কলকাতা 

সন্দেশখালিতে ১৪৪ ধারা জারির নির্দেশ খারিজ করল হাইকোর্ট! কোন কারণে খারিজ? এলাকায় যেতে বাধা নেই রাজনৈতিক দলের নেতাদের!

শেয়ার করুন

বাংলার জনরব ডেস্ক : সন্দেশখালিতে কয়েক দিন ধরে চলা বিক্ষোভ কর্মসূচি রুখতে স্থানীয় প্রশাসন যে ১৪৪ ধারা জারি করেছিল তা খারিজ করে দিল কলকাতা হাইকোর্ট।

বিচারপতির জয় সেনগুপ্তের পর্যবেক্ষণ, উত্তেজনাপ্রবণ এলাকা চিহ্নিত করে ১৪৪ ধারা জারি করা হয়। এ ক্ষেত্রে পুরো এলাকায় ১৪৪ ধারা জারি করা হয়েছে। ১৪৪ ধারা জারির জন্য নির্দিষ্ট করে উপদ্রুত জায়গা চিহ্নিত করা হয়নি। তাই ১৪৪ ধারা খারিজ করা হল। আদালতের নির্দেশ, ওই এলাকায় আরও সশস্ত্র পুলিশ মোতায়েন করতে হবে।

Advertisement

রাজ্যের উদ্দেশে বিচারপতি জয় সেনগুপ্তের প্রশ্ন, ‘‘গোটা সন্দেশখালি জুড়ে উত্তেজনা? কেন গোটা এলাকায় ১৪৪ ধারা জারি? এর পর তো বলবেন গোটা কলকাতা জুড়েই ১৪৪ ধারা জারি করতে হবে। মামলায় গুরুতর অভিযোগ করা হয়েছে। হালকা ভাবে নেবেন না।’’

মামলাকারীর আইনজীবী বিকাশরঞ্জন ভট্টাচার্য অভিযোগ করেন, ‘‘শেখ শাহজাহান, সুশান্ত সর্দার এবং শিবু হাজরা এলাকার কৃষি জমিতে মাছের ভেড়ি করেছে। মেয়েদের উপর অত্যাচার করছে। প্রাক্তন বিধায়ক চার দিন ধরে পুলিশের হেফাজতে। মানুষকে একত্রিত করে মানুষের অধিকার রক্ষার দাবিতে আন্দোলন করছিলেন তিনি। পুলিশ আধিকারিকেরাও অভিযুক্ত। তাঁদের বিরুদ্ধে কোনও পদক্ষেপ করা হয়নি।’’ এর পরেই বিচারপতি জিজ্ঞেস করেন, এখনও কি ওই পুলিশ কর্মীরাই তদন্ত করছেন? তাঁরাই কি আইনশৃঙ্খলা সামলাচ্ছেন? জবাবে বিকাশরঞ্জন জানান, পুলিশই সামলাচ্ছে।

বিচারপতি সেনগুপ্তের পর্যবেক্ষণ, ‘‘গত তিন বছর ধরে পুলিশ কোনও অভিযোগ নেয়নি বলে দাবি। এলাকার মহিলারা নিরাপত্তার অভাব বোধ করছেন। এত কিছু অভিযোগের পরে আদালত চোখ বন্ধ করে থাকতে পারে না।’’

গত ৫ জানুয়ারি ইডি আধিকারিকদের উপর হামলার অভিযোগ উঠেছিল সন্দেশখালিতে। তৃণমূল নেতা শাহজাহানের বাড়িতে তল্লাশি অভিযানে গিয়েছিল কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা। ইডি আধিকারিকদের উপর হামলার ঘটনার পর থেকে পলাতক শাহজাহান। সম্প্রতি আবার উত্তপ্ত হয়েছে সন্দেশখালি। দফায় দফায় সেখানে অশান্তি, অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটেছে। তা নিয়ে প্রশ্নের মুখে পড়েছে পুলিশের ভূমিকা। অশান্তির ঘটনায় পুলিশ তিন জনকে গ্রেফতার করেছে।

এদিকে সন্দেশখালি তে যাওয়ার জন্য বিজেপি নেতা শুভেন্দু অধিকারী কলকাতা হাইকোর্টের যে আবেদন করেছিল সেই আবেদন নিষ্পত্তি করেছেন বিচারপতির জয় সেনগুপ্ত। তিনি বলেছেন যেহেতু সন্দেশখালীতে ১৪৪ ধারা খারিজ করে দেয়া হলো সুতরাং এবার যে কোন রাজনৈতিক দলের নেতা সন্দেশখালিতে যেতে পারবেন। অর্থাৎ মীনাক্ষী মুখার্জী এবং শুভেন্দু অধিকারী, সন্দেশখালি তে যাওয়াতে আর কোন বাধা রইল না।


শেয়ার করুন

সম্পর্কিত নিবন্ধ