দেশ 

কংগ্রেস-তৃণমূল সহ বিরোধীদের দাবিকে অগ্রাহ্য করে সংখ্যাগরিষ্ঠের জোরে লোকসভায় পাশ হয়ে গেল নতুন তিন তালাক বিল

শেয়ার করুন
  • 48
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলার জনরব ডেস্ক : তিন তালাক সংশোধনী বিল এদিন লোকসভায় আলোচনার পর ধ্বনি ভোটে পাশ হয়ে গেল । এদিন বিলের স্বপক্ষে পড়েছে ২৪৫টি ভোট। বিরুদ্ধে পড়েছে ১১টি ভোট। তবে এদিন বিরোধী দল কংগ্রেস. তৃণমূল এবং সিপিআই সহ অন্যান্য বেশ কয়েকটি দল আলোচনার পর বিলটিকে সিলেক্ট কমিটির কাছে পাঠানোর আবেদন করে । তাদের আবেদন খারিজ করে দেওয়া হলে কংগ্রেসসহ অধিকাংশ বিরোধী দল লোকসভা অধিবেশন বয়কট করে । তবে মিমি সহ কয়েকটি বিজেপি বিরোধী দল ভোটাভুটিতে অংশ নেয় এবং এই বিলের কয়েকটি ধারা সংশোধনের আবেদন করে । তাদের আবেদনও খারিজ হয়ে যায় ।

লোকসভায় পাশ হওয়ার পর এবার রাজ্যসভায় তা পাশ হয়ে গেলে ফৌজদারি অপরাধের তকমা পাবে তাৎক্ষণিক তিন তালাক। অভিযুক্তর তিনবছরের জেল ও জরিমানা হবে।  স্ত্রীকে ক্ষতিপূরণ দিতে রাজি হলে তবেই ম্যাজিস্ট্রেট মনে করলে স্বামী জামিন পাবেন। নতুন আইনে আত্মীয় ছাড়া পাড়া-প্রতিবেশী অভিযোগ দায়ের করতে পারবে না। নির্যাতিত মহিলা আদালতে নিজের সন্তানের অধিকার দাবি করতে পারবেন। এবং স্ত্রীর কথা শোনার পর তবেই স্বামীর জামিন নিয়ে ম্যাজিস্ট্রেট সিদ্ধান্ত নিতে পারবেন।

চলতি বছরের সেপ্টেম্বরে তাৎক্ষণিক তিন তালাক নিয়ে অর্ডিন্যান্স আনে কেন্দ্রীয় সরকার। আজ অর্ডিন্যান্সের বদলে কেন্দ্রীয় আইনমন্ত্রী রবিশংকর প্রসাদ তিন তালাক নিয়ে বিল পেশ করেন লোকসভায়। যদিও বিরোধীরা বিলটিকে জয়েন্ট সিলেক্ট কমিটিতে পাঠানোর দাবিতে সরব হন। কংগ্রেসের বক্তব্য, তাৎক্ষণিক তিন তালাক দেওয়াকে ফৌজদারি অপরাধ বলার বিরোধী। তাদের আরও বক্তব্য, কোনও ধর্মের ক্ষেত্রে এই বিল প্রযোজ্য নয়। এই বিল এনে ধর্মীয় ব্যাপারে নাক গলিয়েছে সরকার, যা উচিত নয়।

যদিও, সরকারের তরফে জানানো হয়, গত বছরই সুপ্রিম কোর্ট তাৎক্ষণিক তিন তালাক প্রথাকে অসাংবিধানিক ও বেআইনি বলেছিল। রবিশংকর প্রসাদ বলেন, “বিলটি কোনও সম্প্রদায়, ধর্ম বা বিশ্বাসের বিরুদ্ধে নয়। এই বিলটি মহিলাদের অধিকার এবং বিচার পাওয়ার জন্য নিয়ে আসা হয়েছে।”

লোকসভায় কংগ্রেসের দলনেতা মল্লিকার্জুন খাড়গে বলেন, “এই বিল খুবই গুরুত্বপূর্ণ। বিস্তারিত অধ্যয়নের প্রয়োজন। এটা আবার সংবিধানের বিষয়ও। তাই আমি সরকারের কাছে অনুরোধ করছি বিলটি জয়েন্ট সিলেক্ট কমিটিতে পাঠানোর জন্য।”

তৃণমূল সাংসদ সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, “আমরাও অনুরোধ করছি বিলটি জয়েন্ট সিলেক্ট কমিটিতে পাঠানোর জন্য। সব বিরোধীদের একই মত।” জবাবে রবিশংকর প্রসাদ বলেন, “বিশ্বের ২০টি মুসলিম দেশ তাৎক্ষণিক তিন তালাকে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে। তাহলে ভারতের মতো ধর্মনিরপেক্ষ দেশে কেন করা হবে না? বিষয়টিকে রাজনীতির দৃষ্টিভঙ্গি দিয়ে দেখা উচিত নয়।”


শেয়ার করুন
  • 48
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment