দেশ 

বিকশিত ভারতে ৮১ কোটি মানুষকে বিনামূল্যে রেশন দেওয়ার প্রতিশ্রুতি বিজেপির

শেয়ার করুন

বাংলার জনরব ডেস্ক : প্রথম দফার নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার চার দিন আগে ঢাকঢোল পিটিয়ে ইশতেহার প্রকাশ করল বিজেপি। অথচ সপ্তাহখানেক আগেই জাতীয় কংগ্রেস তাদের ইশতেহার প্রকাশ করেছে। এবার বিজেপি তার ইস্তেহারের নাম দিয়েছে সংকল্প পত্র যাকে মোদির গ্যারান্টি বলে চালানো হচ্ছে। কিন্তু মোদির গ্যারান্টি প্রথমেই দেখা যাচ্ছে ২০৪৭ সালের দেশ বিকশিত ভারতে পরিণত হবে। সেই দেশের একাশি কোটি নাগরিককে আরো পাঁচ বছরের জন্য বিনামূল্যে রেশন দেয়া হবে বলে মোদির গ্যারান্টিতে প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয়েছে। এখন প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে যে দেশের প্রধানমন্ত্রী গর্ব করে দাবি করছে ১০ বছরে গরিবি অনেকটাই কমে গেছে সেই দেশের নাগরিকদের কেন আবারো পাঁচ বছরের জন্যে বিনামূল্যে রেশন দিতে হচ্ছে?

তা ছাড়াও বিজেপির ইস্তাহারে দেওয়া প্রতিশ্রুতি উদ্ধৃত করে মোদী জানান, দল তৃতীয় বারের জন্য কেন্দ্রে ক্ষমতায় এলে ‘আয়ুষ্মান ভারত’ প্রকল্পের আওতায় সত্তরোর্ধ্ব সমস্ত মানুষ পাঁচ লক্ষ টাকা পর্যন্ত বিনামূল্যে চিকিৎসা পাবেন। তিনি এ-ও জানান যে, ‘প্রধানমন্ত্রী সূর্য ঘর ফ্রি ইলেকট্রিসিটি স্কিম’ প্রকল্পে বিনামূল্যে বিদ্যুৎ পরিষেবা পাওয়ার পাশাপাশি বিদ্যুৎ বিক্রির সুযোগও থাকবে। মুদ্রা যোজনা প্রকল্পে ঋণ নেওয়ার সর্বোচ্চ সীমা ১০ লক্ষ থেকে বাড়িয়ে ২০ লক্ষ টাকা করার কথা প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন মোদী। এই প্রকল্পে কোটি কোটি দেশবাসীকে উদ্যোগপতি করেছে বলে জানান প্রধানমন্ত্রী।

Advertisement

বন্দে ভারত নিয়েও বড় ঘোষণা করেছেন মোদী। বলেছেন, “বন্দে ভারত স্লিপার, বন্দে ভারত চেয়ারকার এবং বন্দে ভারত মেট্রো দেশের প্রতিটি কোণায় ছড়িয়ে দেবে বিজেপি।” আমদাবাদ-মুম্বই বুলেট ট্রেনের কাজও পূর্ণ উদ্যমে চলছে বলে জানান তিনি। রবিবার দেশবাসীর উদ্দেশে মোদীর ‘গ্যারান্টি’, উত্তর ভারত, দক্ষিণ ভারত এবং পূর্ব ভারতে একটি করে বুলেট ট্রেন চলবে। তার সমীক্ষার কাজও শুরু হয়ে গিয়েছে বলে জানিয়েছেন তিনি।

বিজেপির প্রতিশ্রুতিতে আলাদা করে গুরুত্ব পেয়েছে মহিলা এবং কৃষকদের কথা। কৃষকদের ন্যায্য সহায়ক মূল্য (এমএসপি)-এর আইনি নিরাপত্তা, তাঁদের ১০০ দিনের কাজের প্রকল্পে যুক্ত করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন তিনি। আবাস যোজনা প্রকল্পে দেশে আরও তিন কোটি পাকা বাড়ি তৈরির প্রতিশ্রুতিও দিয়েছেন তিনি।

বিজেপির ‘সঙ্কল্পপত্রে’ এক দেশ এক ভোট, অভিন্ন দেওয়ানি বিধি, ২০৩৬ সালে অলিম্পিক্স আয়োজনের জন্য দরপত্র আহ্বানের কথা বলা হলেও মোদীর ভাষণে গুরুত্ব পেয়েছে জনমুখী প্রকল্প সংক্রান্ত গবেষণাই। ২০২৫ সালকে ‘জনজাতি গৌরব বর্ষ’ হিসাবে পালন করার প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয়েছে। দেশের জনজাতি ভোটের কথা মাথায় রেখেই এই সিদ্ধান্ত বলে মনে করা হচ্ছে। বক্তব্যের শেষে দুর্নীতিগ্রস্তদের বিরুদ্ধে কঠোর পদক্ষেপ করার প্রতিশ্রুতি দেন মোদী। বিজেপির ইস্তাহারেও দেশে নিয়োগ দুর্নীতি রুখতে কঠোর আইন আনার প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয়েছে।

রবিবার সকালে ইস্তাহার প্রকাশের অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জেপি নড্ডা, ইস্তাহার কমিটির প্রধান তথা কেন্দ্রীয় প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিংহ, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ, অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন-সহ বিজেপির অন্য শীর্ষনেতারা।


শেয়ার করুন

সম্পর্কিত নিবন্ধ