কলকাতা 

আগুনে পুড়ে যাওয়া মন্ডলগাঁথির সর্বহারা পরিবারদের এফআইআর পুলিশ নিচ্ছে না বলে অভিযোগ , তাহলে মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশকেও কী আমল দিচ্ছে না , বাগুইআটি থানা ?

শেয়ার করুন
  • 27
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

নিজস্ব প্রতিনিধি : সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশ আছে , মানবাধিকার আইনেও পরিস্কার বলা হয়েছে কোনো নির্যাতিত ব্যক্তি থানায় গিয়ে এফআইআর করতে চাইলে তা পুলিশ নিতে বাধ্য । দেশ স্বাধীন , ইংরেজ আমল নয় , কিন্ত গরীব-দুঃস্থ মানুষরা ইনসাফ চাইতে পুলিশের কাছে গেলে ইনসাফ দেওয়া তো দূরের কথা সমান্য এফআইআর নিতে চায় না পুলিশ । বাম-আমল থেকে  চলে আসা সেই ট্রাডিশন সমানে চলছে । পশ্চিমবাংলার মানবিক মুখ্যমন্ত্রী গরীব মানুষদের স্বার্থকে যেখানে সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দিয়ে থাকেন সেখানে তাঁর পরিচালিত পুলিশ এফআইআর নিতে অস্বীকার করছেন । পাঠকবর্গ ! অবাক হচ্ছেন । না অবাক হওয়ার কিছু নেই এই ঘটনাটি ঘটেছে কলকাতার অদূরেই ।

বিধাননগর পুলিশ কমিশনারেটের অধীন বাগুইআটি থানার কৈখালি মন্ডলগাঁথির মাদার টেরেসা সরনীতে কয়েক ঘর গরীব মানুষ বাস করতেন । তাঁরা কেউ দিনমজুরের কাজ করেন কেউ বা কাজ করেন অন্যের বাড়িতে । সেখানটাকে টার্গেট করেন এলাকার এক প্রমোটার বলে অভিযোগ, লক্ষ্য তাদেরকে উচ্ছেদ করে বিল্ডিং করা । সেইলক্ষ্যে নাকি গত শুক্রবার আগুন ধরানো হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে । যদিও পুলিশের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে গ্যাস সিলিন্ডার ফেটে আগুন ধরেছে । তবে অসহায় মানুষগুলি তা মানতে চাইছে না ।

রবিবার সকালে বাংলার জনরব-এর প্রতিনিধি এলাকা পরিদর্শনে যান । সেখানে দেখতে পান এখনও অসহায় মানুষগুলি ত্রাণ শিবিরে রয়েছে । বিধাননগর পুরসভা তাদের পাশে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছে । তাদেরকে ত্রাণ শিবিরে আশ্রয় দেওয়ার পাশাপাশি ত্রান  সামগ্রী দেওয়া হয়েছে পুরসভার পক্ষ থেকে । এদের মধ্যে একজন মারা গেছেন । মৃতের পরিবাররা এফআইআর করার জন্য বারবার থানায় গেলেও কোনো এক অজানা কারণে তা নেওয়া হয়নি বলে অভিযোগ । অথচ সংবাদপত্রে বিবৃতি দিয়ে পুলিশ দাবি করেছে অভিযোগ পায়নি । অভিযোগ পেলে তদন্ত হবে ।

অন্যদিকে, রহমান নামে এক ব্যক্তি তার মেয়ের বিয়ের জন্য কিছু টাকা রেখেছিলেন বাড়িতে । আগুনের গ্রাসে সেই টাকা পুড়ে ছাই হয়ে গেছে । তিনিও এফআইআর করতে গেলে তাকেও ফিরিয়ে দেওয়া হয় বলে অভিযোগ । এ বিষয়ে থানার আইসি-র কাছে মেসেজ করে জানতে চাওয়া হলে তিনি কোনো উত্তর দেননি । তাঁর এই নিরবতা প্রমাণ করছে থানায় এফআইআর করতে গেলে ওই সর্বহারাদের ফিরিয়ে দেওয়া হয়েছে  ।

এদিকে এই ঘটনায় মানবাধিকার কর্মীরা ক্ষুদ্ধ হয়েছেন । তাঁরা  বলেছেন ,সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশ আছে এ্ফআইআর নেওয়ার । মাননীয় মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও এ বিষয়ে প্রকাশ্যেই কড়া মন্তব্য করে থাকেন । তাঁর পরিচালিত দফতরের পুলিশ এ্ফআইআর না নিয়ে কী মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশকেই অমান্য করছেন না ? নাকি গরীব সংখ্যালঘু পরিবার বলেই পুলিশের এই অবঞ্জা ?


শেয়ার করুন
  • 27
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment