কলকাতা 

কুকুরের জন্ম নিয়ন্ত্রনে বিশেষ উদ্যোগ নিচ্ছে পুরসভা , ধাপায় ৫ তলা ডগ পাউন্ড করা হবে ; চুক্তিতে এখনই ৩০ জন পশু চিকিৎসক নিয়োগ হবে জানালেন মেয়র ফিরহাদ হাকিম

শেয়ার করুন
  • 1
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

নিজস্ব প্রতিনিধি : শহরে মাত্রাতিরিক্তভাবে কুকুরের সংখ্যা বাড়তে থাকায় এদের জন্ম নিয়ন্ত্রনে কলকাতা পুরসভা তাদের ডগ পাউন্ডে প্রতিদিন আরো বেশি সংখ্যক কুকুরের নির্বিজকরনের উদ্যোগ গ্রহণ করছে। পুরভবনে আজ মেয়র ফিরহাদ হাকিম সাংবাদিকদের বলেন, শহরে বর্তমানে দেড় লক্ষের উপর কুকুর রয়েছে। বর্তমানে পুরসভার উদ্যোগে শহরে দৈনিক ১৫ থেকে ২৫ টি কুকুরের নির্বিজকরন করা হয়। যা কুকুরের জন্মনিয়ন্ত্রণে মোটেই যথেষ্ট নয়। তাই আগামী দিনে দৈনিক এক হাজার থেকে দেড় হাজার কুকুরের নির্বিজকরণের লক্ষ্য নেওয়া হয়েছে। এই উদ্দেশ্যে পুরসভার ধাপা ও এন্টালি ডগপাউন্ডদুটিতে অস্থায়ী ভাবে ৫ টি তল গড়ে তোলা হবে। অস্থায়ী খাঁচা তৈরি করে অস্ত্রোপচারের পর  কুকুরদের ৭ দিন করে রাখা হবে। গতকাল ডিজি সিভিল ও পুরসভার মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিককে এই কাজ শুরুর নির্দেশ দেওয়া হয়েছে । এই কাজে চুক্তিভিত্তিক পশুচিকিৎসক নেওয়ার জন্য স্বাস্থ্যবিভাগকে ইতিমধ্যেই নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

মেয়র বলেন, প্রথম পর্যায়ে ৩০ জন চুক্তিভিত্তিক পশু চিকিৎসক নেওয়া হবে। অন্যদিকে শহরে বিগত কয়েকবছরে কুকুরের সংখ্যা অনিয়ন্ত্রিতভাবে বাড়ার ফলে কুকুরের বিষ্ঠায় শহর নোংরা হচ্ছে। কুকুরের বিষ্ঠা পরিষ্কার করার জন্য জঞ্জাল অপসারণ বিভাগকে চুক্তিভিত্তিক সাফাইকর্মী নিয়োগের জন্যও নির্দেশ দেওয়া হয়েছে বলে মেয়র জানান। কলকাতা পুরসভার উদ্যোগে অস্থায়ী ডগ পাউন্ডের পরিকাঠামো তৈরি করতে রাজ্য সরকার প্রাথমিকভাবে তিন কোটি টাকা বরাদ্দ করছে। মেয়র বলেন, এই প্রকল্পে আরো অর্থের প্রয়োজন পড়লে রাজ্য সরকার দেবে। শহরে বিগত কয়েকবছরে কুকুরের সংখ্যা যা বেড়েছে তা রীতিমত চিন্তার বিষয়।শহরবাসীরা আতঙ্কে রয়েছেন। নতুন লক্ষ্যমাত্রা ধরে এগোলে খুব শীঘ্রই শহরে কুকুরের সংখ্যা নিয়ন্ত্রনে আনা যাবে বলে তিনি আশাপ্রকাশ করেন। আগামী দিনে সংগৃহিত কুকুর নিয়ে যাওয়ার গাড়ি ও কুকুর সংগ্রাহকদের সংখ্যা বাড়ানো হবে। পাশাপাশি বেহালা ঠাকুরপুকুর ও ধাপার কাছে ময়লার ডিপোতে নতুন ডগপাউন্ড গড়ার জন্য জমি খোঁজার কাজ চলছে বলেও মেয়র জানান।


শেয়ার করুন
  • 1
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment