দেশ 

ভারতকে হিন্দু দেশ হিসাবে ঘোষণা করার আর্জি বিচারপতির , সমগ্র দেশজুড়ে বির্তক

শেয়ার করুন
  • 1
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলার জনরব ডেস্ক : সম্প্রতি মেঘালয় হাইকোর্টের এক বিচারপতির রায় ঘিরে তৈরি হয়েছে বিতর্ক। রায়ে তিনি লিখেছেন, “ভারতকে “হিন্দু দেশ” ঘোষণা করা উচিত।” যুক্তিস্বরূপ এস আর সেন নামে ওই বিচারপতি বলেছেন, “পাকিস্তান নিজেদের মুসলিম দেশ ঘোষণা করেছে। তাই ভারতকেও হিন্দু দেশ ঘোষণা করা উচিত।”

নির্দেশনামায় তাঁর বক্তব্য, “ভারতকে আরও একটা মুসলিম দেশে পরিণত করা উচিত নয়। তাহলে সেটা হবে ডুমস ডে(জাজমেন্ট ডে)। আমি বিশ্বাস করি, শুধুমাত্র নরেন্দ্র মোদিজির নেতৃত্বে এই সরকারই এর গুরুত্ব বুঝতে পারবে। এবং আমার অনুরোধ অনুযায়ী ব্যবস্থা নেবে। জাতীয় স্বার্থে আমাদের মুখ্যমন্ত্রী মমতাজিও বিষয়টিকে সমর্থন করবেন।”

তবে তাঁর বক্তব্য নিয়ে যাতে কোনও বিতর্ক না হয় সেজন্য নিজের অবস্থানও স্পষ্ট করে দিয়েছেন বিচারপতি সেন। তিনি বলেছেন, “যেসব মুসলিম ভাই-বোনেরা প্রজন্মের পর প্রজন্ম ধরে এদেশে বসবাস করছেন এবং ভারতীয় আইন-কানুন মেনে চলেছেন, আমি তাঁদের বিরোধী নই। এখানে তাঁদের শান্তিপূর্ণভাবে বসবাস করতে দেওয়া উচিত।”

বিচারপতি সেনের এই বক্তব্য ঘিরে বিতর্ক তৈরি হয়েছে। সচেতন নাগরিক এর বিরুদ্ধে মত প্রকাশ করেছেন । তাঁদের মতে হিন্দত্ববাদীরা এখন আদালতে প্রভাব বিস্তার করেছে । বিচারপতি সেনের এই ধরনের মন্তব্য তা স্পষ্ট হয়েছে ।

হায়দরাবাদের সাংসদ আসাদউদ্দিন ওয়েইসি বলেছেন, “ভারত মুসলিম দেশ হবে না। ভারত একটি ধর্মনিরপেক্ষ দেশই থাকবে।” তিনি আরও বলেন , “এটা কী ধরনের বিচার? বিচারব্যবস্থা এবং সরকার কি এর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবে?” বিচারপতি সেনের বিরুদ্ধে তিনি ঘৃণা ছড়ানোর অভিযোগ তুলেছেন।

বিচারপতি সেন অবশ্য তাঁর রায়ে প্রধানমন্ত্রী, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, আইনমন্ত্রী এবং সাংসদদের কাছে অনুরোধ জানিয়েছেন, এমন একটা আইন আনা হোক যাতে হিন্দু, শিখ, জৈন, বৌদ্ধ, পার্সি, খ্রিস্টান, গারো, খাসি এবং জয়ন্তিয়া, যাঁরা পাকিস্তান, বাংলাদেশ এবং আফগানিস্তান থেকে এসেছেন তাঁদের এদেশে শান্তিতে এবং পূর্ণ মর্যাদায় বাস করতে দেওয়া উচিত। কোনও প্রশ্ন বা নথি ছাড়াই ভারতীয় নাগরিকত্ব দেওয়া উচিত।

 


শেয়ার করুন
  • 1
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment