কলকাতা 

বাতিল এসএসসির ২০১৬ এর প্যানেল ! লোকসভা ভোটের মুখে তৃণমূলের কাছে অশনি সংকেত

শেয়ার করুন

বাংলার জনরব ডেস্ক : দীর্ঘ কয়েক বছর ধরে চলা ২০১৬ এর স্কুল সার্ভিস কমিশনের নিয়োগ দুর্নীতির মামলার চূড়ান্ত রায়দান করল আজ কলকাতা হাইকোর্ট। সোমবার এসএসসির মামলার রায় ঘোষণা করতে গিয়ে কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি দেবাংশু বসাক ও বিচারপতি মোহাম্মদ সব্বার রশিদির ডিভিশন বেঞ্চ ২০১৬ এর সালে নিয়োগ প্রক্রিয়ার যে প্যানেল তৈরি হয়েছিল পুরো প্যানেলটিকে বাতিল করে দিলেন। তবে একমাত্র ক্যান্সার আক্রান্ত সোমা দাসের চাকরি থাকবে বলে কলকাতা হাইকোর্ট তার রায়ে উল্লেখ করেছে। এর ফলে বাতিল হয়ে গিয়েছে ২৫ হাজার ৭৫৩ জনের চাকরি। আদালত জানিয়েছে, এসএসসি প্যানেলের মেয়াদ শেষ হওয়ার পরেও যাঁরা চাকরি পেয়েছেন, তাঁদের সুদ-সহ বেতন ফেরত দিতে হবে। সুদের হার হবে বছরে ১২ শতাংশ। চার সপ্তাহের মধ্যে বেতন ফেরত দিতে বলেছে আদালত। লোকসভা ভোটের মাঝে এসএসসি মামলার এই রায় রাজ্য সরকারের কাছে বড় ধাক্কা বলেই মনে করা হচ্ছে।

এসএসসির নিয়োগ প্রক্রিয়ার অনেক ওএমআর শিট বা উত্তরপত্র স্কুল সার্ভিস কমিশনের ওয়েবসাইটে ইতিমধ্যে আপলোড করা হয়েছে। যেগুলি এখনও আপলোড করা হয়নি, সেগুলি দ্রুত আপলোড করার নির্দেশ দিয়েছে আদালত। উত্তরপত্র যাতে জনগণ যাতে দেখতে পান, সেই ব্যবস্থাও করতে হবে কমিশনকে। একইসঙ্গে আদালত জানিয়েছে, এই মামলার তদন্ত চালিয়ে যাবে সিবিআই। অতিরিক্ত শূন্যপদ তৈরির জন্য চাইলে সন্দেহভাজনদের হেফাজতে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদও করতে পারবে কেন্দ্রীয় সংস্থা।

Advertisement

গত কয়েক বছরে বাংলার রাজনীতিতে আলোড়ন ফেলে দিয়েছে এসএসসি নিয়োগ ‘দুর্নীতি’ মামলা। এই মামলায় প্রথমে হাই কোর্টের তৎকালীন বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায় চাকরি বাতিলের নির্দেশ দিয়েছিলেন। ডিভিশন বেঞ্চেও সেই নির্দেশ বহাল থাকে। এর পর মামলা গিয়েছিল সুপ্রিম কোর্টে। সেখান থেকে মামলাগুলি হাই কোর্টে আবার ফেরত পাঠানো হয়। মে মাসের মধ্যে হাই কোর্টের বিশেষ বেঞ্চকে শুনানি শেষ করে রায় ঘোষণা করতে বলেছিল শীর্ষ আদালত। সাড়ে তিন মাসের মধ্যে শুনানি শেষ হয়ে গিয়েছে। সোমবার রায় ঘোষণা করল আদালত। ২৮১ পৃষ্ঠার রায় আদালতে পড়ে শোনান বিচারপতি বসাক।

তবে জানা গেছে রাজ্য সরকার ইতিমধ্যে সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হতে চলেছে। অন্যদিকে সরকারের পক্ষ থেকে নজর রাখা হয়েছে যে সকল শিক্ষক শিক্ষিকার চাকরি বাতিল হয়েছে তাঁরা আলাদাভাবে সুপ্রিম কোর্টে যাচ্ছেন কিনা। সব মিলিয়ে আজকের এই দায় নিঃসন্দেহে মমতা সরকারকে অনেকটাই চাপে রাখল এবং লোকসভা নির্বাচনের মুখে এই রায়ের ফলে বিরোধীদের অনেকটা সুবিধা হবে বলে রাজনৈতিক মহল মনে করছে।


শেয়ার করুন

সম্পর্কিত নিবন্ধ