা-মাটি-মানুষের নেত্রী ছিলেন। আজ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বাংলার লুটেরাদের নেত্রী। নিজের কর্মীদের উপর তাঁর আস্থা নেই। যার জন্য ব্রিগেড থেকে তিনি বলছেন তোমরা চিড়িয়াখানায় যেও না। তার থেকে এখানে বসে আমার সার্কাস দেখ।”

তৃণমূল কর্মীদের যোগদান প্রসঙ্গে বলতে গিয়ে প্রাক্তন প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি বলেন, “মুর্শিদাবাদে তৃণমূলের রির্ভাস সুইং শুরু করেছে। যত রির্ভাস সুইং হবে তত তৃণমূলের উইকেট পড়বে। তৃণমূল থেকে কংগ্রেসে যোগদানের এই ধারা আগামীদিনে আরও তীব্র হবে। লোকসভা ভোটের আগে মুর্শিদাবাদ জেলায় তৃণমূলের কয়েকটা চোর লুটেরা থাকতে পারে, বাকি সাধারণ মানুষ তৃণমূলের সঙ্গে থাকবে না। তৃণমূলের প্রতি মানুষের মোহভঙ্গ শুরু হয়ে গেছে। পদ্মার ভাঙনের মতো মুর্শিদাবাদে তৃণমূল তছনছ হয়ে যাবে। নেপোলিয়নের যেমন স্পেনীয় ক্ষত, ঔরঙ্গজেবের যেমন দাক্ষিণাত্য ক্ষত, তেমনই তৃণমূলের মমতা ব্যানার্জির রাজনৈতিক জীবনে মুর্শিদাবাদ ক্ষত তাঁকে তাড়িয়ে বেড়াবে। অত্যাচার করে, লুট করে, পুলিশ দিয়ে মুর্শিদাবাদের গণতন্ত্রকে কেড়ে নিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। গত পঞ্চায়েত ভোটে পশ্চিমবাংলার গণতন্ত্রকে হত্যা করেছেন তিনি। জনতা সুদে আসলে লোকসভা ভোটে তার বদলা নেবে। লোকসভা ভোটের আগে এই জেলায় তৃণমূল তছনছ হয়ে যাবে। দুটি আসনে আমরা লড়ছি। তৃতীয় আসনে লড়ার জন্য আমরা কংগ্রেস নেতৃত্বকে বলেছি। তিনটি আসনেই আমরা জিতব।”


শেয়ার করুন
  • 1.2K
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment