কলকাতা জেলা 

ডিজিপির সাংবাদিক সম্মেলনের পরেই গ্রেফতার শিবু হাজরা, শাজাহান শেখ কবে ধরা পড়বে?

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলার জনরব ডেস্ক : পুলিশকে নির্দেশ দেয়া হলো উত্তম সর্দার এবং শিবু হাজরার বিরুদ্ধে গণধর্ষণের মামলা দায়ের করতে। এরপরই রাজ্য পুলিশের ডিজিপি রাজিব কুমার নবান্নে দাঁড়িয়ে সাংবাদিক সম্মেলন করলেন। সন্দেশখালি তথা রাজ্যের মানুষকে আশ্বস্ত করলেন দ্রুত গ্রেফতার করা হবে শিবু হাজরা ও শাজাহান শেখকে। ডিজিপি-র সাংবাদিক সম্মেলনের অব্যবহিত পরেই গ্রেফতার হলেন শিবু হাজরা। ডিজিপি রাজিব কুমার সাংবাদিক সম্মেলনেই বলেছিলেন কোন কারণে শাজাহান শেখকে গ্রেফতার করা এখনো সম্ভব হয়নি।

বসিরহাট পুলিশ জেলার সুপার হোসেন মেহেদি রহমান  বলেন, ‘‘ন্যাজাট থানা এলাকা থেকে শিবপ্রসাদকে গ্রেফতার করা হয়েছে। আগামিকাল (রবিবার) তাঁকে আদালতে হাজির করানো হবে।’’

Advertisement

বস্তুত, সন্দেশখালি-২ ব্লকের সভাপতি শিবুর নাম উঠে আসে শাহজাহানের সূত্র ধরে। গত ৫ জানুয়ারি শাহজাহানের বাড়িতে ইডির তল্লাশি করতে যাওয়া এবং আধিকারিকদের আক্রান্ত হওয়ার পর থেকে আর দেখা মেলেনি তৃণমূল নেতার। তাঁর সঙ্গে সঙ্গে শিবুও ‘নিখোঁজ’ ছিলেন। এর মধ্যে শিবুর বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ তুলেছেন সন্দেশখালির স্থানীয় মহিলাদের একাংশ। গত ৭ ফেব্রুয়ারি ওই তৃণমূলের নেতাদের বিরুদ্ধে নারী নির্যাতনের অভিযোগে গর্জে ওঠে সন্দেশখালি। ভাঙচুর চলে জেলা পরিষদের সদস্য তথা তৎকালীন অঞ্চল তৃণমূল সভাপতি উত্তমের বাড়ি। পর দিন ভাঙচুর করা হয় শিবুর বাগানবাড়ি এবং মুরগির খামার। আগুনও ধরিয়ে দেওয়া হয় ওই খামারে।

শিবু হাজরা আর গ্রেফতারের পর স্বাভাবিকভাবেই প্রশ্ন উঠেছে শাজাহান শেখ কবে ধরা পড়বে। কেন শাহজাহান শেখকে এখনো গ্রেফতার করতে পারল না রাজ্য পুলিশ? শাজাহান শেখ কে যতদিন না গ্রেফতার করা যাচ্ছে ততদিন পর্যন্ত এটাকে দেখিয়ে এই রাজ্যে বিজেপি যে ফায়দা লুটবে, তা নিয়ে কোন সন্দেহ নেই। এসব জানা সত্ত্বেও তাহলে কেন পুলিশের এই নীরবতা? মুখ্যমন্ত্রী তথা পুলিশ মন্ত্রী কেন শাজাহান শেখকে গ্রেফতারের নির্দেশ দিচ্ছেন না! তাহলে কি সুকৌশলে বিজেপিকে রাজনীতি করার সুযোগ করে দেয়া হচ্ছে?


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ