জেলা 

অনুষ্ঠিত হয়ে গেল মনিরুজ্জামান সাহেব প্রতিষ্ঠিত সাঈদ মিয়া মেমোরিয়াল ইনস্টিটিউটে বাৎসরিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা

শেয়ার করুন

বিশেষ প্রতিনিধি : প্রতিবছরের ন্যায় এ বছরও মালদা জেলার গাজোল থানার অন্তর্গত রাজারামচক গ্রাম ট্রাস্ট ফর কমিউনিটি ডেভেলপমেন্টের পরিচালনায় সাঈদ মিয়া মেমোরিয়াল ইনস্টিটিউটের বাৎসরিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান গত ৯ এবং ১০ মার্চে সাড়ম্বরে অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত অনুষ্ঠানে কলকাতা থেকে বিশিষ্ট শিক্ষাবিদদের মধ্যে জনাব খালিদ হোসাইন, শেখ সালাউদ্দিন, মোহাম্মদ নাসিম, মাওলানা মোঃ আব্দুল ওহাব, এলাকার প্রধান শ্রীমতি উমা মন্ডল, উপপ্রধান সাজিদুল হক সেই সঙ্গে ট্রাস্ট এর সম্পাদিকা মনিরা বেগম এবং ট্রাস্টের ডাইরেক্টর আবুল ফারাহ মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ অনুষ্ঠানে উপস্থিত হইয়া অনুষ্ঠানের সাফল্যমন্ডিত করেন।

এই ট্রাস্ট এবং ইনস্টিটিউট প্রতিষ্ঠা করেন মরহুম মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান। মরহুম মনিরুজ্জামান সাহেবের পিতা মরহুম সাঈদ মিয়া ছিলেন বাংলার এক রূপকার। তিনি এই রাজারাম চক গ্রামে একটি হাই মাদ্রাসা, মালদা টাউনে একটি মুসলিম ইনস্টিটিউট হল, মালদহ মডেল মাদ্রাসা এবং জালালিয়া গার্লস হাই স্কুল প্রতিষ্ঠা করেন। তাঁর স্মৃতিতে তার যোগ্য পুত্র অধ্যাপক মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান সাহেব এই এলাকার ছেলেমেয়েদের উচ্চ শিক্ষায় শিক্ষিত করার লক্ষ্যে 1995 সালে উক্ত ট্রাস্ট এবং সাঈদ মিয়া মেমোরিয়াল ইনস্টিটিউট নামে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটি প্রতিষ্ঠা করেন। এই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রধান শিক্ষক হিসাবে এবং একজন প্রহরী হিসাবে জনাব লুৎফুল হককে দায়িত্ব দেন। তার সহকর্মী হিসাবে মোকলেসুর রহমান আরো অনেককে বাপ্পা ক্তার আলী, রাইসউদ্দিন ,শেফালী ম্যাডাম, আরো অনেককে যুক্ত করেন। সাধ্যমত তারা তাদের কাজ কাজ করে যাচ্ছেন। ২০২৪ সালে সাঈদ মিয়া মেমোরিয়াল ইনস্টিটিউট ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য একটি কম্পিউটার শিক্ষা দেওয়ার জন্য কম্পিউটারের উদ্বোধন করা হয়, বাচ্চাদের খেলার জন্য ছটি দোলনার ব্যবস্থা করা হল এবং আবাসিক ছাত্রদের জন্য চারটি বেডের উদ্বোধন করা হয়। খেলাধুলায় বা সংস্কৃতি অনুষ্ঠানে যারা ভালো পারফরমেন্স করতে পেরেছে তাদের হাতে সন্তোষজনক কিছু পুরস্কার তুলে দেওয়া হয়। পিতার স্মৃতি স্মরণ করতে গিয়ে মনিরা বেগম বলেন, মরহুম মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান কেবল রাজারাম চাকে নয় বরং দক্ষিণবঙ্গে যেমন আল আমীন মিললী মিশন, সপ্তগ্রাম একাডেমি, আরো আমাদের অজানা জায়গায় তিনি শিক্ষা বিস্তারের জন্য আপ্রাণ চেষ্টা করে গেছেন।

Advertisement

তাঁর অসম্পূর্ণ কাজগুলি তার যোগ্য কন্যা মনিরা বেগম, এবং তার দুই প্রিয় ছাত্র মাওলানা মোঃ আব্দুল ওহাব ও মাওলানা মোঃ মোজাফফর হোসেন সম্পূর্ণ করার আপ্রাণ চেষ্টা করে যাবেন। শিক্ষাবিদ খালিদ হোসেন, মোহাম্মদ নাসিম এবং শেখ সালাউদ্দিন সাহেবরা বলেন যে, আপনাদের এই এলাকায় এসে এসে দেখলাম যে এই সাধারণ শিক্ষার সঙ্গে সঙ্গে যদি নার্সিং স্কুল করা যায় তাহলে অদূর ভবিষ্যতে এলাকার ছেলেমেয়েরা আরো উপকৃত হবে তাই আমরা আপনাদের জন্য পরম করুনাময় আল্লাহ রাব্বুল আলামিনের দরবারে দোয়া করি আল্লাহ এই প্রতিষ্ঠানকে অধিষ্ঠিত করুন। সেই সঙ্গে মরহুম মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান সাহেবের স্বপ্ন আল্লাহ যেন পূরণ করেন।


শেয়ার করুন

সম্পর্কিত নিবন্ধ