কলকাতা 

শপথ গ্রহণের দাবিতে বিধানসভার লবিতে ধরনায় বসলেন রায়াত ও সায়ন্তিকা

শেয়ার করুন

বাংলার জনরব ডেস্ক : ভগবানগোলা ও বরনগর বিধানসভার উপনির্বাচনে জয়ী তৃণমূল প্রার্থীদের বিধায়ক হিসেবে শপথ গ্রহণ করার ক্ষেত্রে রাজ্যপালের আপত্তি নিয়ে তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করেছে তৃণমূল। এদিকে অবিলম্বে শপথ গ্রহণ করাতে হবে এই দাবিতে বিধানসভায় ধরনায় বসেছেন দুই ভাবি বিধায়ক।তাঁদের সঙ্গে ধর্নায় যোগ দিয়েছেন পরিষদীয় মন্ত্রী শোভনদেব চট্টোপাধ্যায়ও। সায়ন্তিকা এবং রায়াতের পাশে প্ল্যাকার্ডে লেখা, ‘‘শপথের জন্য মাননীয় রাজ্যপালের আসার অপেক্ষায় রয়েছি।’’

এই সংঘাতের আবহে বিধানসভার স্পিকার বিমান বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছেন, ‘‘সংবিধানের স্রষ্টা বিআর অম্বেডকর বলেছিলেন, মধ্য মেয়াদে যদি কেউ বিধায়ক হন, তা হলে তাঁকে শপথবাক্য পাঠ করাতে পারেন বিধানসভার স্পিকার।’’ বিমান জানিয়েছেন, যে জটিলতা তৈরি হয়েছে, তা নিয়ে তিনি আইনজ্ঞদের পরামর্শ নিচ্ছেন। প্রয়োজনে রাষ্ট্রপতির কাছেও তিনি যাবেন।

Advertisement

মঙ্গলবার সকাল থেকেই সায়ন্তিকা এবং রায়াতের শপথ নিয়ে সরগরম বাংলার রাজনীতি। এক দিকে রাজ্যপাল চান, সায়ন্তিকারা রাজভবনে গিয়ে তাঁর কাছে শপথ পাঠ করুন। অন্য দিকে, সায়ন্তিকাদের বক্তব্য, তাঁরা রাজভবনে যাবেন না। কারণ হিসাবে জানিয়েছেন, প্রথমত, রাজভবন তাঁদের ভবিষ্যতের কর্মক্ষেত্র নয়। তাঁদের কাজ করতে হবে বিধানসভায়। আর রাজভবন থেকে সেই বিধানসভার স্পিকারকে অপমান করা হয়েছে। তাই তাঁরা কোনও ভাবেই সেখানে শপথ পাঠ করতে যাবেন না। মঙ্গলবার বেলা থেকে শুরু হওয়া এই ঘটনাপ্রবাহের শেষ দফায় বিধানসভার স্পিকারের কাছেই পরামর্শ চাইতে এসেছিলেন সায়ন্তিকারা। দীর্ঘ আড়াই ঘণ্টা তাঁদের কথা হয় বিধানসভায় বিমানের ঘরে। তার পরে বেরিয়ে নিজেদের সিদ্ধান্তের কথা জানান।

ঘটনার সূত্রপাত, দিন কয়েক আগে। তৃণমূল অভিযোগ করে, রাজভবনের সবুজ সঙ্কেত না-পাওয়ায় ভোটে জিতেও শপথ নিতে পারছেন না বরাহনগরের বিধানসভা উপনির্বাচনে জয়ী তৃণমূল প্রার্থী সায়ন্তিকা এবং ভগবানগোলা বিধানসভা কেন্দ্রের উপনির্বাচনে জয়ী তৃণমূলের রায়াত। বিষয়টি নিয়ে বিতর্ক শুরু হতেই রাজভবনের তরফে ব্যক্তিগত ভাবে চিঠি পাঠিয়ে শপথ নিতে আসতে বলা হয় সায়ন্তিকা এবং রায়াতকে। যদিও বিধানসভার স্পিকারকে এ বিষয়ে কিছু জানায়নি রাজভবন। পরে বিধানসভার সচিবালয়ের কাছ থেকে বিধায়ক সংক্রান্ত কিছু তথ্য চেয়ে পাঠায় রাজভবন। এতেই ক্ষুব্ধ হন বিধানসভার স্পিকার বিমান। তিনি ২০ জুন একটি চিঠি দিয়ে রাজ্যপালকে সাংবিধানিক নিয়ম স্মরণ করিয়ে দেন। অন্য দিকে, সায়ন্তিকারাও চিঠি দিয়ে রাজ্যপালকে জানিয়ে দেন, তাঁরা রাজভবনে নয়, বিধানসভায় স্পিকারের কাছেই বিধায়ক হওয়ার শপথ নিতে চান। সোমবার পর্যন্ত বিষয়টি এখানেই থমকে ছিল।


শেয়ার করুন

সম্পর্কিত নিবন্ধ