দেশ 

রাফাল নিয়ে সংসদের ভেতরে বাইরে বেনজির আক্রমন কংগ্রেসের ; পিঠ বাঁচাতে নামলেন জেটলি ; মোদীকে সরাসরি রাফাল নিয়ে জনসমক্ষে মুখোমুখি হতে আহ্বান রাহুলে

শেয়ার করুন
  • 20
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলার জনরব ডেস্ক : রাফাল সংক্রান্ত যাবতীয় গোপন  ফাইল প্রাক্তন প্রতিরক্ষামন্ত্রী ও গোয়ার বর্তমান মুখ্যমন্ত্রী মনোহর পর্রিকরের কাছে রয়েছে বলে আজ কংগ্রেস দাবি করেছে। একই সঙ্গে কংগ্রেস দাবি  একটি অডিয়ো টেপ প্রকাশ করে বলেছে ওই গোপন ফাইল ফাঁস করে দেওয়ার হুমকি দিয়েই মনোহর পারিকর মুখ্যমন্ত্রী পদে এখনও বসে আছেন । ওই অডিয়ো টেপে  গোয়া মন্ত্রীসভার এক বিজেপি মন্ত্রীর বক্তব্য প্রকাশ করা হয়েছে। কংগ্রেস প্রকাশিত সেই অডিও টেপটি হল :

বিশ্বজিৎ রানে : মুখ্যমন্ত্রী খুব মজার বক্তব্য রেখেছেন। তিনি বলেছেন, আমার বেডরুমে রাফাল নিয়ে সমস্ত তথ্য আছে।

অন্য প্রান্তের ব্যক্তির প্রতিক্রিয়া : কী বলছেন আপনি!

রানে : আপনি মন্ত্রিসভার ঘনিষ্ঠ যে কারোর সাথে যোগাযোগ করতে পারেন। তিনি ঠিক এটাই বলেছিলেন যে সরানো হলে তাঁর খেসারত দিতে হবে। তিনি বলেন, আমার ফ্ল্যাটের বেডরুমে রাফাল সংক্রান্ত প্রতিটি ডকুমেন্ট রাখা রয়েছে।

এটি অবশ্য এখনও ওই মন্ত্রীরই বক্তব্য কিনা তা জানা যায়নি । এই অডিও টেপের সত্যতা যাচাই করেনি বাংলার জনরব । এই টেপ প্রকাশ করেই কংগ্রেসের প্রশ্ন, এই কারণেই কি প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি রাফাল চুক্তিতে সর্বদলীয় তদন্তের অনুমতি দেননি?

উল্লেখ্য মনোহর পারিকর দেশের প্রতিরক্ষা মন্ত্রী থাকাকালীন ফ্রান্সের কাছ থেকে ৩৬টি রাফাল বিমান কেনার চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছিল। ২০১৭ সালের ১৭ মার্চ গোয়ার মুখ্যমন্ত্রী হন পর্রিকর। কয়েক মাস ধরে তিনি শারীরিকভাবে গুরুতর অসুস্থ। এরপরই মুখ্যমন্ত্রী পদে অন্য কাউকে বসানোর দাবি ওঠে।

আজ  অডিয়ো টেপটি প্রকাশ করে রণদীপ সুরজেওয়ালা সাংবাদিকদের বলেন, “প্রাক্তন প্রতিরক্ষা মন্ত্রী মনোহর পারিকরের কাছে রাফাল বিমান চুক্তি সম্পর্কিত সমস্ত ফাইল রয়েছে। যে পদ্ধতিতে প্রতিটি পদ্ধতি বাইপাস করা হয়েছে, ফাইলে সেইসব রেকর্ডই রয়েছে। ফাইলগুলি মিস্টার পারিকরের সঙ্গে আছে। কেন এই ফাইলগুলি লুকানো হচ্ছে?”

যদিও অডিয়ো টেপটি কারসাজি করে করা হয়েছে বলে পালটা অভিযোগ করেছেন বিশ্বজিৎ রানে। তিনি বলেন, “কংগ্রেসকে এতটা নীচে নামতে হল? গোয়ার মুখ্যমন্ত্রী ও মন্ত্রিসভার মধ্যে বিভেদ সৃষ্টি করতেই তারা কারসাজি করা অডিয়ো টেপ প্রকাশ করেছে। মুখ্যমন্ত্রীকে বলেছি ফৌজদারি তদন্তের জন্য।”

আরএদিকে রাফাল চুক্তি নিয়ে আজ দু’বার মুলতুবি হয় লোকসভা। রাফাল চুক্তি নিয়ে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে আক্রমণ করেন কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধি। বলেন, “রাফাল নিয়ে সংসদে এসে জবাব দেওয়ার ক্ষমতা নেই প্রধানমন্ত্রীর।” এরপরই অগাস্টা ওয়েস্টল্যান্ড ও ন্যাশনাল হেরাল্ড নিয়ে কংগ্রেস সভাপতিকে পালটা আক্রমণ করেন অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলি।

তিনি আরও বলেন, “গোটা দেশ রাফাল চুক্তি নিয়ে জানতে চায়। প্রধানমন্ত্রী আগে থেকে ঠিক করে রাখা ৯৫ মিনিটের সাক্ষাৎকার দিতে পারেন। কিন্তু, রাফাল নিয়ে সংসদে এসে প্রশ্নের মুখোমুখি হওয়ার তাঁর ক্ষমতা নেই।” পাশাপাশি যৌথ সংসদীয় কমিটি গড়ে রাফাল চুক্তি নিয়ে তদন্তের দাবি করেন তিনি।

রাহুল গান্ধির বক্তব্যের বিরোধিতা করে আসরে নামেন অরুণ জেটলি। রাহুল গান্ধিকে আক্রমণ করে বলেন, “এটা খুবই দুঃখের বিষয়, দেশের সবচেয়ে পুরোনো দলের প্রধানের কমব্যাট এয়ারফোর্স সম্পর্কে কোনও ধারণাই নেই। শীর্ষ আদালত যদি সন্তুষ্ট থাকে তাহলে কেন যৌথ সংসদীয় কমিটি গড়ে রাফাল চুক্তির তদন্তের কথা বলছে কংগ্রেস ?”
কংগ্রেস সভাপতিকে আক্রমণ করে জেটলি আরও বলেন, “ওই ব্যক্তি একের পর এক মিথ্যা কথা বলছেন। এখানে কিছু ব্যক্তি রয়েছেন যারা বরাবরই সত্যটাকে পছন্দ করেন না। আজ ওরা যে অডিয়ো টেপ প্রদর্শন করেছে সেটা যে ওদের দলই তৈরি করেছে, ওরা সেটা জানে।  আর কোনও কম্পানিকে বাণিজ্যিকভাবে সুবিধা পাইয়ে দেওয়ার লক্ষ্য ছিল এই চুক্তিতে, এমন কোনও প্রমাণ পাওয়া যায়নি।”

এদিন সংসদের বাইরে আর আক্রমণাত্মক ভূমিকায় দেখা গেল রাহুল গান্ধীকে । তিনি সাংবাদিকদের কাছে বলেন , দেশের মানুষ রাফাল নিয়ে জানতে চায় । তাই আমি নিজে মাত্র ২০ মিনিট মোদীজির মুখোমুখি বসতে চাই রাহুল ইস্যুতে তাহলে দেশের মানুষে কাছে বিষয়টি পরিস্কার হয়ে যাবে ।

 


শেয়ার করুন
  • 20
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment