জেলা 

মগরাহাটে নাবালিকা ধর্ষণের অভিযোগে বিবস্ত্র করে বিজেপি প্রধানকে মার জনতার!

শেয়ার করুন

বাংলার জনরব ডেস্ক : লোকসভা ভোটের আগে চাঞ্চল্যকর ঘটনা ঘটে গেল মগরাহাটে। মগরাহাট থানার উড়াল চাঁদপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান রাকেশকে নাবালিকা ধর্ষণের অভাবে অভিযোগে বিবস্ত্র করে ল্যাম্পপোস্টে বেধে বেধড়ক মারধর করল স্থানীয় জনতা।

দক্ষিণ ২৪ পরগনার জয়নগর লোকসভা কেন্দ্রের অন্তর্গত মগরাহাট পূর্ব বিধানসভার উড়েল চাঁদপুর। সেখানকার পঞ্চায়েত প্রধান রাকেশ মণ্ডল এলাকার দাপুটে বিজেপি নেতা হিসাবেই পরিচিত। অভিযোগ, উড়েল চাঁদপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের বিজেপির পঞ্চায়েত প্রধান রাকেশ শুক্রবার রাতে এলাকারই এক নাবালিকাকে বাগানে নিয়ে গিয়ে ধর্ষণ করেন। নাবালিকা চিৎকারে আশপাশের লোকজন ছুটে আসেন। স্থানীয়দের দাবি, তখনই হাতেনাতে ধরা পড়ে যান রাকেশ। এর পর তাঁকে বিবস্ত্র করে ল্যাম্পপোস্টে বেঁধে মারধর করা হয় বলে অভিযোগ।  ঘটনার খবর পেয়ে মগরাহাট থানার পুলিশ বিজেপির পঞ্চায়েত প্রধানকে উদ্ধার করে।

Advertisement

আহত অবস্থায় রাকেশকে প্রথমে মগরাহাট গ্রামীণ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। অবস্থার অবনতি হওয়ায় রাকেশকে ডায়মন্ড হারবার গভর্নমেন্ট মেডিকেল কলেজ এবং হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হয়। নাবালিকার পরিবারের পক্ষ থেকে মগরাহাট থানায় বিজেপির পঞ্চায়েত প্রধানের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।

Advertisement:

তবে ধর্ষণের অভিযোগ মানতে চায়নি রাকেশের পরিবার। অভিযুক্তের পরিবারের দাবি, রাতে দলের কাজ সেরে বাড়ি ফেরার পথে রাকেশকে ল্যাম্পপোস্টে বেঁধে মারধর করা হয়। তাদের দাবি, রাজনৈতিক কারণে ধর্ষণের অভিযোগ করা হচ্ছে, আসলে এ সব কিছুই ঘটেনি। পুলিশ জানিয়েছে, বিজেপির পঞ্চায়েত প্রধানের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ দায়ের করেছে নাবালিকার পরিবার। নাবালিকার মেডিকেল টেস্ট করানোর পাশাপাশি অভিযোগের ভিত্তিতে তদন্তও শুরু করা হয়েছে।


শেয়ার করুন

সম্পর্কিত নিবন্ধ