কলকাতা 

বরানগরের সিপিএম প্রার্থীর সঙ্গে তৃণমূল কাউন্সিলরের হাতাহাতি!

শেয়ার করুন

বাংলার জনরব ডেস্ক : শেষ দফার নির্বাচনের দিন অশান্তি কুলতলী থেকে ভাঙ্গড় ভাঙ্গর থেকে বরানগর দেখা গেল। বরানগর বিধানসভার উপনির্বাচনের জন্য ওই কেন্দ্রের সিপিএম প্রার্থী তন্ময় ভট্টাচার্য বুথ পরিদর্শনে গেলে স্থানীয় কাউন্সিলরের সঙ্গে তর্কাতর্কি থেকে হাতাহাতি শুরু হয়ে যায়।

Advertisement:

Advertisement

শনিবার বরাহনগর বিধানসভা কেন্দ্রের উপনির্বাচনে সিপিএম প্রার্থী তন্ময় ভট্টাচার্য ব্রহ্মানন্দ কেশবচন্দ্র কলেজের ভোটগ্রহণ কেন্দ্রে গিয়েছিলেন। সেখানেই বরাহনগরের ১৪ নম্বর ওয়ার্ডের তৃণমূল কাউন্সিলর শান্তনু মজুমদারের সঙ্গে হাতাহাতি হয় তাঁর। দু’জনকে নিরস্ত করতে দৌড়ে আসেন দু’দলের কর্মী-সমর্থকেরা।

তন্ময়ের অভিযোগ, তিনি বনহুগলি এলাকার ওই বুথ পরিদর্শনে গিয়েছিলেন। কিন্তু তাঁকে দেখেই নাকি ‘চোর-চিটিংবাজ’ বলে চিৎকার করেন কাউন্সিলর এবং তাঁর অনুগামীরা। সিপিএম প্রার্থীর কথায়, “আমায় দেখে কাউন্সিলর বললেন, আপনি এখানে কেন? আমি পাল্টা বললাম আমি তো প্রার্থী, কিন্তু আপনি এখানে কেন? বলছে চোর-চিটিংবাজ। এখান থেকে চলে যান। বললাম, কী চিটিংবাজি করেছি? জেল তো খাটছি না। তার পরেই আমাকে ঘিরে নিগ্রহ করল।” এই বিষয়ে কাউন্সিলরের বক্তব্য অবশ্য এখনও জানা যায়নি।

স্থানীয়দের একাংশের বক্তব্য, তন্ময়কে বুথে ঢুকতে দেখেই এগিয়ে আসেন কাউন্সিলর। তন্ময়ের উদ্দেশে প্রশ্ন করেন, “এখানে এসেছেন কেন?” ভিডিয়োয় দেখা যায়, বাদানুবাদের মধ্যে তন্ময় কাউন্সিলরকে ঠেলে দেন। পাল্টা তন্ময়কে ঠেলে দেন কাউন্সিলারও। দু’পক্ষের মধ্যে ধস্তাধস্তি শুরু হয়ে যায়।

তবে ধস্তাধস্তির বিষয়টি স্বীকার করে নিয়ে তন্ময় পরে বলেন, “আমি আমার এক বন্ধুর মেয়ের সঙ্গে কথা বলছিলাম। হঠাৎ করে আমার দিকে ওরা তেড়ে এল।” বিষয়টি নির্বাচন কমিশনে জানাবেন বলে জানিয়েছেন বরাহনগরের সিপিএম প্রার্থী। এই প্রসঙ্গে বরাহনগরের তৃণমূল নেতা অঞ্জন পাল বলেন, “তন্ময়বাবু সকাল থেকেই আমাদের কর্মী, বুথ এজেন্টদের প্ররোচিত করার চেষ্টা করে যাচ্ছেন। আমরা খবর পেয়েছি উনি ঘুরপথে বিজেপি প্রার্থী সজল ঘোষকে মদত দেওয়ার চেষ্টা করছেন। আমরা তাঁর সেই অভিসন্ধি ধরে ফেলায় তন্ময়বাবু এই কদর্য আচরণ করলেন। কিন্তু আমাদের কর্মীরা মাথা ঠান্ডা রেখে, সংযত আচরণ করে তাঁকে জবাব দিয়েছেন।”


শেয়ার করুন

সম্পর্কিত নিবন্ধ