আন্তর্জাতিক 

জার্মানি ও আমেরিকার পর এবার রাষ্ট্রসংঘ দিল্লির মুখ্যমন্ত্রীর গ্রেফতারি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ!

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলার জনরব ডেস্ক : জার্মানির পর আমেরিকা তীব্র অসন্তোষ ব্যক্ত করেছিল দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়ালের গ্রেফতারি এবং কংগ্রেসের ব্যাংক অ্যাকাউন্ট ফ্রিজ নিয়ে। তাতেই ভারত সরকারের পক্ষ থেকে তীব্র আপত্তি জানানো হয়েছিল। ভারতের বিদেশ দফতরের বক্তব্য হল দেশের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে হস্তক্ষেপ করছে জার্মানি ও আমেরিকা। এই ঘটনার রেশ ৭২ ঘন্টা কাটতে না কাটতেই এবার রাষ্ট্র সংঘ সরাসরি এ বিষয়ে মন্তব্য করে ভারত সরকারকে অস্বস্তিতে ফেলে দিল। রাষ্ট্রসংঘ উদ্বেগ প্রকাশ করে বলেছে,“আমরা আশা রাখছি ভারতে সবার অধিকার সুরক্ষিত থাকবে।”

দিল্লির মুখ্যমন্ত্রীর গ্রেফতারি নিয়ে আগেই মুখ খুলেছে জার্মানি এবং আমেরিকা। জার্মানির বক্তব্য ছিল, “যে কোনও অভিযুক্তের মতোই কেজরিওয়ালও ন্যায্য ও পক্ষপাতহীন বিচারের অধিকারী। কোনও বিধিনিষেধ ছাড়াই তিনি যেন সব ধরনের আইনি রাস্তায় যেতে পারেন। সেটাই আমাদের প্রত্যশা।” একই সুরে ভারতের অভ্যন্তরীণ ইস্যুতে উদ্বেগ প্রকাশ করে আমেরিকাও। মার্কিন বিদেশমন্ত্রক আবার বলে দেয়, কেজরির গ্রেফতারির বিষয়টি তাদের নজরাধীন রয়েছে। আপ সুপ্রিমোর বিচার যেন ন্যায়সঙ্গত, স্বচ্ছ ও সময়োপযোগী হয়।

Advertisement

এবার খোদ রাষ্ট্রসংঘ খানিকটা জার্মানি এবং আমেরিকার সুরে দিল্লির উপর চাপ বাড়ানোর কৌশল নিল। রাষ্ট্রসংঘের মহাসচিব অ্যান্তনিও গুতেরেসের মুখপাত্র স্টিফান ডুজারিচ বললেন,”আমরা ভীষণভাবে আশাবাদী যে ভারত বা যে যে দেশে নির্বাচন হচ্ছে, সেখানেই সবার অধিকার সুরক্ষিত থাকবে। এর মধ্যে যেমন রাজনৈতিক অধিকারের বিষয়টি রয়েছে, তেমনই রয়েছে সামাজিক অধিকার। আমরা চাই, সবাই যেন নির্ভয়ে সুষ্ঠুভাবে ভয়মুক্ত পরিবেশে নিজেদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে পারে।”

উল্লেখ্য, এর আগে জার্মানি এবং আমেরিকা দুই দেশকেই জবাব দিয়েছে ভারত। দেশের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে কোনও হস্তক্ষেপই বরদাস্ত করা হবে না, সাফ জানিয়ে দিয়েছে নয়াদিল্লি। এবার রাষ্ট্রসংঘের এই উদ্বেগ নিয়ে দিল্লি কী পদক্ষেপ করে, সেটাই দেখার।


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ