দেশ 

আর্থিক দুর্নীতির জন্য কেন্দ্রীয় তদন্তকারী এজেন্সির নজরে থাকা ২৫ বিরোধী নেতা বিজেপি বা এনডিএ তে যোগ দেওয়ার পরেই ২৩ জনের মামলা ঠান্ডা ঘরে, বিরোধীদের ওয়াশিং মেশিন তত্ত্ব স্বীকৃতি পেল?

শেয়ার করুন

বাংলার জনরব ডেস্ক :  লোকসভা ভোটের মুখে সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে নির্বাচনী বন্ড সামনে আসার পরেই এবার দেশের জনপ্রিয় ইংরেজি দৈনিক পত্রিকা ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস এ প্রকাশিত এক সংবাদ প্রতিবেদনকে ঘিরে চাঞ্চল্য তৈরি হয়েছে। দুর্নীতি বিরুদ্ধে অভিযান চালানোর নামে ২০১৪ সালে ভারতের প্রধানমন্ত্রী পদে বসার পর থেকে এ পর্যন্ত বিভিন্ন আর্থিক দুর্নীতির সঙ্গে যুক্ত থাকার অভিযোগ এবং কেন্দ্রীয় সংস্থার নজরে থাকা মোট 25 জন বিরোধী নেতা নেত্রী হয় বিজেপি নয় বিজেপি দলের শরিক কোন আঞ্চলিক দলের সঙ্গে যোগ দেওয়ার পরেই তারা দুর্নীতি মামলা থেকে অনেকটাই রেহাই পেয়েছেন। ওই সংবাদ প্রতিবেদনের মতে ২৫ জনের মধ্যে ২৩ জন রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বের মামলা ঠান্ডা ঘরে পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে।

ওই প্রতিবেদনে তথ্য প্রমাণ সহ তুলে ধরে বলা হয়েছে, বিজেপি বা তাদের নেতৃত্বাধীন জোটে যোগ দেওয়ার পরে ওই ২৫ জনের মধ্যে ২৩ জনই কেন্দ্রীয় সংস্থার তদন্ত থেকে রেহাই পেয়েছেন বলে ওই প্রতিবেদন জানাচ্ছে। এঁদের মধ্যে ৩ জনের বিরুদ্ধে মামলা বন্ধ হয়ে গিয়েছে। ২০ জনের ক্ষেত্রে তদন্ত চলে গিয়েছে ‘হিমঘরে’।

Advertisement

ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসে প্রকাশিত ওই প্রতিবেদনে আর্থিক দুর্নীতি মামলায় কেন্দ্রীয় সংস্থার তদন্তের মুখে পড়া অন্য যে বিজেপিতে (বা এনডিএতে) যোগদানকারী বিরোধী নেতা-নেত্রীদের নাম রয়েছে তাঁর হলেন, অজিত পওয়ার (এনসিপি), প্রফুল্ল পটেল (এনসিপি), প্রতাপ সরনায়েক (শিবসেনা), হিমন্ত বিশ্বশর্মা (কংগ্রেস), হাসান মুশরিফ (এনসিপি), ভাবনা গাওলি (শিবসেনা), যামিনী এবং যশবন্ত যাদব (শিবসেনা), সিএম রমেশ (টিডিপি), রনিন্দর সিংহ (কংগ্রেস, পঞ্জাবের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী অমরিন্দরের পুত্র), সঞ্জয় শেঠ (এসপি), কে গীতা (ওয়াইএসআরসিপি), ছগন ভুজবল (এনসিপি), কৃপাশঙ্কর সিংহ (কংগ্রেস), দিগম্বর কামথ (কংগ্রেস), অশোক চহ্বাণ (কংগ্রেস), নবীন জিন্দল (কংগ্রেস), অর্চনা পাটিল (কংগ্রেস), গীতা কোড়া (কংগ্রেস), বাবা সিদ্দিকি (কংগ্রেস), জ্যোতি মির্ধা (কংগ্রেস) এবং সুজনা চৌধরি (টিডিপি)।

কংগ্রেস, তৃণমূল, সিপিএম-সহ বিরোধীরা গত এক দশকে বারে বারেই বিজেপির বিরুদ্ধে ‘ওয়াশিং মেশিন’ রাজনীতির অভিযোগ তুলেছে। রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের একাংশের মতে, প্রকাশিত প্রতিবেদনে দেওয়া তথ্য মোদী সরকারের বিরুদ্ধে কেন্দ্রীয় সংস্থাকে রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে অপব্যবহারের অভিযোগ আরও জোরালো করেছে।

দুর্নীতির অভিযোগ ওঠার পরে পদ্মশিবিরে শামিল হওয়া নেতাদের তালিকায় আছেন কংগ্রেসের ১০ নেতা, এনসিপি এবং শিবসেনার চার জন, তৃণমূলের তিন, টিডিপির দু’জন নেতা। সমাজবাদী পার্টি (এসপি) এবং ওয়াইএসআরসিপি-র এক জন করে নেতা। তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দেওয়া তিন নেতাই পশ্চিমবঙ্গের—শোভন চট্টোপাধ্যায়, শুভেন্দু অধিকারী এবং তাপস রায়। তাঁদের মধ্যে শেষ দু’জন এখনও বিজেপিতেই রয়েছেন।

প্রকাশিত প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, রাজ্যের প্রাক্তন মন্ত্রী তথা অধুনা বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু ২০১৬-য় নারদ মামলায় অভিযুক্ত। কলকাতার প্রাক্তন মেয়র শোভনের বিরুদ্ধেও রয়েছে নারদ মামলা। ২০১৮ সালে বিজেপিতে যোগ দেওয়া শোভন ২০২১ সালের মে মাসে মোদীর দল ছাড়ার পরেই গ্রেফতার হয়েছিলেন নারদ মামলায়। ২০২০-তে বিজেপিতে যোগ দেওয়ার পর থেকে শুভেন্দু সেই দলেই রয়েছেন। তাঁকে গ্রেফতারও হতে হয়নি।

অন্য দিকে, চলতি বছরের জানুয়ারিতে বরাহনগরের তৎকালীন তৃণমূল বিধায়ক তাপসের বৌবাজারের বাড়িতে পুর নিয়োগ দুর্নীতির তদন্তে তল্লাশি চালিয়েছিলেন ইডির গোয়েন্দারা। ঘটনাচক্রে, তার দু’মাসের মাথাতেই বিধায়কপদে ইস্তফা দিয়ে বিজেপিতে যোগ দেন তাপস। এ বার লোকসভা ভোটে তিনি উত্তর কলকাতায় ‘পদ্ম’ চিহ্নের প্রার্থী।

 

 


শেয়ার করুন

সম্পর্কিত নিবন্ধ