দেশ 

উড়িষ্যায় নবীনের সঙ্গে জোট করতে ব্যর্থ বিজেপি! ৩৭০ এর উল্লাস কি থেমে যাবে?

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলার জনরব ডেস্ক : ৩৭০ আসনের লক্ষ মাত্রা ধার্য করে বিজেপি লোকসভা নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে চলেছে। এককভাবে তারা ৩৭০ পেতে চায় আর এনডিএ নিয়ে ৪০০ পার করতে চাই। এজন্যই বিভিন্ন রাজ্যের ছোট ছোট রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে জোট করার জন্য তৎপরতা দেখিয়েছে। বিহারে নীতিশ কুমারকে ভাঙিয়ে এনে নিজেদের এনডিএ জোটে সামিল করেছে অন্যদিকে প্রায় কয়েক দশক পর উড়িষ্যার বিজেডিকে এনডিএ জোটে সামিল করার উদ্যোগ নিয়েছিলেন স্বয়ং দেশের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।  তিনি উড়িষ্যার মুখ্যমন্ত্রী নবীন পট্টনায়ক কে বন্ধু বলে সম্মোধন করেছিলেন। কিন্তু শেষ পর্যন্ত উড়িষ্যাতে আসন সমঝোতা হলো না বলেই জানা গেছে।

উড়িষ্যার শাসক দল বিজেডি বিজেপিকে লোকসভায় আটটি আসন এবং বিধানসভায় ৩০ টি বেশি আসন ছাড়তে রাজি  হয়নি। ফলে ভেস্তে গেল জোট প্রক্রিয়া।

Advertisement

শুক্রবার উড়িষ্যার বিজেপি সভাপতি মনমোহন শ্যামল এক্স হ্যান্ডলে লিখেছেন, ‘‘আমরা একক ভাবে রাজ্যের ২১টি লোকসভা এবং ১৪৭টি বিধানসভা কেন্দ্রে লড়ব এবং জিতব।’’ বিজেডির একটি সূত্র জানাচ্ছে, বিহারের মতোই ওড়িশায় বেশি সংখ্যক লোকসভা আসনে লড়তে চেয়েছিল বিজেপি। কিন্তু নবীন রাজি হননি বিহারের মুখ্যমন্ত্রী তথা জেডিইউ প্রধান নীতীশ কুমারের পথে হাঁটতে।

ওই সূত্রের দাবি, লোকসভার বেশি আসনের বিনিময়ে বিজেপি বিধানসভায় দুই-তৃতীয়াংশ আসন ছাড়ার প্রস্তাব দিয়েও নবীনকে রাজি করাতে পারেনি। বর্তমানে ওই রাজ্যে বিজেপির আট সাংসদ ও ২৩ জন বিধায়ক রয়েছেন। সেখানে লোকসভায় বিজেডির আসন সংখ্যা ১২। বিধানসভায় তাদের আসন সংখ্যা ১১২। ফলে সংখ্যার দিক থেকে অনেকটাই এগিয়ে রয়েছে নবীনের দল। বিজেডি নেতৃত্ব আসন সমঝোতা সংক্রান্ত আলোচনায় লোকসভায় বিজেপিকে আটটি এবং বিধানসভায় ৩০টির বেশি আসন ছাড়তে রাজি না হওয়ায় আলোচনা ভেস্তে যায়।

অটলবিহারী বাজপেয়ীয় জমানা থেকে ২০০৯ সাল পর্যন্ত বিজেপি নেতৃত্বাধীন এনডিএ-র সদস্য ছিল বিজেডি। কিন্তু সে বছর কন্ধমাল জেলায় গোষ্ঠীহিংসার ঘটনায় হিন্দুত্ববাদী সংগঠনগুলিকে দুষে বিজেপি-সঙ্গ ছেড়েছিলেন নবীন। যদিও তাতে তাঁর ক্ষমতায় ফেরা আটকায়নি। অন্য দিকে, কংগ্রেসকে পিছনে ফেলে ওড়িশায় প্রধান বিরোধী দল হয়ে উঠেছিল বিজেপি।

বিজেপির একটি সূত্রের খবর, নবীনের হাত ধরার বিষয়ে ওড়িশার বিজেপি নেতাদের একাংশের আপত্তি থাকলেও ‘মিশন ৩৭০’ সফল করার উদ্দেশ্যেই জোটের ভাবনাচিন্তা শুরু করেছেন মোদী, অমিত শাহেরা।


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ