কলকাতা 

ব্রিগেড ময়দানে ইতিহাসের বৃহৎ সমাবেশ হবে আগামী শনিবার দাবি তৃণমূল নেত্রীর , সমাবেশে আসছেন দেশের এক ঝাঁক রাজনীতিবিদ ; নিরাপত্তার চাদরে ঢেকে দেওয়া হবে সমগ্র কলকাতা

শেয়ার করুন
  • 77
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

নিজস্ব প্রতিনিধি : মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ডাকা আগামী শনিবারের ব্রিগেড সমাবেশ আক্ষরিক অর্থে বিশাল সমাবেশ হতে চলেছে । সম্ভবত বাংলাদেশের মুক্তি যুদ্ধের পর মুজিবর রহমান ও ইন্দিরা গান্ধীকে ব্রিগেডে যে সমাবেশ করেছিল তার চেয়ে বড় সমাবেশ হতে চলেছে তৃণমূল নেতৃত্ব দাবি করেছেন । এদিকে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মতে শনিবার তার দলের ডাকা সমাবেশই হবে এপর্যন্ত ব্রিগেড ময়দানের ইতিহাসে সর্ব্ববৃহৎ সমাবেশ। দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে রাজনৈতিক তারকারা যোগ দেবেন ওই সমাবেশে। এদের মধ্যে রয়েছেন  দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল, উত্তরপ্রদেশের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী অখিলেশ যাদব , অন্ধপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী চন্দবাবু নাইডু, কুমারস্বামী , ওমর আবদুল্লা ,গেগং আপাং এর  মত বিভিন্ন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী , প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রীরা। একটি সমাবেশকে কেন্দ্র করে শহরে এতজন ভিভিআইপির সমাগমের প্রেক্ষিতে স্বাভাবিক ভাবেই পুলিশ প্রশাসনের কর্তাদের স্নায়ুর চাপ বেড়েছে ।
এছাড়া উদ্যোক্তাদের তরফে ওই দিন ব্রিগেডে ৫০ লক্ষ্ জনসমাগমের কথা ঘোষণা করায়, সুষ্ঠু ভাবে ঐ সমাবেশ শেষ করাও এখন তাদের কাছে বড় চ্যালেঞ্জ। সেই মত প্রশাসনিক তোড়জোর চলছে জোর কদমে। ব্রিগেডের সমাবেশ স্থল থেকে শুরু করে বাইরে থেকে আসা মানুষের থাকার ব্যবস্থা ,গাড়ি রাখার জায়গা নিয়মিত পরিদর্শন  করছেন রাজ্যের মন্ত্রী , শীর্ষ আমলা থেকে শুরু করে কলকাতার পুলিশ কমিশনারের মত আধিকারিকেরা।
খোদ মুখ্যমন্ত্রী আজ সন্ধ্যায় ব্রিগেডের সভাস্থল পরিদর্শন করেন। ব্রিগেড সমাবেশের নিরাপত্তা নিয়ে কলকাতা পুলিশের তরফে নবান্নে রিপোর্টও পাঠানো হয়েছে। সেই রিপোর্ট অনুযায়ী ব্রিগেড সমাবেশে সাড়ে আট হাজার পুলিশ কর্মী মোতায়েন থাকবেন।কলকাতার পুলিশ কমিশনার রাজীব কুমারের নেতৃত্বে সভাস্থলে ১৮ জন ডেপুটি কমিশনার, ২৯ জন সহকারী কমিশনার বাহিনীকে নেতৃত্ব দেবেন। এছাড়াও ঐদিন মঞ্চের বাইরে এক হাজার পুলিশ কর্মী মোতায়েন রাখা হবে । এসটিএফ ও গুন্ডা দমন শাখার কর্মীরা নজরাদারি চালাবেন ।
এছাড়াও সিসিটিভি, ওয়াচ টাওয়ার ও ড্রোন ক্যামেরার মাধ্যমে সমগ্র সমাবেশের উপরে নজরদারি চালানো হবে। ঐদিন সকাল থেকেই শহরের বিভিন্ন রাস্তায় যানবাহন চলাচলের উপরে নিয়ন্ত্রন করা হবে। ব্রিগেডে প্রবেশের জন্যে সাতটি প্রবেশ পথ ছাড়াও গাড়ী পার্কিং এর জন্যে তিনটি স্থানকে নিদৃষ্ট করা হয়েছে। ভিড় সামাল দেওয়ার জন্যে ঐদিন ধর্মতলা এলাকায় দু’হাজার সিভিক ভলান্টিয়ার মোতায়েন করা হবে।
এদিকে সমাবেশ দুদিন পরে হলেও আজ থেকেই ব্রিগেডে সমাবেশে যোগ দিতে শহরে মানুষ আসতে শুরু করেছেন।তাদের  থাকা-খাওয়ারও ব্যবস্থা করেছে শাসক দল৷ এবার গীতাঞ্জলি স্টেডিয়াম,ক্ষুদিরাম অনুশীলন কেন্দ্র, উত্তীর্ণ, বিধাননগর মেলা প্রাঙ্গন ও বড়বাজার এলাকার বিভিন্ন ধর্মশালায় তৃণমূল কংগ্রেসের  কর্মী সমর্থকদের থাকার ব্যবস্থা করা হয়েছে   ।

শেয়ার করুন
  • 77
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment