দেশ 

উত্তরপ্রদেশের হাথরাসে সৎসঙ্গের অনুষ্ঠানে পদপিষ্ট হয়ে ১২১ জনের মৃত্যুর ঘটনায় বিচার বিভাগীয় তদন্তের নির্দেশ যোগীর!

শেয়ার করুন

বাংলার জনরব ডেস্ক : উত্তরপ্রদেশের হাথরাসে সৎসঙ্গের অনুষ্ঠানে পদপিষ্ট হয়ে ১২১ জনের মৃত্যুর ঘটনায় কড়া পদক্ষেপের ইঙ্গিত দিলেন মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথের। এই ঘটনা পরিকল্পিত ষড়যন্ত্র হতে পারে বুধবার আশঙ্কা প্রকাশ করলেন মুখ্যমন্ত্রী। ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে সংবাদমাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে যোগী বলেন, গোটা ঘটনায় উচ্চপর্যায়ের তদন্ত কমিটি গঠন করছে রাজ্য সরকার। যার নেতৃত্বে থাকবেন হাইকোর্টের প্রাক্তন বিচারপতি।

বুধবার সকালে হাথরাসের দুর্ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ (Yogi Adityanath)। সেখানেই তিনি বলেন, ‘গতকালের দুর্ঘটনায় ১২১ জনের মৃত্যু হয়েছে। পাশাপাশি আহত হয়েছেন ১২৫ জন। উত্তরপ্রদেশের (Uttar Pradesh) হাথরাস, বদায়ু, ইটা, ললিতপুর, মথুরা, পিলিভিট, লখিমপুর খেড়ি-সহ ১৬ টি এলাকার মানুষ এই দুর্ঘটনায় ক্ষতিগ্রস্ত। এছাড়া মধ্যপ্রদেশ, হরিয়ানা ও রাজস্থানের একাধিক মানুষ প্রাণ হারিয়েছেন এই ঘটনায়।’ এর পরই কড়া পদক্ষেপের বার্তা দিয়ে যোগী বলেন, “এ ধরনের ঘটনাকে নিছক দুর্ঘটনা বলা যায় না। যদি নিছক দুর্ঘটনা হয়, তবে তার জন্য দায়ী কে? যদি পরিকল্পিতভাবে ঘটানো হয়ে থাকে তবে কে এই ষড়যন্ত্র রচনা করেছে? সব তদন্ত হবে। প্রাক্তন বিচারপতির নেতৃত্বে তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। আজই এর বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হবে।”

Advertisement

একইসঙ্গে যোগী বলেন, যে বা যারা এই ঘটনায় দোষী তাদের কেউ ছাড় পাবে না। এই ধরনের ঘটনা যাতে দ্বিতীয়বার ঘটানোর সাহস কেউ না পায় তা নিশ্চিত করবে সরকার। ইতিমধ্যেই তদন্তের প্রাথমিক রিপোর্ট আমি পেয়েছি। তবে প্রতিটি দিক খতিয়ে দেখে গভীর তদন্ত হবে গোটা ঘটনার। এছাড়া পুলিশ আধিকারিকদের নির্দেশ দেন, এই অনুষ্ঠানের আয়োজককে ডেকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হোক এবং অপরাধীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিন।’ দুর্ঘটনার পর যে প্রমাণ লোপাটের চেষ্টা হয়েছে সে কথাও স্বীকার করে নেন যোগী। বলেন, ‘অত্যন্ত দুঃখজনক বিষয় হল দুর্ঘটনার পর প্রমাণ লোপাটের চেষ্টা করেছে সেবাদাররা। এমনকি পুলিশকেও ভেতরে ঢুকতে দেওয়া হয়নি। পরে প্রশাসন সেখানে ঢুকে আহতদের হাসপাতালে নিয়ে যায়।’

এদিকে দুর্ঘটনার প্রাথমিক তদন্তে জানা যাচ্ছে, উন্মুক্ত প্রাঙ্গনে আয়োজিত ওই সৎসঙ্গে ৮০ হাজার লোকের জমায়েতের অনুমতি নেওয়া হলেও, সেখানে যোগ দেন আড়াই লক্ষের বেশি অনুগামী। অনুষ্ঠানের শেষে কাতারে কাতারে ভক্তরা ছুটে যান ভোলে বাবার পায়ের ধুলো ও আশীর্বাদ নিতে। আর তাতেই ঘটে যায় বিপত্তি। ভিড়ের চাপে পদপিষ্ট হয়ে প্রাণ হারান ১২১ জন। এই ঘটনায় মৃতদের পরিবার পিছু ২ লক্ষ টাকা এবং আহতদের চিকিৎসার জন্য মাথাপিছু ৫০ হাজার টাকা ক্ষতিপূরণের ঘোষণা করেছে উত্তরপ্রদেশ সরকার।


শেয়ার করুন

সম্পর্কিত নিবন্ধ